বাংলাদেশ প্রতিবেদক: এলাচ চাষ করে সফলতা পেয়েছেন যশোর জেলার বেনাপোলের শাহাজান আলী। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানী করা যাবে বলে জানান তিনি। তিনি বেনাপোল ইউনিয়নের নারায়নপুর গ্রামের বাসিন্দা। মূলত শখের বসেই ব্যাবসার পাশাপাশি এলাচ চাষ করেন তিনি।

তিনি বলেন ২০০৬ সালে ৬টি এলাচের চারা সংগ্রহ করেন। পরে আরও কিছু চারা সংগ্রহ করে এলাচের চাষ শুরু করেন। কৃষি বিভাগ ও মসলা ইনস্টিটিউশনের কমকর্তারা বেশ কয়েকবার তার এলাচের বাগান পরিদর্শন করেন।

তিনি বলেন আমাদের দেশের মাটি এলাচ চাষের জন্য উপুযুক্ত। অন্য মসলার মতো আলাদা মাটির দরকার হয়না। দেশের বিভিন্ন এলাকার চাষিরা আমার কাছ থেকে চারা কিনে নিয়ে এলাচের চাষ করছে। এলাচ চাষে নিয়মিত শ্রমিকের প্রয়োজন হয় না। অন্য মসলা চাষের তুলনায় এলাচ চাষে খরচ একটু কম তাই অপেক্ষাকৃত লাভ বেশি। দেশে যদি এলাচের চাষ বাড়ে তাহলে দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানী করা যাবে। এতে করে বেকরত্ব দুর হবে ও কর্মসংস্তানের সুযোগ বাড়বে।

শাহাজান বলেন এক একর জমিতে এলাচ চাষ করতে খরচ হয় সাড়ে ৬ লক্ষ্য টাকা। পাঁচ বছর পর থেকে ১ একর জমির এলাচ গাছ বছরে প্রায় ১৫০০কেজি পর্যন্ত ফল পাওয়া যায়। যার বাজার মূল্য ২০ লক্ষ টাকার মতো, তাছাড়া একটি এলাচ গাছ থেকে ৩০ বছর পর্যন্ত ফল পাওয়া যায়।

আশা করছি এলাচ গাছে দ্রুত ফল ধরবে, ফল আসার আাগেই ৮ লক্ষ টাকার বেশি চারা বিক্রি করেছি। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা গৌতম কুমার বলেন আমি বেশ কয়েকবার তার এলাচের বাগান পরিদর্শন করতে করেছি। আমাদের পক্ষ থেকে তাকে সব ধরনের সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে, কৃষি বিভাগ সব সময় তার পাশে থাকবে। আশা করছি তিনি তার পরিশ্রমের সুফল পাবেন।

Previous articleনিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত: নোয়াখালীতে সড়ক অবরোধ-বিক্ষোভ
Next articleবাউবি প্রো-উপাচার্যের পরীক্ষা পরিদর্শন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।