ফজলুর রহমান: রংপুরের পীরগাছায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার মানোন্নয়নে প্রধান শিক্ষকদের নিয়ে এক মাসে দফায় দফায় মাসিক সভা করলেও তা মানছেননা প্রধান শিক্ষকরা। নির্দিষ্ট সময়ে শিক্ষকদের আগমন ও প্রস্থান নিশ্চিত করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বিদ্যালয়গুলো পরিদর্শন করলেও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছেনা ।

শিক্ষা কর্মকর্তাদের অনেকেই শিক্ষা উপকরণ ব্যবসায় জড়িত থাকায় প্রধান শিক্ষকগণ তাদের এসুযোগ কাজে লাগিয়ে অফিসিয়াল নির্দেশনা মানছেন না। গত ৩০ আগস্ট উপজেলার দুড়াগাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, সহকারি শিক্ষক ঈমান আলী যথাসময়ে বিদ্যালয়ে আসলেও অন্যরা নেই। ৯.১৫ মিনিটে আসেন সহকারি শিক্ষক আব্দুল হালিম ও আনোয়ারুল । প্রধান শিক্ষক আকমল হোসেন অরেঞ্জ আসেন ১১.১৫মিনিটে ।

দুড়াগাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত ১৩৮ জন শিক্ষার্থী থাকলেও ওই দিন উপস্থিত পাওয়া যায় ৬৩ জনকে । ওই বিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা বলেন প্রধান শিক্ষক সপ্তাহে ১/২দিন বিদ্যালয়ে আসেন আর পুরা সপ্তাহের শিক্ষক হাজিরা খাতা স্বাক্ষর করে ২ঘটিকার মধ্যে বিদ্যালয়ে ত্যাগ করেন । তারা আরো বলেন ওই প্রধান শিক্ষকের আগমন প্রস্থানসহ যে কোন ধরনের অনিয়মকে সায় দিয়ে ইমান আলী সকলকে বলেন স্যার অফিসিয়াল কাজে পীরগাছা/রংপুরে আছেন । প্রতিদিন স্কুলে না আসার বিষয়টি স্বীকার করে আকমল হোসেন অরেঞ্জ বলেন আমি রংপুর শহরে থাকি তাই মাঝে মধ্যে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার স্যার ও বিভাগীয় উপ-পরিচালক স্যার বিভিন্ন কারনে আমাকে অফিসে ডেকে নেন, এই জন্য নিয়মিত আসতে পারি না বা দেরিতে আসতে হয়। অপর দিকে গত ১ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার উপজেলার মিরাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, শিক্ষার্থীরা যথাসময়ে বিদ্যালয়ে এসেছে কিন্তু শিক্ষকরা আসেননি । এই কোমলমতি শিক্ষার্থীদের কেউবা মাঠে খেলছে কেউবা দোকানে ভির করছে, আবার অনেকেই বিদ্যালয়ের প্রবেশ পথ কেচি গেটের বাইরে সিরিতে বসে অপেক্ষা করছে কখন স্যার আসবে । বিদ্যালয়ে ০৯.৩৩ মিনিটে আসেন সহকারি শিক্ষক আশরাফুল আজম, ০৯.৫০ মিনিটে আসেন আব্দুল ওয়াহেদ মোল্লা, ০৯.৫৮ মিনিটে আসেন জিন্নাত আরা কল্পনা, ১০টার পর আসেন প্রধান শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক ও তার মেয়ে সহকারি শিক্ষক রিংকি আক্তার । ১০.১০ মিনিটে খোলেন শিশু শ্রেণীর রুম, ও অন্যান্য শ্রেণী কক্ষের তালা । উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায় ওই বিদ্যালয়ে মোট শিক্ষার্থী ১৫১ জন । প্রাক-প্রাথমিকে ২৫ জনের মধ্যে ৫ জন, ১ম শ্রেণীর ২৯ জনের মধ্যে ১৪ জন ও ২য় শ্রেণীর ২০ জনের মধ্যে ১৩ জন উপস্থিত ছিল ।

ছাত্রী অভিভাবক আসাদুজ্জামান বলেন প্রতিদিন ১০ টার পূর্বে বিদ্যালয়ে তালা খোলে না । তিনি আরো বলেন, উপজেলা শিক্ষা অফিসার ও সহকারি উপজেলা শিক্ষা অফিসারদের এবং বলেও কোন কাজ হচ্ছে না । প্রধান শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক মেয়েসহ নিজের দেরিতে আসার বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে তিনি বলেন বিদ্যালয়ের পরিবেশ ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছি । নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা বলেন আমাদের সহকারি উপজেলা শিক্ষা অফিসার শাহিনুর আলম স্যারের সাথে প্রধান শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক এর ভালো সম্পর্ক থাকায় তিনি কোন কিছুর তোয়াক্কা করেন না । সহকারি উপজেলা শিক্ষা অফিসার শাহিনুর আলম বলেন, ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক যে কোন কর্মসুচিতে লিডিং দেয়ার কারনে তার সাথে ভালো সম্পর্ক । আগমন প্রস্থানের বিষয়ে বলেন প্রতি মাসে ওই বিদ্যালয়ে আমাকে যেতে হবে । একই ভাবে উপজেলার চর ছাওলা কামারের হাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুক্তি রানী ও পূর্ব শিবদেব চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফজলুল হক কোন দিন নির্দিষ্ট সময়ে আগমন প্রস্থান করেন না । তারা স্কুলে আগমন করেন দেরীতে প্রস্থান করেন সময়ের পূর্বে ।

প্রধান শিক্ষক ফজলুল হক বিভিন্ন জনের সামনে বলেন আমি অনিয়মের মধ্য দিয়ে চলব, কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনে আমার প্রশাসনিক বদলী করে দিবেন,এতে আমার সুবিধা হবে । জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার এ এম শাহজাহান সিদ্দিক জানান, দুড়াগাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আকমল হোসেনকে আমি চিনিনা, এই প্রথম আমি আপনার মুখে শুনলাম। আপনি রিপোর্ট করেন আমি তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।

Previous articleআন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি থেকে অবসরে মুশফিক, সামাজিক মাধ্যমে যে প্রতিক্রিয়া
Next articleচতুর্থ শিল্প বিপ্লবের যুগে বেশি দক্ষতা অর্জন করতে হবে: বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।