গিয়াস কামাল: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লক্সে গত তিন বছর আগে থেকে শুরু হয়েছে প্রসূতি মায়েদের সিজারিয়ান করা। প্রথম দিকে মাসে সপ্তাহে একটা দুইটা সিজার হলেও এবারই প্রথম একদিনে তিনজন প্রসূতি মায়ের সিজার করলেন হাসপাতালে দায়িত্বরত জুনিয়র কনসালটেন্ট (গাইনি এন্ড অবস) এবং জুনিয়র কনসালটেন্টরা (এনেস্থেসিয়া)। একদিনে সিজার করা তিনজন মা ও শিশু সবাই সুস্থ রয়েছেন বলে জানিয়েছেন কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ।

জানা গেছে, গত তিন বছর আগে আনুষ্ঠানিক ভাবে সিজার ও নরমাল মায়েদের সন্তান প্রসব শুরু করেন সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। সন্তান প্রসবের কাজ শুরুর দিকে হাসপাতাল তেমন কোন রোগী না পেলে দিনে দিনে বাড়তে থাকে প্রসূতি মায়েদের সংখ্যা। প্রথম দিকে মাসে ও সপ্তাহে এক দুইজন করে প্রসূতি মায়েরা যেতেন হাসপাতালে। যাদের মধ্যে গরীর প্রসূতি মায়ের সংখ্যাই ছিল বেশী। বিশেষ করে যারা বেসরকারী হাসপাতালে যাওয়ার মতো সামর্থ নেই সেই ধরনের প্রসূতিরা। কিন্তু দিনে দিনে সব ধরনের প্রসূতি মায়েদের আসা যাওয়া শুরু করেছেন হাসপাতালটিতে। এখন প্রতিদিনই ১/২টি করে সিজার ও নরমাল সন্তান প্রসব করে থাকেন প্রসূতি মায়েরা।

তারই ধারাবাহিকতায় সোনারগাঁও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জুনিয়র কনসালটেন্ট (গাইনি এন্ড অবস) ডা: মাশরুরা সিদ্দিকা এবং জুনিয়র কনসালটেন্ট (এনেস্থেসিয়া) ডা: জাকিয়া সুলতানার তত্ত্ববধানে প্রথমবারের মতো বুধবার সকালে একদিনে পরপর তিনটি সিজার করেন। বর্তমানে মা ও শিশু সবাই সুস্থ রয়েছে। আগামী দুদিন পর তাদেরকে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়া হবে। জুনিয়র কনসালটেন্ট (গাইনি এন্ড অবস) ডা: মাশরুরা সিদ্দিকা এবং জুনিয়র কনসালটেন্ট (এনেস্থেসিয়া) ডা: জাকিয়া সুলতানা জানান, হাসপাতালে আসা প্রসূতি মায়েদের প্রথমে নরমাল ডেরিভারী করানোর জন্য যতেষ্ট সময় নেয়া হয়। যেসব মায়েরা নরমালে সন্তান প্রসব করার মতো অবস্থা থাকে সেসব মায়েদের ক্ষেত্রে আমরা নরমাল ডেরিভারী করে থাকি। আর যেসব মায়েদের নরমাল ডেরিভারী করার ক্ষেত্রে টুকিটাকি সমস্যা দেখা দেয় সে ক্ষেত্রে আমরা পরিক্ষা রির্পোট দেখে সিজার বা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়ে থাকি।

সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডাক্তার সজিব রায়হান জানান, সোনারগাঁওবাসীর দোরগোয়াড় স্বাস্থ্যসেবা পৌচ্ছে দিতে সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অনেক যত্ন সহকারে অভিজ্ঞ কনসালটেন্ট (গাইনি এন্ড অবস) ও কনসালটেন্ট (এনেস্থেসিয়া) দ্বারা প্রসূতি মায়েদের সন্তান প্রসব করানো হয়। এছাড়া প্রসবের সময় প্রয়োজনীয় ঔষধপত্রও বিনামুল্যে প্রদান করা হয়। সন্তান প্রসবের পর তিন দিন হাসপাতালে রেখে গাইনী ও শিশু বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দ্বারা মা ও শিশুর পরিপূর্ণ যতœ নেয়া হয়। এরই তাদের ছাড়পত্র দেয়া হয়। তিনি আরো জানান, দিনে দিনে প্রসূতি মায়েদের স্বাস্থ্য সচেতনায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সব ধরনের আধুনিক ব্যবস্থা অব্যাহত থাকবে।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের বঙ্গবন্ধু প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা ও আনন্দ মিছিল অনুষ্ঠিত
Next articleভারতকে ১০ উইকেটে হারিয়ে টি২০ বিশ্বকাপের ফাইনালে ইংল্যান্ড
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।