জয়নাল আবেদীন: রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলায় বিএনপির কর্মসূচিকে ঘিরে পুলিশ ও বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষে পুলিশসহ ৫০ জন আহত হয়েছে। আহতদের গঙ্গাচড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার সোনালী ব্যাংক মোড়ে এ ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে গঙ্গাচড়া বাজার এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এদিকে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলকে কেন্দ্র করে পুলিশ-বিএনপির মধ্যে সংঘর্ষে ওসিসহ ২০ জন পুলিশ সদস্য ও অর্ধ শতজন আহত হওয়ার ঘটনায় উপজেলা সদরে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

সংঘর্ষ বাধলে বিক্ষুব্ধ বিএনপি নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ প্রায় ৫০ রাউন্ড রাবার বুলেট, লাঠিচার্জ ও বেশকিছু টিয়ারশেল নিক্ষেপ করেছে। বিএনপি পুলিশ সংঘর্ষে পুলিশের এসআই সালাম সহ পাঁচ পুলিশ, চার সাংবাদিক এবং অর্ধশতাধিক বিএনপি নেতাকর্মী আহত হন।আহতদের মধ্যে উপজেলা বিএনপির সভাপতি ওয়াহিদুজ্জামান মাবু ও সাধারণ সম্পাদক আখিরুজ্জামান শিরন, রংপুর জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক শরীফ নেওয়াজ জোহা, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজিম উদ্দিন লিজু গুরুতর আহত হয়েছেন। তাদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।পুলিশ জানায়, নারায়ণগঞ্জে যুবদল নেতা শাওন হত্যাসহ দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার বিকেলে গঙ্গাচড়ায় বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশের ডাক দেয় স্থানীয় বিএনপি। বিকেল পাঁচটার দিকে বিএনপি নেতাকর্মীরা ব্যাংক মোড় থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি গঙ্গাচড়া বাজারের দিকে যেতে চাইলে পুলিশ বাধা দেয়। বাধা পেয়ে বিএনপি নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে তাদের লাঠিচার্জ করে।

এদিকে ইটপাটকেল নিক্ষেপে গঙ্গাচড়া মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল হোসেনসহ ২০ পুলিশ সদস্য ও সাংবাদিক এবং লাঠিচার্জে বিএনপি নেতাকর্মীসহ অন্তত অর্ধশত মানুষ আহত হন। পরিস্থিতি বেসামাল হলে টিয়ারশেল ছুড়ে বিএনপির বিক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয় পুলিশ ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল এদিকে রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলায় বিএনপির নেতা কর্মীরা পুলিশ ও আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীদের উপর হামলা এবং নৈরাজ্য সৃষ্টির প্রতিবাদে উপজেলা ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় উপজেলা বাজারে এ বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। পরে বিক্ষোভ মিছিল শেষে পথ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় গঙ্গাচড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক শাহ্ধসঢ়; জালাল এর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম সাব্বির আহমেদ, সাধারন সম্পাদক এ কে এম তানিম আহসান চপল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আজিজুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক বুলবুল আহমেদ, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কাওসার আহমেদ নয়ন সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, গত বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বিএনপি -জামাতের নেতাকর্মীরা গঙ্গাচড়া উপজেলায় নৈরাজ্য সৃষ্টি করে। পুলিশের ওসি সহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও সাধারন মানুষের উপর হামলা চালায়।পরে পুলিশ, বাজার ব্যবসায়ী ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা এক হয়ে তাদের প্রতিহত করে।আমরা তাদের জানান দিতে চাই পুনরায় যদি তারা এ সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করার চেষ্টা করে তবে কঠোর ভাবে তাদের প্রতিহত করবে ছাত্রলীগ।

Previous articleআপত্তিকর অবস্থায় আটক স্কুল শিক্ষক, ১৮ ঘন্টা পর পরিবারের কাছে হস্তান্তর
Next articleরাজশাহীতে মৌলভী বেশে প্রতারণা, কুষ্টিয়ার দুই প্রতারক গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।