মোঃ জালাল উদ্দিন: চা–শ্রমিকেরা ১৪৫ টাকা মজুরি মানেন না, তারা ৩০০ টাকা মজুরির দাবিতে শনিবার ২০ আগস্ট ২০২২ইং, রাত সাড়ে ৭টার দিকে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের চৌমোহনায় সড়কে অবস্থান নিয়েছেন চা–শ্রমিকেরা।

দৈনিক ১৪৫ টাকা চা-শ্রমিকদের মজুরি নির্ধারণ করার পর চলমান অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয় বাংলাদেশ চা-শ্রমিক ইউনিয়ন। ধর্মঘটের অষ্টম দিনে শনিবার সরকারের সঙ্গে বৈঠকের পর বিকেল চারটার সময় এই ঘোষণ দেন চা-শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নিপেন পাল। ঘোষণা দেওয়ার তিন ঘণ্টা না যেতেই সাধারণ চা-শ্রমিকদের রোষানলে পড়ে এবং বিভিন্ন ভ্যালি কমিটির সমর্থন না পেয়ে আবার ধর্মঘট চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে চা-শ্রমিক ইউনিয়ন। শনিবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে নিপেন পালের ঘোষণাতেই ধর্মঘট চালিয়ে যাওয়ার কথা জানানো হয়েছে।

দৈনিক ৩০০ টাকা মজুরির দাবিতে সারা দেশে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট ডেকেছিলেন চা-শ্রমিকেরা। ধর্মঘটের অষ্টম দিনে আজ সরকারের পক্ষ থেকে শ্রম অধিদপ্তরের মহাপরিচালক খালেদ মামুন চৌধুরী, মৌলভীবাজার-৪ আসনের সংসদ সদস্য মোঃ আবদুস শহীদ, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, সিলেট ও চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসকের প্রতিনিধির সঙ্গে বৈঠকে বসেন চা-শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা। বৈঠকে চা-শ্রমিকদের মজুরি ১২০ টাকা থেকে ২৫ টাকা বাড়িয়ে ১৪৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশ্বাসে সরকারের এই প্রস্তাব শ্রমিকেরা মেনে নিয়েছেন বলে জানান নিপেন পাল। তবে শনিবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে সিদ্ধান্ত উল্টে যায়।

চা-শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নিপেন পাল-সাংবাদিকদের বলেন,
প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তকে আমরা সম্মান জানাই। ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দেওয়ার পর বিভিন্ন চা-বাগান থেকে পঞ্চায়েত কমিটি ও ভ্যালি কমিটির নেতারা আমাদের ফোন দিয়ে জানান, ১৪৫ টাকা মজুরি মেনে নেবেন না বলে জানিয়েছে তাই শ্রমিকেরা বাগানে বাগানে আন্দোলন শুরু করেছেন। শ্রমিকেরা বৈঠকের সিদ্ধান্ত কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছেন না। তাই আমরা শ্রমিকদের কথা চিন্তা করে ধর্মঘট চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিচ্ছি।

এদিকে বিকেল চারটায় যখন ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা আসে, তখনই ওই ঘোষণা প্রত্যাখ্যান করেন বাংলাদেশ চা-শ্রমিক ইউনিয়নের মনু ধলাই ও লস্করপুর ভ্যালির নেতারা। তাঁরা তখনই ধর্মঘট চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন। ধর্মঘট প্রত্যাহার করার খবর শুনে ঢাকা-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কের চৌমোহনায় অবস্থান নেন চা-শ্রমিকেরা।

সেখানে শ্রীমঙ্গল, কমলগঞ্জ ও চুনারুঘাটের চা-শ্রমিকেরা রাস্তায় বসে স্লোগান দেন। সেখানে উপস্থিত চা-শ্রমিক নারী নেত্রী খায়রুন আক্তার বলেন, ইউনিয়নের নেতারা কাউকে কিছু জিজ্ঞেস না করে কীভাবে ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন। আমরা শ্রমিকেরা চাঁদা দিই, সেই চাঁদায় তাঁরা নেতাগিরি করেন। আমাদের যৌক্তিক আন্দোলন তাঁরা প্রত্যাহার করতে পারেন না। আমরা সেটা মেনে নেব না।

Previous articleকবিরহাটে কালো বাজারে বিক্রির জন্য নেওয়া সার জব্দ, ডিলারসহ আটক ২
Next articleহাতীবান্ধায় মৌচাক কাটাকে কেন্দ্র করে দুই গুরুপের মধ্যে সংঘর্ষে আহত ২
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।