মাসুদ রানা রাব্বানী: রাজশাহী মহানগরীর অতি গুরুত্বপূণ বিমানবন্দর সড়ক। সড়কি ডাবল থেকে ফোরলেন করা হচ্ছে। আট কিলোমিটার প্রধান এই সড়ক উন্নয়ন কাজ চলছে। তবে কাজের গতি স্বাভাবিকের তুলনায় অনেক কম। ফলে দীর্ঘায়িত হয়েছে মানুষের দুর্ভাগ। গত দুই বছর থেকে এই সড়কটির উন্নয়ন কাজ শুরু হয়েছে। কিন্তু কাজ যেন শেষ হতেই চায় না। সামান্য বাতাস হলেই ধূলো উড়ে রাস্তায় কুয়ার রুপ ধারন করে। এই ধূরোয় যাত্রীর চোখে মুখে ও যানবহনে ছেয়ে যায়। আর বৃষ্টি হলে তো কথাই নেই কাদা-পানিতে একাকার।

গত দুই বছর ধরে ভোগান্তির প্রায় একই চিত্র। তবে সড়কের কিছু স্থানে সংস্কার কাজ শেষে কার্পেটিং হয়েছে সেখান কিছুটা হলেই স্বস্তি। আর বাকিটা পথই দুর্ভোগ ও অসহ্য যন্ত্রণার। এই পুরো সড়কজুড়ে উন্নয়ন কাজ চলছে ঠিকই, শুধু গতি নেই! অথচ এই সড়ক দিয়ে প্রতি দিনই পুলিশ প্রটোকল নিয়ে যাতায়াত করছেন ভিআইপিরা। ব্যবহার করছেন আকাশপথের যাত্রীরা। এছাড়া চলছেন সাধারণ মানুষও।

এই সড়ক ব্যবহার করছে রাজশাহীর হযরত শাহ মখদুম (রহ.) বিমানবন্দর, রাজশাহী-নওগাঁ এবং জয়পুরহাট রুটের যাত্রীবাহী বাস, ট্রাক এবং অন্যান্য ভারি যানবাহন। ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলাচল করছে সব ধরনের যানবাহন। অসুস্থ রোগী, প্রসূতি নারী ও হাড় ও মাজার সমস্যায় ভুগছেন এমন মানুষের জন্য জমদূত হয়ে দাঁড়িয়েছে- রাজশাহীর সবচেয়ে জরুরি ও ভিআইপি এই মহাসড়কটি। দুর্ভোগ ও কষ্ট সহ্য করে রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়কের এই আট কিলোমিটার সড়ক যাতায়াত করছেন ভুক্তভোগী মানুষ। রাজশাহী মহানগরীর রেলগেট থেকে উত্তরে থাকা শহরের প্রবেশ মুখ নওদাপাড়া আমচত্বর, বিমানবন্দর হয়ে পবার নওহাটা ব্রিজ পর্যন্ত বিস্তৃত মহাসড়কজুড়েই চলছে উন্নয়ন কাজ।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মহানগরীর রেলগেট থেকে আমচত্বর পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার সড়কটির একপাশ সচল অন্যপাশ এখনও অচল। এর মধ্যে শালবাগানে বন বিভাগের সামনে থেকে দক্ষিণের বাজার পর্যন্ত এবং উত্তরে বিজিবি ক্যাম্প পর্যন্ত ফোরলেন সড়কটি সম্প্রসারণের পর গত দুইদিন থেকে কার্পেটিংয়ের কাজ চলছে। তবে এই অংশে এখনও কাজ সম্পন্ন হয়নি। ইট-পাথর আর বালু পড়ে থাকা সড়কের ওপর দিয়ে যানবাহন গেলেই ধুলায় ঢেকে যাচ্ছে পুরো এলাকা। এরপর শাহমখদুম থানার মোড় থেকে পোস্টাল অ্যাকাডেমি, আমচত্বর থেকে বায়া বাজার, পবা উপজেলা চত্বর থেকে বিমানবন্দরের আগ পর্যন্ত সড়কে কেবল ইট-পাথর আর বালু ফেলে রাখা হয়েছে। তবে নওহাটা কলেজ মোড়ের চৌরাস্তাটির কার্পেটিং মাত্র তিন দিন আগে শেষ করা হয়েছে। এদিকে নওদাপাড়া আমচত্বর মোড়ের আগের ডাবললেন সড়কটি কেটে ফোরলেনে প্রশস্ত করায় দুই প্রান্তে উঁচু-নিচু সড়ক তৈরি হয়েছে। সেখানে গর্ত হয়ে শহরের এই প্রবেশমুখটি আরও সংকুচিত হয়ে পড়েছে। এই সংকুচিত সড়ক দিয়ে চার দিক থেকে যানবাহন শহরে ঢুকছে এবং বের হচ্ছে। এভাবে চলতে গিয়ে দিনের শুরুতে এবং শেষে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। নওদাপাড়া আমচত্বর থেকে নওহাটা পর্যন্ত অল্প কিছু স্থানই কার্পেটিং করা হয়েছে। বাকি সড়ক এখনও কার্পেটিং হয়নি। ফলে সড়কে চলাচলকারী মানুষ ছাড়াও স্থানীয়দের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

মহানগরীর শাহ মখদুম এলাকার সুজন শেখ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, গত দুই বছর থেকে এই সামান্য আট কিলোমিটার সড়কের কাজ চলছে। কাজ ভালোভাবে চললে এত দিন লাগবে কেন? তবে এভাবেই দিনের পর দিন কাজ চললে আশপাশের এলাকার মানুষের দুর্ভোগের আর শেষ থাকবে না। তাই বিষয়টি দ্রুত নজর দেওয়া উচিত বলেও মন্তব্য করেন তিনি। বায়া বাজারে কুদ্দুস নামের এক ব্যক্তি বলেন, রিকশা ও মোটরসাইকেল নিয়ে এই সড়ক দিয়ে যাওয়ার উপায় নেই। খরা মৌসুমে এই সড়ক দিয়ে গেলে ধুলো দিয়ে গোসল করার মতো অবস্থা দাঁড়ায়। আর বৃষ্টি হলে কাদা-পানিতে একাকার হতে হয়। এই সড়ক ব্যবহার করে মানুষের ফুসফুস নষ্ট হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। স্থানীয়দের অনেকেই শ্বাসকষ্টে ভুগছে।

সড়ক ও জনপথ বিভাগ (সওজ) রাজশাহীর সড়ক উপবিভাগ-১- এর উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মোহা. নাহিনুর রহমান বলেন, ফোরলেন সড়ক উন্নয়নের কাজ চলমান রয়েছে। করোনার কারণে কিছু দিন কাজ বন্ধ ছিল। এপরপর আর বন্ধ হয়নি। ডাবল মহাসড়কটিকে ফোরলেনে উন্নীতের কাজ শুরু হয়েছিল ২০২০ সালের জুন মাসে। চারটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন প্যাকেজে কাজ করছে। তবে আগামী জুন পর্যন্ত প্রকল্পের মেয়াদ আছে। এখন নির্মাণ সামগ্রীর দামও বেশি। তাই হাতে সময় থাকায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলো একটু ধীরে কাজ করছেন। ধীরগতির বিয়ষটি তারাও লক্ষ্য করেছেন। তাছাড়া উন্নয়ন কাজ শুরু হলে একটু দুর্ভোগ হবেই বলে মন্তব্য করেন এই কর্মকর্তা।

Previous articleএক দিনে আরো ২০১ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে
Next articleশিক্ষার্থীর ম্যাসেঞ্জারে অশ্লীল ছবি চেয়ে স্ট্যাটাস, না দেওয়ায় গালিগালাজ হুমকি!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।