জয়নাল আবেদীন: দীর্ঘ ১৫ বছর পর রংপুরে এক গৃহবধু ধর্ষন মামলায় আসামির যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ডের রায় প্রদান করা হয়েছে।গতকাল বুধবার রংপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালত ১ এর বিচারক মোস্তফা কামাল এ রায় প্রদান করেন। রায় ঘোষনার সময় আসামী মমিনুল ইসলাম বাবু আদালতে উপস্থিত ছিলেন। পরে তাকে পুলিশী পাহারায় রংপুরের কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়।

মামলার বিবরণে জানা যায় ২০০৭ সালের ২৬শে মে ভোর সোয়া ৬ টার দিকে রংপুর নগরীর তাজহাট রেলওয়ে বস্তিতে বসবাসকারী গৃহবধু প্রতিবেশি ফুফুর বাড়ি থেকে রিকশা করে নগরীর পীরপুর যাওয়ার পথে লালবাগ খামার এলাকায় ওই গৃহবধুকে রিকশা থেকে টেনে হেচরে তুলে নিয়ে খামার এলাকার পুর্বদিকে একটি গাছের নীচে খুপরি ঘরে নিয়ে গিয়ে আসামী আমিনুল ইসলাম বাবু জোর পুর্ব্বক ধর্ষন করে। এ সময় অন্য দুই আসামী বাইরে দাঁড়িয়ে পাহারা দেয়। পরে তার আত্মচিৎকারে আশে পার্শ্বের লোকজন এগিয়ে এলে আসামীরা পালিয়ে যায় কিন্তু এলাকাবাসি আসামী আসাদুলকে আটক করে নগরীর মাহিগজ্ঞ পুলিশ ফাঁড়িতে সোর্পদ্দ করে। এ ঘটনায় পরেরদিন ওই গৃহবধু নিজেই বাদী হয়ে কোতয়ালী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন । তদন্ত শেষে মামলার তদন্তকারী পুলিশ কর্মকর্তা এস আই আজিজুল ইসলাম তিন আসামীর বিরুদ্ধে ২০০৭ সালের ১৭ জুলাই আদালতে চার্জসীট দাখিল করে।

মামলায় ১২ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য ও জেরা শেষে আসামী আমিনুল ইসলাম বাবুকে দোষি সাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ডের রায় প্রদান করেন। অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় অপর দুই আসামী আসাদুল ও রজ্ঞুকে বেকসুর খালাস প্রদান করেন আদালত।

বাদী পক্ষে মামলা পরিচালনাকারী আইনজিবী বিশেষ পিপি রফিক হাসনাইন । এ্যাডভোকেট জানান দীর্ঘ ১৫ বছর পরে হলেও ভিকটিম ন্যায় বিচার পেয়েছে সে কারনে এ রায়ে আমরা সন্তোষ প্রকাশ করছি। অন্যদিকে রায় ঘোষনার সময় আসামী পক্ষের কোন আইনজীবী আদালতে উপস্থিত না থাকায় তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি ।

Previous articleউল্লাপাড়ায় একটি ডায়াগনষ্টিক সেন্টার সিলগালা, আরেকটির মালামাল জব্দ
Next articleকলাপাড়ায় ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ডিজিটাল ডায়াগনষ্টিক সিলগালা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।