আহম্মদ কবির: সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল চরম আকার ধারণ করে,হিংসা প্রতিহিংসার জন্ম নিয়ে,উপজেলার সাধারণ নেতাকর্মী পর্যায় পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ জনগণের মধ্যে একটাই প্রশ্ন কবে নিরসন হবে আওয়ামী লীগের এই অভ্যন্তরীণ কোন্দল।

এ উপজেলায় গেল দুইমাস ধরে আওয়ামী লীগের বিবদমান দুই কমিটি দিয়েই পৃথক পৃথক ভাবে চলছে দলীয় কার্যক্রম।এর ফলে আওয়ামী লীগের সাধারণ নেতাকর্মী সহ সহযোগী সংগঠনের মধ্যেও দেখা দিয়েছে বিভক্তি। ফলে উপজেলা আওয়ামী লীগে দলীয় কোন্দল চরম আকার ধারণ করছে।

চলতি শোকের মাসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস অনুষ্ঠানে জনসমাগম ঘটাতে দুই কমিটির পক্ষ হতেই উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারে প্রস্তুতিমূলক সভা করে আসছিল।এরই ধারাবাহিকতায় গত (১৫ই,আগস্ট) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস দুটি মঞ্চে বিভক্ত ভাবেই পালিত হয়েছে।আর এসব শোকসভায় ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতাকর্মী সহ সাধারণ মানুষ বিভক্ত হয়েই দুটি সভায় অংশ নিয়েছে।একটি শোক সভার প্রধান সমন্বয়কারী ছিলেন জেলা শ্রমিকলীগ সভাপতি মোঃ সেলিম আহমদ,অপর একটি শোক সভার প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সুনামগঞ্জ -১আসনের এমপি ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন।পৃথক পৃথক ভাবে পালিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস অনুষ্ঠানে,শোক দিবসের মূল আলোচনার পাশাপাশি একে অপরের বিষাদগার করেছেন বলেও সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ হয়েছে।

এছাড়াও গতকাল ১৭,আগস্ট কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসাবে তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ হতে ২০০৫ সালে বিএনপি জামায়াত জোট সরকারের শাসনামলে সংঘটিত দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে দুটি কমিটি বিভক্ত ভাবেই বিক্ষোভ মিছিল বের করে,একটি বিক্ষোভ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক আলী মর্তুজা, সাংগঠনিক সম্পাদক আলমগীর খোকন, উপজেলা সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল মেম্বার, জাতীয় শ্রমিকলীগ তাহিরপুর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মতি মিয়া, জেলা মৎস্যজীবী লীগের সদস্য শেখ গোলাম কাদির সুজন, উপজেলা মৎস্যজীবী লীগের সভাপতি ইসলামনুর,জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি রুমন মিয়া প্রমুখ।অপর একটি বিক্ষোভ মিছিল উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অমল কান্তি কর, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক হাফিজ উদ্দিন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন, যুবলীগ নেতা নাজমুল হুদা সংগ্রাম ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবুল বাশার প্রমুখ।

জানাযায় ২০১৫সালে ৫ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন সভাপতি আলহাজ্ব মতিউর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুট স্বাক্ষরিত ৬৭ সদস্য কমিটি সম্মেলনের মাধ্যমে অনুমোদন হয়েছিল।দুবছর মেয়াদি একটি কমিটি, আর এ কমিটিতে সভাপতি পদে আবুল হোসেন খান ও সাধারণ সম্পাদক পদে অমল কান্তি কর দায়িত্ব পান।ইতিমধ্যে এই কমিটির ৫জন সদস্য মারা গেছেন। দীর্ঘদিন ধরেই সম্মেলন করার কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। সম্মেলনের দিন-তারিখ নির্ধারণ করেও স্বরণকালের প্রলয়ংকরী বন্যার কারণে সম্মেলন করা হয়নি।এ নিয়ে উপজেলায় বিভিন্ন আলোচনা সমালোচনার জন্ম নেয়,দীর্ঘদিন এ কমিটির সম্মেলন না হওয়ায় নেতাকর্মীদের মধ্যে হতাশা সৃষ্টি হয়।অবশেষে গত দুইমাস পূর্বে ৫মে ২০২২ তলবি সভা ডেকে তৃণমূল আওয়ামী লীগের সদস্যদের মতামতের ভিত্তিতে সভাপতি আবুল হোসেন খান ও সাধারণ সম্পাদক অমল কান্তি কর কে অব্যাহতি দিয়ে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসাবে অধ্যাপক আলী মর্তুজা কে ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে শফিকুল ইসলাম কে দায়িত্ব দিয়ে,জেলা ও কেন্দ্রের কাছে অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়।এরই ধারাবাহিকতায় পালটা কমিটির আত্মপ্রকাশ ঘটে। আর এর এজন্যই নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটে।

Previous articleএনায়েতপুরে শ্বশুর বাড়িতে জামাইকে শ্বাসরোধে হত্যা
Next articleভারতে কারাভোগ শেষে দেশে ফিরল ৮ বাংলাদেশি নারী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।