বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নীলফামারীর ডোমার উপজেলায় স্ত্রী ও আড়াই বছরের মেয়ে সন্তানকে ধারালো ছুরি দিয়ে হত্যার পর নিজের পেটে ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন জিয়ারুল ইসলাম (৩০) নামের এক ব্যক্তি।

বুধবার দুপুরে উপজেলার বোড়াগাড়ী ইউনিয়নের নিমোজখানার হরতকিতলা নামকস্থানে এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনায় আহত হয়েছে ঘাতকের এক মাস বয়সী শিশু সন্তান ইয়াছিন। তার শাশুড়ি বিলকিস বেগম ও ঘাতক জিয়ারুল নিজেই। আশঙ্কাজনক অবস্থায় আহত তিনজনকে উদ্ধার করে ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়।

নিহতরা হলেন- জিয়ারুলের স্ত্রী রত্না বেগম (২৫) ও আড়াই বছর বয়সী মেয়ে ইয়াছমিন আক্তার।

জিয়ারুল উপজেলার বোড়াগাড়ী ইউনিয়নের চান্দিনাপাড়া এলাকার সুমারু মামুদের ছেলে। তিনি তার শ্বশুরবাড়ি নিমোজ খানার হরতকী তলায় চার বছর থেকে স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস করে আসছেন।

স্থানীয়রা জানায়, বুধবার দুপুরে স্বামী জিয়ারুলের সাথে স্ত্রী রত্না বেগমের পারিবারিক বিষয় নিয়ে ঝগড়া হয়। ঝগড়ার একপর্যায়ে জিয়ারুলের স্ত্রী তার আড়াই বছরের মেয়ে ইয়াছমিনকে নিয়ে বাড়ির বাইরে চলে যান। এ সময় রত্নার মা বিলকিস বেগমও তার এক মাস বয়সী নাতীকে কোলে নিয়ে বাড়ির বাইরে হরতকি তলার রাস্তায় যান।

তারা জানায়, ওই সময় জিয়ারুল বাড়ি থেকে ধারালো ছুরি নিয়ে তার শাশুরির কোলে থাকা শিশু সন্তানকে আঘাত করে মাটিতে ফেলে দেন। এ সময় তার শাশুরি শিশুটিকে নেয়ার জন্য সামনে গেলে জিয়ারুল ছুরি দিয়ে তার শাশুরিকে আঘাত করেন। এতে তার শাশুরির গালে ও পিঠে ছুরির আঘাত লাগে। পরে তার শাশুরি দৌড়ে জমিতে নেমে বাচ্চাটিকে পানি থেকে উদ্ধার করেন। এ সময় জিয়ারুলের হাতে থাকা ধারালো ছুরি দিয়ে তার আড়াই বছর বয়সী মেয়ের পেটের ভিতরে ছুরি ঢুকায় দিয়ে তার নাড়ি-ভুড়ি বের করে মৃত্যু নিশ্চিত করেন। পরে ওই ছুরি দিয়ে তার স্ত্রীকে হত্যা করেন। স্ত্রীকে হত্যার পর জিয়ারুল ছুরিটি নিজের পেটে ঢুকায় আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। তবে তিনি বেঁচে যান। তার পেটের নাড়ি-ভুড়ি বের হয়ে রাস্তায় পড়ে তিনি কাতরাতে থাকেন।

খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে থেকে আহত বিলকিস বেগম, তার নাতি ইয়াছিন ও ঘাতক জিয়ারুলকে উদ্ধারকে ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান।

ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায় হরতকী তলার রাস্তার এক ধারে মা ও মেয়ের লাশ পড়ে রয়েছে। পাশেই শিশু সন্তানকে কোলে নিয়ে রক্তাত্ব অবস্থায় কাতরাচ্ছেন নিহত রত্নার মা বিলকিস বেগম। রাস্তার মাঝখানে পড়ে রয়েছেন ঘাতক জিয়ারুল। তার পেটের নাড়ি-ভুড়ি বের হয়ে তিনিও কাতরাচ্ছেন। মা ও মেয়ে হত্যার খবরটি ছড়িয়ে পড়লে আশপাশের অসংখ্যক নারী-পুরুষ সেখানে ভীড় করেন।

ডোমার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাহমুদ উন নবী স্ত্রী ও সন্তানকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যা চেষ্টা বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাস্থলে তার নেতৃত্বে ফোর্স কাজ করছে। আহত অবস্থায় তিনজনকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। তবে কি কারণে এই হত্যাকাণ্ড তার সঠিক কারণ এখনো জানা যায়নি বলেও জানান তিনি।

Previous articleউলিপুরে মসজিদ, ক্লিনিক ও দুইটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ অর্ধশতাধিক বাড়ি তিস্তার গর্ভে বিলীন
Next articleউল্লাপাড়ায় একটি ডায়াগনষ্টিক সেন্টার সিলগালা, আরেকটির মালামাল জব্দ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।