এস এম শফিকুল ইসলাম: জয়পুরহাটে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে একটি মিস আপিল মামলা চলমান রয়েছে। সেই মামলার আপিল শুনানীর দিন ধার্য্য থাকলেও নিষ্পত্তির পূর্বে রায় প্রদান করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে রায়ের আদেশ মামলার নথিতে না থাকলেও ওই আদালতের বিচারকের স্বাক্ষরিত রায়ের কপি মামলার বাদী ও বিবাদীর হাতে রয়েছে।

মামলার নথির ৪১ নং আদেশ ও কজলিস্ট (প্রতিদিনের কার্য তালিকা) অনুযায়ী রায় প্রকাশ হওয়া ওই মামলায় আপিল শুনানীর জন্য পরবর্তী দিন ধার্য্য করা হয়েছে চলতি বছরের ২৩ অক্টোবর। এরপরও মামলার বাদী আজাহার আলী ইনফরমেশন স্লিপে (সংবাদ জানার আবেদন) আবেদন করে আদালত থেকে জানতে পারেন তার মামলা চলমান রয়েছে। কোনো রায় প্রকাশ করা হয়নি। অথচ ওই আদালতের বিচারক অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ গোলাম সরোয়ারের স্বাক্ষরিত রায়ের কপি তার হাতে রয়েছে। এমন ঘটনায় মামলার বাদীসহ অবাক হন এলাকাবাসী। হৈচৈ পরে আদালত পাড়ায়।

মামলার বাদী আজাহার আলী জানান, ওই আদালতের কতিপয় কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সাথে মামলার বিবাদীগণ যোগসাজস করে মামলা নিষ্পত্তির আগেই ২৩ পাতার একটি রায় জালিয়াতির মাধ্যমে প্রস্তুত করে তাতে বিচারকের স্বাক্ষর নিয়েছেন। পরে সেই রায়ের জাবেদা কপি মামলার বিবাদীরা তাদের আইনজীবীর মাধ্যমে আদালত থেকে উত্তোলনের পর মামলার বাদীসহ বিভিন্ন দপ্তরে সরবরাহ করেছেন। এদিকে ইনফরমেশন স্লিপ (সংবাদ জানার আবেদন) অনুযায়ী মামলা চলমান থাকা অবস্থায় জালিয়াতি করে আদালতের বিচারকের স্বাক্ষরিত ২৩ পাতার ওই রায় তাকেসহ বিভিন্ন দপ্তরে সরবরাহ করায় মামলার বাদী আজাহার আলী গত ২৪ আগস্ট জেলা বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ২০/২০১৭ মিস আপিল মামলার বিবাদী ৪ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৪/৫ জনকে আসামী করে আরেকটি মামলা দায়ের করেছেন।

মামলা নং (৭১পি/২২)। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। এ বিষয় বাদীর আইনজীবী এ্যাড. উজ্জল হোসেন ও সংশ্লিষ্ট আদালত সুত্র নিশ্চিত করেছেন । মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলার কোড়লগাড়ী গ্রামে ফয়েজ উদ্দিনের ওয়াকফ এস্টেটে ১০০ বিঘা সম্পত্তি রয়েছে। ফয়েজ উদ্দিনের ছেলে আব্দুল মজিদ ওর্য়াকফ এস্টেটের মোতাওয়াল্লী ছিলেন। তিনি মারা যাওয়ার পর মেহেদী মির্জা লুলুকে মোতাওয়াল্লী হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। তিনিও মারা যান। তার ছোট ভাই মাহবুবুর রহমানকে মোতাওয়াল্লী নিয়োগ দেওয়া হয়। মাহবুরর রহমানকে মোতাওয়াল্লী নিয়োগ দেওয়ার পর দ্বন্দ্ব শুরু হয়। মাহবুবুর রহমানের মোতওয়াল্লী নিয়োগের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে প্রতিপক্ষ আজাহার আলী হাইকোটে ৫০১৯/১৫ নং একটি রীট পিটিশন মামলা দায়ের করেন। সেই মামলা গত ২০১৬ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারী রায় হয়। এরপর মামলার বিবাদী মাহবুবুর রহমান মহামান্য সুপ্রিম কোটে আপিল করেন। মহামান্য সুপ্রিম কোট লিভ-টু-আপিল (১৪৬৫/১৬ নং) মামলা ২০১৭ সালের ২ নভেম্বর প্রত্যাখান করেন এবং রিট মামলার বাদী আজাহার আলীকে জয়পুরহাট জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মিস আপিল দায়ের করার পরামর্শ দেন। পরে মামলার বাদী জয়পুরহাট জেলা ও দায়রা জজ আদালতে ২০/২০১৭ নং মিস আপিল দায়ের করেন।

জেলা ও দায়রা জজ আদালত ওই মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-১ আদালতে প্রেরন করেন। গত ২০২১ সালের ১০ অক্টোবর জয়পুরহাট অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-১ আদালত ২০/২০১৭ নং মিস আপিলের নথি প্রাপ্ত হয়ে আজও ওই মামলা চলমান রয়েছে। সূত্রে আরও জানা যায়, বাদী ও বিবাদীর উপস্থিতিতে চলতি বছরের ২০ মার্চ আদালত ৪১ নং আদেশ মূলে ২৩ আগস্ট পরবর্তী শুনানীর দিন ধার্য্য করেন। ওইদিন বাদী আজাহার আলী আদালতে হাজির হয়ে আইনজীবীর মাধ্যমে সময়ের আবেদন করলে আদালত পরবর্তী শুনানীর জন্য আগামী ২৩ অক্টোবর দিন ধার্য্য করেন। অথচ ৪১ নং আদেশ মূলেই গত ১০ মার্চ ২৩ পাতার একটি রায়ে বিচারকের স্বাক্ষরসহ তার জাবেদা কপি সরবরাহ করা হয়েছে ওই আদালত থেকেই। রায়ের কপি বাদী হাতে পাওয়ার পর ওই ৪১ নং আদেশের জাবেদা নকল ও ইনফরমেশন স্লিপের মাধ্যমে জানতে পারেন, বিচারকের স্বাক্ষরে উক্ত মামলার যে ২৩ পাতার রায় দেওয়া হয়েছে তা জালিয়াতির মাধ্যমে করা হয়েছে। ওই মামলার নথিতে এ ধরনের রায় বা আদেশ নেই।

আদালতের মামলার রায়ের জাবেদা নকল সরবরাহ রেজিষ্টারে দেখা যায়, গত ১৬ মার্চ ওই মামলার বিবাদী মাহবুবুর রহমানের পক্ষে তার আইনজীবী এ্যাড. আবু তালেব রায়ের জাবেদা নকল উঠানোর জন্য আদালতে আবেদন করেন। একই দিন মামলার রেজিষ্টার বহির ৮৯১ সিরিয়ালে ২০/১৭ নং মিস আপিল মামলার রায়ের আদেশের জাবেদা নকল বিবাদীর আইনজীবী আবু তালেব গ্রহনও করেছেন। মামলার বিবাদী মাহবুবুর রহমান বলেন, গত ১০ মার্চ আদালত ২০/১৭ নং মিস আপিলের রায় প্রদান করেছেন। ওই মামলার রায় আমার পক্ষেই আসছে। পরে আমার আইনজীবী এ্যাড. আবু তালেবের মাধ্যমে ওই আদালত থেকে রায়ের জাবেদা নকল উঠাই।

রায়ের জাবেদা নকলের ফটোকপি মামলার বাদীসহ বিভিন্ন দপ্তরে আমি নিজেই পৌছে দিয়েছি। তিনি আরও বলেন, ওই রায় নাকি জালিয়াতি করে দেওয়া হয়েছে, তাই বাদী আমাদের চার জনের নামসহ অজ্ঞাত আরও ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে আরও একটি মামলা দায়ের করেছেন। বিবাদীর আইনজীবী এ্যাড. আবু তালেব বলছেন ভিন্ন কথা। তিনি বলেন, রায় প্রদানের পর তার জাবেদা নকল উঠানোর জন্য আদালতে যে আবেদন (পিটিশন) করা হয়েছে তা আমার জানা নেই। ওই আবেদনে আমার নামে যে স্বাক্ষর দেওয়া রয়েছে সেই স্বাক্ষর আমার না। আমার স্বাক্ষরের সাথে আবেদনের স্বাক্ষরের কোনো মিল নেই। মামলার বাদী আজাহার আলী বলেন, মামলা নিষ্পত্তির আগে রায়ের কপি হাতে পেয়ে আমি অবাক। মামলা চলমান রয়েছে এটাই জানি। শুনানীর দিনে হাজিরাও দিয়েছি। কিভাবে সম্ভব মামলা নিষ্পত্তির আগেই রায় প্রদান। তাই পরদিন আদালতে গিয়ে আমার আইনজীবীকে ওই রায়ের কপি দেই আর এমন জালিয়াতির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করি। পরে ৪ জনের নামসহ আরও অজ্ঞাত ৪/৫ জনকে আসামী করে আদালতে নতুন একটি মামলা দায়ের করেছি।

বাদীর আইনজীবী এ্যাড. উজ্জল হোসেন বলেন, যে রায় দেওয়া হয়েছে তা ২০/১৭ নং মিস আপিলের নথিতে পাওয়া যায়নি। আদালতে ওই রায় নিয়ে যা কিছু করা হয়েছে তা জালিয়াতির মাধ্যমেই করা হয়েছে। সে কারনে বাদী গত ২৪ আগস্ট জেলা বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ৪ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৪/৫ জনকে আসামী করে আরেকটি মামলা দায়ের করেছেন।

জয়পুরহাট আদালতের সরকারি কৌঁসলি এ্যাড. নৃপেন্দ্রনাথ মন্ডল বলেন, যারা এই জালিয়াতি কর্মকান্ডে সাথে জড়িত, তারা যেই হউক, পার পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। তাদের শাস্তির বিধান রয়েছে।

Previous articleমুন্সীগঞ্জে পদ্মার ভাঙনে বিলীন হচ্ছে ঘরবাড়ি
Next articleফুলবাড়ীতে আপত্তিকর অবস্থায় নারীসহ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।