জয়নাল আবেদীন: রংপুরের দূর্ঘটনা প্রবণ এলাকা হিসেবে চিহ্নিত -তারাগঞ্জে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে সর্ব শেষ মৃতের সংখ্যা দাড়িয়েছে ৯জন এবং আহত ৫০ জন রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং তারাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এর মধ্যে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ২০জন । বাকিরা প্রাথমিক চিকৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ।

তারাগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ এবং বাসে থাকা আহত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন যাত্রীদের কাছ থেকে জানা গেছে রাত থেকে প্রচন্ড বৃষ্টি হচ্ছিল। ঠাকুরগাঁও থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী ইসলাম পরিবহন যাত্রীবাহী জোয়ানা পরিবহনের সঙ্গে রংপুর-দিনাজপুর আঞ্চলিক সড়কের তারাগঞ্জের খারুভাজ ব্রীজের কাছে যাত্রীবাহী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।

তাদের মধ্যে পাঁচজন ঘটনাস্থলে এবং চারজন রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরণ করেন । দুর্ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়রা বৃষ্টিতে ভিজে উদ্ধার কাজ পরিচালনা করেন। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আহত যাত্রি চিকিৎসাধীন মোস্তফা বলেন ঠাকুরগাঁও থেকে ইসলাম পরিবহনে উঠি। রাত ১২টার দিকে মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছিল। গাড়িও চলছিল দ্রুতগতিতে। হঠাৎ বিকট শব্দ। মুহূর্তের মধ্যে কী যে ঘটে গেল, কিছুই বুঝতে পারলাম না। এরপর ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি করে আমাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। চিকিৎসাধীন রহিম বলেন, রাত সাড়ে ১১টার দিকে রংপুর শহরের সিও বাজার থেকে তারাগঞ্জ যাওয়ার জন্য জোয়ানা পরিবহনের বাসে উঠি । ওই সময় বৃষ্টি হচ্ছিল। বাসে ওঠার আধা ঘণ্টার মধ্যে দুর্ঘটনা ঘটল। এরপর আর কিছু বলতে পারি না।

ঠাকুরগাঁও থেকে ছেড়ে আসা ইসলাম পরিবহনের যাত্রী চিকিৎসাধীন মোজাফফর হোসেন বলেন, আমরা তখন বাসের ভেতর। চোখে ঘুম ঘুম ভাব। বিকট শব্দে শরীরে ধাক্কা লাগে। এরপর আর কিছু বলতে পারি না। পরে চোখ মেলে দেখি আমি হাসপাতালে। হাতে পায়ে আঘাত প্রাপ্ত। তারাগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ মোহাম্মদ মাহবুব মোর্শেদ বলেন রাত তিনটা পযর্ন্ত ঘটনাস্থল থেকে পাঁচজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ঘটনাস্থলে মারা যাওয়া পাঁচজনের মরদেহ তারাগঞ্জ হাইওয়ে থানায় রয়েছে। ঘটনাস্থলের নিহত পাঁচজনের নাম এখনো পাওয়া যায়নি।

রমেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ফরহাদুজ্জামান বলেন, দুর্ঘটনায় আহত চারজন ভোর রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। এদের মধ্যে দুইজনের নাম পাওয়া গেছে। এই দুজন হলেন- নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার কামারপুকুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক অলিউল হাসান জুয়েল ও গাইবান্ধার সাদেক আলী । অন্য দুজন অজ্ঞাত। ছাত্রলীগের সহযোগিতা: দুর্ঘটনার খবর পেয়েই বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করে হাসপাতালে ছুটে যান রংপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম সাব্বির আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক এ কে এম তানিম আহসান চপলের নেতৃত্বে ২০-৩০ জন নেতা কর্মী। সারারাত আহতদের রক্ত, প্রয়োজনীয় ঔষধ, স্যালাইন ও খাবার পানি সরবরাহসহ নিজের পকেটের টাকা দিয়ে ঔষধ কিনে সরবরাহ করেন তারা। এ সময় রক্তদান করেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তানিম আহসান।

রংপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম সাব্বির আহমেদ এ প্রতিবেদককে জানান স্থানীয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের কাছে দুর্ঘটনার খবর পেয়ে বিলম্ব না করেই আমরা মধ্যরাতেই হাসপাতালে ছুটে যাই। এ সময় অর্ধশতাধিক আহত ব্যক্তিকে প্রয়োজনীয় ঔষধ, স্যালাইন, খাবার ও রক্তের ব্যবস্থা করে দেই। এটি নৈতিক দায়িত্ব থেকেই করেছি আমরা।এদিকে আহতদের পাশে থাকায় এবং চিকিৎসায় সহযোগিতা করায় প্রশংসা করেছেন মমিনুল , আশরাফুল , বাশির উদ্দিন ,আব্দুল্লাহসহ আহত যাত্রীদের পরিবারের সদস্যরা। হাসপাতালে ইন্টার্ণ চিকিৎসক ও নার্সরাও ধন্যবাদ দিয়েছেন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের।

জেলা সেবকের অনুদান : রংপুরের তারাগঞ্জে মধ্যরাতে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৯ জনের প্রতিটি পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন জেলার সেবক জেলা প্রশাসক মো: আসিব আহসান। একই সঙ্গে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আহতদের চিকিৎসার খরচ বহন করা হবে বলেও জানান তিনি। গতকাল সোমবার সকালে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আহতদের দেখতে যান জেলা প্রশাসক আসিব আহসান। এ সময় আহতদের চিকিৎসার খোঁজখবর নেন এবং চিকিৎসার খরচ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দেওয়ার ঘোষণা দেন। একই সঙ্গে নিহতদের দাফন সম্পন্ন করতে প্রত্যেক পরিবারকে ২০ হাজার করে টাকা বরাদ্দ দেন। এসময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক গোলাম রব্বানী আজকের বাংলাদেশকে বলেন আহতদের চিকিৎসার খরচ জেলা প্রশাসন থেকে বহন করা হচ্ছে। নিহতদের পরিবারকে দাফন কাজে সহায়তায় ২০ হাজার করে টাকা দেওয়া হচ্ছে ।

দুটি তদন্ত কমিটি গঠন: রংপুরের তারাগঞ্জে যাত্রীবাহী দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ৯ জন নিহতের ঘটনায় ২টি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। সোমবার মর্মান্তিক এ সড়ক দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে পুলিশ ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পৃথক দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।রংপুর জেলা পুলিশ সুপার প্রকৌশলী ফেরদৌস আলী চৌধুরী জানিয়েছেন জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বি সার্কেলকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে ।

অন্যদিকে জেলা প্রশাসন রংপুরের পক্ষ থেকে তারাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: রাসেল মিয়াকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্য হলেন পুলিশের প্রতিনিধি এবং বিআরটিএর প্রতিনিধি। দ্রæত সময়ের মধ্যে তদন্তের রিপোর্ট প্রদানের নির্দেশ দেয়া হয়েছে ।

Previous articleভোলায় ট্রাফিক সচেতনতামূলক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত
Next articleকালিহাতীতে ট্রেনের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।