রবিবার, জুন ২৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলাক্ষেতলালে ইটাখোলা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণ কাজ বন্ধ রেখেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান

ক্ষেতলালে ইটাখোলা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণ কাজ বন্ধ রেখেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: দুই বছর সময় চলে গেলেও জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল পৌর এলাকার ইটাখোলা উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন একাডেমিক ভবনের নির্মাণ কাজ বন্ধ রেখেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। ফলে ওই বিদ্যালয়ে শ্রেণী কক্ষ সংকটে পাঠদানে সমস্যাসহ নির্মাণ সামগ্রী মাঠে ফেলে রাখায় খেলাধুলা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে শিক্ষার্থীরা।

সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়, শ্রেণী কক্ষ সংকট দূরীকরণসহ অবকাঠামো উন্নয়নের লক্ষ্যে ‘রাজস্ব বাজেট-৭০১৬’ প্রকল্পের আওতায় ক্ষেতলাল পৌর এলাকার ইটাখোলা উচ্চ বিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন নির্মাণের জন্য ৮০ লাখ ৭৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। দরপত্র মোতাবেক নওগাঁ’র আকলিমা কনস্ট্রাকশন ওই বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণের কাজ পায়। সরকারি দরপত্র নির্দেশনায় গত ২০২০ সালের ২৫ জুন ওই বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণ কাজ শুরু করেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। সেই থেকে গেটবীম ও শুধু মাত্র পিলার নির্মাণ করার পর লিন্টন ঢালাই দেয়ার জন্য কাঠের সাটারিং বিছানো হয়, কিন্তু ঢালাই কাজ সম্পন্ন না করে ঠিকাদার তার নির্মাণ শ্রমিকদের নিয়ে চলে যায়। এতে কাঠের সাটারিং ঝুলন্ত অবস্থায় এবং নির্মাণ কাজে ব্যবহৃত উপকরণ ইট, খোয়াসহ বিভিন্ন সামগ্রী বিদ্যালয় খেলার মাঠে পরিত্যাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে।

দীর্ঘদিন ভবনের নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখায় রোদ, বৃষ্টিতে লোহা ও তারগুনায় মরিচা ধরে সাটারিংগুলো নষ্ট হয়ে পড়ছে। এ কারণে নিমার্নাধীণ ভবনের নিচে ও আশেপাশে খেলাধুলাসহ চলাফেরার সময় ওই সব সাটারিং এর কাঠ শিক্ষার্থীদের উপর ভেঙে পড়ে যে কোন সময় বড় দুঘটনা ঘটতে পারে এমন শঙ্কায় রয়েছে শিক্ষক ও অভিভাবকরা। অথচ ওই ভবন নির্মাণ কাজের মেয়াদ চলতি বছরের গত মে মাসে শেষ হয়েছে। ইটাখোলা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বি এ এম আসাদুর রব বলেন, বর্তমানে বিদ্যালয়ে ৩০০ জন শিক্ষার্থী রয়েছে।

দীর্ঘ সময়ে নির্মাণ কাজ বন্ধ থাকায় শ্রেণী কক্ষ সংকটে পাঠদান সমস্যা ও মাঠে নির্মাণ সামগ্রী পড়ে থাকায় শিক্ষার্থীরা খেলাধুলা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এ ছাড়া শিক্ষার্থীদের উপর সাটারিং ভেঙে পড়ে বড় দুঘটনা ঘটতে পারে এমন শঙ্কায় রয়েছি। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স আকলিমা কনস্ট্র্ধসঢ়;াকশন এর সত্ত্বাধিকারীর সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের জয়পুরহাট নির্বাহী প্রকৌশলী আবু সাঈদ বলেন, ইটাখোলা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করার জন্য ঠিকাদারকে একাধিকবার চিঠি দেওয়া হয়েছে। ফান্ড সমস্যা, নির্মাণ সামগ্রীর দাম বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন অজু হাত দেখিয়ে ঠিকাদার কাজ বন্ধ রেখেছেন। ইতিমধ্যে তিনি ২৫% কাজ করে বরাদ্দের ১৫% টাকা উত্তোলন করেন।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments