স্বপন কুমার কুন্ডু: জনভোগান্তির চরম দৃষ্টান্ত ঈশ্বরদী রেলগেট। যুগ যুগ ধরে ঈশ্বরদীবাসী যানজটের ভোগান্তি পোহালেও সমস্যার নিরসন হচ্ছে না। প্রতিটি ট্রেন চলাচলের সময় ১০-২০ মিনিট হিসেবে যাত্রীবাহী ট্রেনের জন্য ২০ বার ছাড়াও মালবাহী ও তেলবাহী ট্রেন চলাচলে বন্ধ থাকে রেলগেট। এসময় উভয়পাড়ে সৃষ্টি হয় যানজট।

যানজটের কবলে পড়ে সময়ের সাথে সাথে অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে মানুষ। এখানে একটি ফ্লাইওভার নির্মাণের দাবী দীর্ঘদিনের। স্থানীয় জনগোষ্ঠির এই ভোগান্তি দূর করতে এলাকার প্রয়াত ভূমিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা শামসুর রহমান শরীফ রেলগেটে ফ্লাইওভার নির্মাণের স্বপ্ন দেখতেন। জাতীয় সংসদে তিনি কয়েকবার প্রস্তাবও উত্থাপন করেছেন। ফ্লাইওভার নির্মাণের স্বপ্ন পূরণের আগেই তিনি প্রয়াত হয়েছেন। বর্তমান সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা নূরুজ্জামান বিশ্বাস উপনির্বাচনের আগে রেলগেটে ফ্লাইওভার নির্মাণকে অগ্রাধিকারের প্রতিশ্রুতি দেন। জাতীয় সংসদে তিনি প্রস্তাব উপস্থাপনসহ বিভিন্ন দফতরে যোগাযোগ করেছেন।স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা ফ্লাইওভার নির্মাণে বারংবার প্রতিশ্রুতি দিলেও সমস্যার নিরসন হচ্ছে না।

ব্রিটিশ আমলে প্রতিষ্ঠিত পশ্চিমাঞ্চল রেলের বৃহত্তম ঈশ্বরদী জংশন ষ্টেশন পূর্বের নিয়মে পরিচালিত হচ্ছে। সময়ের সাথে সাথে এবং বর্তমান সরকারের রেলপথের উন্নয়নের কারণে ট্রেনের সংখ্যা এখন আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে। এদিকে রূপপুর প্রকল্পের জন্য পাশেই নির্মাণ হয়েছে নতুন রেললাইন । জংশন-সংলগ্ন ও জনবহুল এই রেলগেট অতিক্রম করে ট্রেন চলাচলের সময় প্রতিদিন অন্তত: ২০টি যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচলের সময় বন্ধ রাখতে হয় গেটটি। বৃহত্তম জংশনের রেলইয়ার্ডে সান্টিং কাজেও কোন কোন সময় রেলগেট বন্ধ রাখতে হয়। ঈশ্বরদী শহরের মাঝ দিয়ে রেলপথ ও ষ্টেশন নির্মাণ হওয়ায় শহর পূর্ব ও পশ্চিম প্রান্তে বিভক্ত। ট্রেন চলাচলের জন্য প্রতিবার সিগন্যালে ১০ থেকে ২০ মিনিট হিসেবে ২৪ ঘন্টায় ৫-৬ ঘন্টা রেলগেট বন্ধ থাকায় যানজটের কারণে হাজার হাজার মানুষের ভোগান্তির সাথে সময় নষ্ট হচ্ছে।

ব্রিটিশ আমলের লক সিস্টেমে পরিচালিত হচ্ছে ঈশ্বরদী শহরের রেলগেট। দেশের বহু রেলগেটে এরই মধ্যে ডিজিটাল পদ্ধতির লক সিস্টেম চালু হলেও ঈশ্বরদী রেলগেটে মান্ধান্তা আমলের লক সিস্টেমই রয়ে গেছে। যাত্রীবাহী, তেলবাহী কিংবা মালবাহী ট্রেন ঈশ্বরদীর আগে বা পরের স্টেশন হতে ছাড়ার সময় রেলগেটটি সুইস কেবিনের মাধ্যমে বন্ধ হয়। ট্রেন রেলগেট পার না হওয়া পর্যন্ত খোলা হয় না। শতাধিক বছর ধরে এই নিয়মেই পরিচালিত হচ্ছে ঈশ্বরদী রেলগেট।

রেলগেট বন্ধ থাকায় স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থী-পরীক্ষার্থী, রোগী বহনকারী অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযান, রূপপুর প্রকল্প ও ইপিজেডে কর্মরতদের যানবাহন, প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের চলাচলসহ জীবনযাত্রা থমকে পড়ে রেলগেটে। প্রতিদিনই এখানে ঘণ্টায় ঘণ্টায় দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। দায়িত্বরত ট্রাফিকদের হতে হয় নাকাল।

এবিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী এনামূল কবীর জানান, ফ্লাইওভার নির্মাণকল্পে এক বছরেরও বেশী সময় আগে ঢাকার টিম জরিপ করেছে। সকল বিষয়ে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য এখন প্রস্তাবিত ফ্লাইওভার পরিকল্পনা কমিশনে রয়েছে। করোনা পরিস্থিতি না হলে এতোদিন অনেক অগ্রগতি হতো বলে জানান তিনি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিএম ইমরুল কায়েস বলেন, ঈশ্বরদীর প্রধান সমস্যা হিসেবে ‘রেলগেট’ চিহ্নিত। সমস্যা সমাধানে ফ্লাইওভার নির্মাণের জন্য জাতীয় সংসদে এমপি সাহেব প্রস্তাবসহ বিভিন্ন দপ্তরের যোগাযোগ করছেন বলে জানি। অনেক আগেই উপজেলার আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভার সিদ্ধান্তক্রমে প্রস্তাবও করা হয়েছে।

Previous articleমাকে মারধর করায় বড় ভাইকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে মাটিচাপা, অতঃপর
Next articleহাতীবান্ধায় জমি নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২, থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।