রবিবার, জুন ২৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলাদার্জিলিং কমলা চাষে কপাল খুলেছে ফুলবাড়ীর চাষিদের

দার্জিলিং কমলা চাষে কপাল খুলেছে ফুলবাড়ীর চাষিদের

মোঃ পাভেল মিয়া: দেশের উত্তরের জেলা কুড়িগ্রামের ভারতীয় সীমান্ত ঘেঁষা উপজেলা ফুলবাড়ী। এ উপজেলার নেই কোনো শিল্প কলকারখানা। এ অঞ্চলের বেশিরভাগ মানুষের জীবন জীবিকা কৃষি নির্ভর। আর সমতল ভূমিতে বেশিরভাগ ক যক ধান চাষাবাদ করে তাদের জীবন জী টিকে থাকার লড়াই করেন।

উপজেলার বেশিরভাগ কৃষক যখন ধান চাষাবাদ করে লাভ লোকসানের হিসাব কষতে ব্যস্ত, ঠিক সেসময় উপজেলার ভাঙ্গামোড় ইউনিয়নের সুজানেরকুটি গ্রামের কৃষক সিদ্দিক দার্জিলিং এর সালকি জাতের কমলা চাষ করে সফল হয়েছেন। মাত্র ২০ শতাংশ জমিতে কমলা চাষে কপাল খুলেছে তাঁর। কমলা চাষে তার এমন সফলতায় এলাকাটিতে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে কমলা চাষ। তার দেখাদেখি প্রতিবেশীরাও কমলা চাষে আগ্রাহ দেখা যায় ।

এরই মধ্যে গ্রামটি নতুনভাবে পরিচিতি পেয়েছে কমলার গ্রাম নামে গ্রামটির অনেক পরিবারই কমলা বাগান ও গাছ লাগিয়ে ভাষা বদলের স্বপ্ন দেখছেন। আর কমলা চাষের মধ্যে দিয়ে উপজেলার কৃষিতে নতুন দিগন্তের সূচনা হয়েছে। এলাকাটিতে গিয়ে দেখা গেছে, বাগান ও বাড়ির অগিনায় থোকায় থোকায় ঝুলছে কাঁচা পাকা কমলা। বিভিন্ন আছে। আকারের রসালো কমলার ভারে নুয়ে পড়া ডালগুলো বাঁশের ‘ঠেকা” দিয়ে উঁচু করে রাখা হয়েছে। কমলা গাছের এমন দশা হাসি ফুটিয়েছে কমলা চাষিদের মুখে। কমলা বিক্রি করে অনেকেই পরিবারের সচ্ছলতা এনেছেন।

আবু বকর সিদ্দিক জানান, সুজানেরকুটি গ্রামের সমতল ভূমিতে ২০১৬ সালে প্রতিবেশী দেশ ভারতে দার্জিলিংয়ের সাদরি জাতের কমলা চাষের সূচনা করেন। প্রথমে তিনি ও তাঁর ছোট ভাই আবুল হোসেন বাজার থেকে চার টি কমলার চারা গাছ কিনে বাড়ির আঙিনায় রোপণ করেন। তিন বছর পর প্রতিটি গাছে ৭০ থেকে ১০টি কমলা ধরে। গাছের টসটাসে সুমধুর পাকা কমলা দেখে প্রতিবেশী আবাক। এরপর ২০১৯ সালে আবুবকর সিদ্দিক কমলার বাগান শুরু করেন। যশোর জেলার মহেশপুর গ্রামের জনৈক আশরাফুল ইসলামের থেকে দার্জিলিং এর সাদরি জাতের কমলা চারা সংগ্রহ করেন তিনি। বাড়ির পাশের ২৮ শতক জমিতে ১৩৫টি কমলার চারা ১০ ফুট দূরত্ব করে সামান্য রাসায়নিক সারের সাথে প্রচুর পরিমাণে জৈব সার প্রয়োগ করেন। ২৮ মাস পর ফুল আসা শুরু হয়। বর্তমানে গাছের ডালে দুলছে কমলা বিক্রির উপযোগী হলেও এখন পর্যন্ত বিক্রি করেননি। ভালোভাবে পাকিয়ে কমলার বীজ সংগ্রহ করে চারা উৎপাদন করবেন। স্থানীয় বাজারে প্রতিটি চারা ৫০ থেকে ১০০ টাকায় বিক্রি হয়। চারা বিক্রি করতে পারলে প্রচুর টাকা আয় হবে বলে জানান তিনি। তিনি আরও জানান, দেশে পাহাড়ি এলাকায় কমলা বাগান

এ ছাড়া বাজারে ভূটান ও ভারতের দার্জিলিং থেকে আমদানি করা। তবে তাঁর বাগানে উৎপাদিত কমলাও কোন দিক থেকে পিছিয়ে নেই। তার বাগানের কমলাও রঙ, রস, স্বাদ ও গন্ধে অতুলনীয়।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments