বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মিয়ানমারের গুলির শব্দে ঘুম ভাঙে সীমান্ত এলাকার মানুষের। কয়েক দিন পর পর মিয়ানমারের অভ্যন্তরে ভারি অস্ত্রের গোলাগুলির শব্দ শুনে আতঙ্কিত থাকে জিরো পয়েন্টে থাকা রোহিঙ্গারা। পাশাপাশি সীমান্ত এলাকার স্থানীয়রাও চরম দুশ্চিন্তায় সময় পার করছেন।

বৃহস্পতিবার (০৮ সেপ্টেম্বর) মিয়ানমারের গোলাবর্ষণের শব্দ শোনা যাচ্ছে ঘুমধুমের তুমব্রু সীমান্তে। সকাল পৌনে ৯ টার দিকে গোলাগুলির শব্দ শুরু হয়। থেমে থেমে গুলি বর্ষণ অব্যাহত রয়েছে বলে দাবি ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জাহাঙ্গির আজিজের। তবে হেলিকপ্টার বাংলাদেশ সীমানার এপারে দেখা যায়নি।

চেয়ারম্যান জাহাঙ্গির আজিজ জানান, সকাল থেকে ভারী অস্ত্রের বিকট শব্দ ভেসে আসছে। সীমান্ত এলাকার মানুষ চরম আতঙ্কে রয়েছেন। তুমমব্রু এললাকার স্থানীয় নুরুল আবছার বলেন, প্রচন্ড গরমে রাতে ঘুম হয়নি। সকালে ঘুম ভাঙে মিয়ানমারের গুলির শব্দে। বৃহস্পতিবার সকাল ৮ টা ৫১ মিনিট থেকে সাড়ে ৯ টা পর্যন্ত ১১ টি ভারী গোলাবর্ষণের শব্দ শুনতে পেয়েছি। এখনো থেমে থেমে ফায়ারিং হচ্ছে। গত ১ মাস ধরে তুমব্রু সীমান্তের মিয়ানমার অংশে গোলাগুলি চলছে। ভারী অস্ত্রের বিকট শব্দে কেঁপে উঠে সীমান্ত এলাকা। গত ২৮ আগস্ট মিয়ানমারের ছোঁড়া দুটি মর্টারশেল এসে পড়ে বাংলাদেশ সীমান্তের তুমব্রু উত্তর পাড়ায়। এরপর ৩ সেপ্টেম্বর বাইশফাড়ি সীমান্তে আরও দুটি মর্টারশেল পড়ে। এরপর দুইদিন বন্ধ ছিল সীমান্ত উত্তেজনা। পরে ৪ সেপ্টেম্বর থেকে আবারো শুরু হয়েছে গোললাগুলি।

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম সীমান্তের ওপারে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে বেশ কয়েক দিন ধরে ব্যাপক গোলাগুলি হচ্ছে। গুলির বিকট শব্দে কাঁপছে এপারও। তাতে আতঙ্কে কোনারপাড়ার পাশের শূন্যরেখার (নো ম্যানস ল্যান্ড) আশ্রয়শিবিরে থাকা চার হাজারের বেশি রোহিঙ্গা এবং ঘুমধুম ইউনিয়নের কয়েক হাজার বাংলাদেশি। ওপারের গোলাগুলির ঘটনা নজরদারিতে রাখছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

স্থানীয় মোহাম্মদ ইসলাম বলেন, বৃহস্পতিবার (৮ সেপ্টেম্বর)সকাল আটটা থেকে বিকট শব্দে মর্টারশেল ও ভারী অস্ত্রের গুলির শব্দ এপারে শোনা যাচ্ছে। শূন্যরেখার দিকে কাউকে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। শূন্যরেখার আশ্রয়শিবিরে ৬২১টি পরিবারে ৪ হাজার ২০০ জন রোহিঙ্গা আছে। গোলাগুলির শব্দে তারা বেশ আতঙ্কে।

ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজ আরো বলেন, বিভিন্ন সূত্রে তিনি জানতে পেরেছেন, মিয়ানমার সীমান্তে (রাখাইন রাজ্যের তুমব্রু এলাকায়) সশস্ত্র বিদ্রোহী আরাকান আর্মির সাথে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সংঘর্ষ চলছে প্রায় এক মাস ধরে। সংঘর্ষে গুলির সাথে মর্টারশেলও ব্যবহার হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে শূন্যরেখার রোহিঙ্গাদের সেবা কার্যক্রম বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

ঘুমধুম পুলিশ তদন্ত ফাঁড়ির ইনচার্জ ও পুলিশ পরিদর্শক সোহাগ রানা বলেন, কয়েক দিন ধরে মিয়ানমার সীমান্তে গোলাগুলি হচ্ছে। মর্টার শেলসহ গুলির শব্দ কানে বাজলেও বাস্তবে সেখানে কী হচ্ছে, বলা মুশকিল।

এরই মধ্যে বাংলাদেশ সীমান্তে ওপারের গুলি ও মর্টারশেল এপারে এসে পড়েছে। শূন্যরেখায় আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের নজরদারিতে কাঁটাতারের বাইরে পাহাড়চূড়ায় মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) একাধিক চৌকি স্থাপন করেছে।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর রাখাইন রাজ্যে সে দেশের সেনাবাহিনীর নিপীড়নের মুখে বাংলাদেশে পালিয়ে আশ্রয় নেয় ৮ লাখ রোহিঙ্গা। এর আগে আসে আরো কয়েক লাখ। বর্তমানে উখিয়া ও টেকনাফের ৩৩টি আশ্রয়শিবিরে নিবন্ধিত রোহিঙ্গার সংখ্যা সাড়ে ১২ লাখ।

ওই সময় ছয় হাজারের বেশি রোহিঙ্গা নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ইউনিয়নের কোনারপাড়া খালের দক্ষিণে শূন্যরেখায় বসতি শুরু করে। ওই আশ্রয়শিবিরে কয়েক গজ দূরত্বে মিয়ানমার সীমান্ত কাঁটাতার দিয়ে ঘেরা। শূন্যরেখায় আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের নজরদারিতে কাঁটাতারের বাইরে পাহাড়চূড়ায় মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) একাধিক চৌকি স্থাপন করেছে।

এই সীমান্ত এলাকায় নজরদারি করে কক্সবাজার ৩৪ বিজিবি ব্যাটালিয়ন। মিয়ানমার সীমান্তে গোলাগুলির কারণ জানতে নানাভাবে চেষ্টা করেও ৩৪ বিজিবির বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোহাম্মদ সামছু-দ্দৌজা বলেন, শূন্যরেখার ওই আশ্রয়শিবির দেখাশোনা করে বিজিবি। সেখানকার চার হাজারের বেশি রোহিঙ্গাকে খাদ্যসহায়তা দিচ্ছে আন্তর্জাতিক রেডক্রস কমিটি (আইসিআরসি)। শূন্যরেখার আশ্রয়শিবিরে সরকারি-বেসরকারি সেবা কার্যক্রম পরিচালনা হয় না। গুলির শব্দে ঘুম হারাম শুরুতে শূন্যরেখার এই শিবিরে ছিল ১ হাজার ৩২১ পরিবারের ৬ হাজার ২২ জন রোহিঙ্গা। যাদের বাড়ি আশ্রয়শিবিরের পেছনে দেড় থেকে পাঁচ কিলোমিটার দূরের রাখাইন রাজ্যের ১২টি গ্রামে। বর্তমানে শিবিরে আছে ৬২১ পরিবারে ৪ হাজার ২০০ জন রোহিঙ্গা।

শূন্যরেখার কোনারপাড়া আশ্রয়শিবির ব্যবস্থাপনা কমিটির চেয়ারম্যান দিল মোহাম্মদ (৫৫) মুঠোফোনে বলেন, ‘গুলির শব্দে ঘুমাতে পারছি না। মনে হচ্ছে ক্যাম্পেই গুলি ছোড়া হচ্ছে।’

দিল মোহাম্মদ আরো বলেন, ‘শূন্যরেখা থেকে রোহিঙ্গাদের সরিয়ে দিতে ২০১৮ সালের ২ মার্চ তুমব্রু সীমান্তে সেনা সমাবেশ ঘটিয়েছিল মিয়ানমার। তখন প্রতিদিন গোলাগুলির শব্দ পাওয়া যেত। মাইকিং করে শূন্যরেখার রোহিঙ্গাদের দ্রুত স্থান ত্যাগ করতে বলা হতো। নইলে পরিস্থিতি ভয়াবহ হবে বলে হুমকি দিত। বিজিবির তৎপরতায় তখন সেনা সমাবেশ সরিয়ে নিলেও একাধিক চৌকি স্থাপন করে রোহিঙ্গাদের কঠোর নজরদারিতে রাখা হচ্ছে। দিল মোহাম্মদ বলেন, ‘দুই মাসের জন্য আমরা এই শূন্যরেখার আশ্রয়শিবিরে এসেছিলাম। এখন পাঁচ বছর কেটে গেল রাখাইনের জন্মভূমিতে ফিরে যাওয়ার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না।’

দিল মোহাম্মদের (৫০) বাড়ি রাখাইন রাজ্যের মেদি পাড়ায়। ১০ বছরের বেশি সময় তিনি বিজিপির সদস্য ছিলেন। বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে চলা পতাকা বৈঠকে তিনি দোভাষীর কাজ করতেন। অথচ ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের রোহিঙ্গা ঢলের সঙ্গে তাঁকেও জন্মভিটা ছেড়ে সপরিবার পালাতে হয়। সেই থেকে স্ত্রী-চার সন্তান নিয়ে তিনিও শূন্যরেখার বাসিন্দা। নেতৃত্ব দিচ্ছেন ৪ হাজার ২০০ জন রোহিঙ্গা।

ঘুমধুমের পাথরকাটা খালের ওপারে শূন্যরেখার আশ্রয়শিবির। এর পেছনে লাগোয়া মিয়ানমারের কাঁটাতারের বেড়া। বেড়ার পাশে মিয়ানমার সীমান্তের উঁচু–নিচু পাহাড়। পাহাড়ের রাস্তায় ভারী অস্ত্র হাতে জওয়ানদের টহলের দৃশ্য এপার থেকে দেখা যায়।

মিয়ানমারের সাথে বাংলাদেশের ঘুমধুম ইউনিয়নের সীমান্ত প্রায় ৬৫ কিলোমিটারের। ঘুমধুম ইউনিয়নের লোকসংখ্যা প্রায় ১৫ হাজার। শূন্যরেখার রোহিঙ্গাদের ত্রাণসহায়তা দিচ্ছে আইসিআরসি। ১৫ দিন অন্তর রোহিঙ্গাদের ত্রাণসহায়তা দেওয়া হয়। ক্যাম্প ব্যবস্থাপনা কমিটির সেক্রেটারি আরিফুর রহমান বলেন, ১৫ দিনের সহায়তা হিসেবে প্রতি পরিবার পাচ্ছে ২৫ কেজি চাল, ৩ লিটার তেল, ৩ কেজি ডাল, আধা কেজি লবণ, আড়াই কেজি ছোলা, ৩ কেজি চিনি ইত্যাদি। তবে সবজি-তরকারি, জ্বালানি (কাঠ, গ্যাস সিলিন্ডার) সরবরাহ করা হয় না। ঘুমধুম বাজার থেকে এসব সংগ্রহ করতে হয়।

রোহিঙ্গা শরণার্থী নুরুল আমিন ও দিল আরা বলেন, পাঁচ বছর আগের তৈরি ঝুপরি ঘরে অমানবিক জীবন কাটাতে হচ্ছে তাদের। আইসিআরসি দুটি ড্রামে পানি সরবরাহ করে। খাল পার হয়ে বাংলাদেশ সীমান্তে গিয়ে ড্রামের পানি আনতে হয়। অসুখ-বিসুখ হলে খালের ওপারে অস্থায়ী স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যেতে হয়। সেখানে সপ্তাহের পাঁচ দিন স্বাস্থ্যসেবা চলে। শূন্যরেখায় এই আশ্রয়শিবিরে এনজিও কিংবা ব্যক্তিবিশেষের সাহায্যও পাওয়া যায় না। উখিয়া-টেকনাফের রোহিঙ্গা শিশুরা পড়ালেখার সুযোগ পাচ্ছে, মেয়েরা পাচ্ছে নানা সুযোগ-সুবিধা। বিদ্যুৎ, স্বাস্থ্যসম্মত শৌচাগার টয়লেট ও গোসলের ব্যবস্থাসহ বিনোদনের কিছুই নেই এখানে। এ পর্যন্ত শূন্যরেখার কেউ করোনা টিকাও পায়নি।

Previous articleমিঁয়াদাদ থেকে নাসিম : ছক্কা হাঁকানো পাকিস্তানি ৫ নায়ক
Next articleমুন্সীগঞ্জে পদ্মার ভাঙনে বিলীন হচ্ছে ঘরবাড়ি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।