মিজানুর রহমান বুলেট: পর্যটন নগরী সাগর কন্যা কুয়াকাটার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন স্পট মিস্ত্রীপাড়া। যেখানে রয়েছে ৩৬ফুট উচু রাখাইন বৌদ্ধবিহার।গড়ে উঠেছে বিভিন্ন দোকানপাঠসহ বিশাল রাখাইন মার্কেট। কুয়াকাটা-জিরোপয়েন্ট থেকে প্রায় ১০ কিলো পূর্ব উত্তরে অবস্থিত এই মন্দিরটি। সেখানে প্রতিদিন যাতায়াত করছে হাজার হাজার পর্যটক।

গত দুইবছর ধরে প্রধান সড়কটি চলাচলের জন্য একদম অনুপযোগী হয়ে পড়ছে। পদ্দাসেতু চালুহওয়ার পররই ব্যাপক ভ্রমন পিপাসুদের চাপ বেড়ে যাওয়ায় মাইক্রোবাস ও প্রাইভেটকার তো ওই ভাঙ্গাচুড়া রাস্তা তো যাচ্ছেই না বরং মাঝে মাঝে গেলেও তা বিরুপ মন্তব্য করে চলে আসে। প্রতিদিন ওই সড়ক দিয়ে অনেক কষ্ট করে অটোগাড়ী ও অটো ভ্যানে করে দর্শনীয় স্থানটি দেখতে গেলেও ভোগান্তির কোন শেষ থাকে না। তাই দ্রুত সড়কটি প্রশস্তসহ সংস্কারের দাবী জানান পর্যটক ও পর্যটন শিল্পেরসাথে থাকা সংস্লিষ্টরা।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, কুয়াকাটার অন্যতম দর্শনীয় স্পট রাখাইন বৌদ্ধবিহার মিস্ত্রিপাড়া প্রায় ১০ কিলো রাস্তা যাতায়েতের জন্য খুবই বেহাল দশায় পরিনিত হয়েছে। প্রতিদিন হাজার হাজার পর্যটকরা এই ধংসযজ্ঞে সড়কটি দিয়ে আসা যাওয়া করছে। আর সংস্লিষ্ট কর্মকর্তাদের উপরে ব্যাপক দ¦ায়ীত্ব নিয়ে অভিযোগ তুলেন। দেশের গ্রুত্বপূর্ন একটি পর্যটন কেন্দ্র এই ভাবে দীর্ঘদিন ধরে সড়কটি নাজুক হয়ে পড়ে আছেন তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেন আগত পর্যটকরা।কুয়াকাটা মহাসড়ক সংযুক্ত বঙ্গবন্ধু মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পাশ দিয়ে বঙ্গবন্ধু রোড হয়ে মিস্ত্রিপাড়া পর্যন্ত তিনটি মাধ্যমিক ও ৩টি প্রাইমারী স্কুল রয়েছে এই একটি মাত্র পাকা সড়ক দিয়ে ভোগান্তি পোহাতে পোহাতে চলাচল করতে হয় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের। কুয়াকাটায় বাঁধভঙ্গা উচ্ছাস নিয়ে আসা বিনোদন প্রেমিকরা যখন সমুদ্র গোসল করার পরে অন্য স্পট গুলো দেখার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করে তখন রওয়ানা দেয় বৌদ্ধবিহরের দিকে রাস্তায় যেতে যেতে অনিহা ও ভোগান্তির কথা জানান, ঢাকা নারায়নগঞ্জ থেকে আসা আহিয়ান জয় (২৫) এক সুন্দর একটি জায়গা শুধু রাস্তার কারণে অনেক পর্যটক আসছে না আমার খুব খারাপ লাগছে সড়কটি খুবই ভাঙ্গা অনেক কষ্টকওে আসছি এই নিদর্শণ দেখতে পর্যটক হিসাবে বলতে চাই এই রাস্তাটা দ্রুত সংস্কার ও প্রসস্থ করা।

অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী পিংকি মজুমদার (৩৬) জানান, তারা ফ্যামিলিসহ বিদেশী জামাই নিয়ে বরিশাল হয়ে কুয়াকাটা আসঝে ২দিন হয়। রাখাইন বৌদ্ধবিহারে নাম শুনে আসলাম আসতে যে কষ্ট হয়েছে পাজারো হাড়ী রেখে ভ্যানে আসলাম ভোগান্তির কথা আর কি বলব এখানে ভালো একটি দর্শণীয় স্থান তারপর রাখাইন মার্কেট ও পল্লী রয়েছে শুধুই যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো নয়। মিস্ত্রীাপাড়ার বড় ব্যবসায়ী জসিম মুসুল্লী বলেন, কুয়াকাটার গ্রুরুত্বপূর্ন স্পট দেখে প্রায় ২ কোটি টাকা বিনিয়োগ করছি কয়েকটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে। কিন্তু করোনার কারণে গত ২ বছর লস হওয়ায় এখন পর্যন্ত ঘুওে উঠে দাড়াতে পারিনাই । তারপর এখন রাস্তা খুব খারাপ একবার আসলে আর ট্যুরিস্ট আসে না। খুব খারাপ দিন যাচ্ছে।

স্থানীয় সমাজসেবক শফিকুর রহমান শফি বলেন, গত ৬ বছর হলো এই রাস্থার কার্পেটিং করছে স্থানীয় বিভাগ এখন এই রাস্তার এতটাই নাজুক তা ভাষায় প্রকাশ করতে পারছি না স্থানীরা ও চলতে পারছে না পর্যটক তো দুরের কথা। কুয়াকাটা ট্যুরিজম ম্যানেজমেন্ট আ্যাসোসিয়েশন কুটুমের যুগ্ন-সম্পাদক জাকারীয়া জাহিদ বলেন, কুয়াকাটায় আগত পর্যটকরা এখানে এসে বেশী ট্যুর করেন মিস্ত্রীপাড়া বৌদ্ধবিহারে প্রতিদিন শতশত পর্যটক আর শুক্র-শনিবার হাজার হাজার বলাচলে কিন্ত আজ ২ বছর যাবৎ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন অন্য দিকে এই সড়কটাকে প্রসস্ত করা ও জরুরী সরু রাস্তা হওয়ার কারণে ২টি মাইক্রোবাস ক্রোসিং করতে পারছেনা দ্রুত এই ভোগান্তি থেকে রক্ষা পেতে চাই।

কলাপাড়া উপজেলা নিবার্হী প্রকৌশলী (এলজিইডি) মোহর আলী জানান, আমরা দেখেছি ওই রাস্তা ভেঙ্গে গেছে যাতায়েত করতে খুবই সমস্যা হয়, তবে পিডি মহাদ্বয়ের কাছে আমরা একটি প্রোপজল পাঠিয়েছি, আশা করছি খুব দ্রুতই এ কাজটি শুরু করা হবে ।

Previous articleসাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী আজ
Next articleফুলবাড়ীতে ধরলার তীব্র ভাঙ্গনে বিলীন হচ্ছে বিস্তৃর্ণ এলাকা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।