রবিবার, জুন ১৬, ২০২৪
Homeসারাবাংলাসিংগাইরে শারীরিক প্রতিবন্ধী রাসেলের ভাগ্যে জোটেনি ভাতা

সিংগাইরে শারীরিক প্রতিবন্ধী রাসেলের ভাগ্যে জোটেনি ভাতা

মিজানুর রহমান বাদল: শারীরিক প্রতিবন্ধী রাসেলের কপালে জোটেনি একটি প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড। আর চলাফেরার জন্য নাই কোন হুইল চেয়ার। এখন কাঠের লাঠিই তার একমাত্র ভরসা। অসহায় দরিদ্র বাবার ঘরে জন্ম নেয়া রাসেল। অভাব অনটনে পরিবারে জন্মে ছিল রাসেল। ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে বেড়ে উঠে কিন্ত সরকারি কোন সহয়তা পায়নি।

সরকার প্রতিবন্ধী,বিধবা ও বয়স্ক ভাতার প্রচলন করলেও দরিদ্র রাসেলের ভাগ্যে আজও জোটেনি ভাতার কার্ড। মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার জামশা ইউনিয়নের কালিগঙ্গা নদীর তীরবর্তী উত্তর জামশা গ্রামের দিনমজুর মো.ওমর আলীর ছেলে। জানাগেছে, দিনমজুর মো. ওমর আলীর ঘর আলো করে প্রায় ১২ বছর আগে ফুট ফুটে একটি পুত্র সন্তান জন্ম নেয়। জন্মের পর থেকেই রাসেলের দুটি পায়ে ভর করে চলতে পারেনা। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রাসেলের পরিবার বুঝতে পারেন যে ছেলের দুটি পা পঙ্গু হয়েছে। রাসেলকে সুস্থ করার জন্য শুরুতে ফকির দিয়ে বহু ঝাড়ফুক করেন। কিন্তু কোন কিছুতেই তাকে ভাল করা সম্ভব হয়নি।

স্থানীয় চিকিৎসকের মাধ্যমে কোন রকম চিকিৎসা নিলেও অর্থের অভাবে উন্নত চিকিৎসা করতে পারেনি রাসেলের পরিবার। বৃদ্ধা মা অসুস্থ ছেলে ও মেয়ে নিয়ে সংসার চালতে এমনিতেই হিমশিম খাচ্ছেন ওমর আলী। ওমর আলী ছেলে সন্তান নিয়ে যে ঘরে বসবাস করেন সেটিও পাট খড়ির বেড়ার ছাপড়া। সংসারে অভাব অনটন যেন তাদের নিত্য দিনের সঙ্গী। কোন রকম স্ত্রী সন্তান নিয়ে একবেলা খেয়ে আরেক বেলা না খেয়ে দিনাতিপাত করছে ওমর আলী। ধারদেনা করে চিকিৎসা করিয়ে তাকে ভাল করতে পারেন নাই। বর্তমানে ওমর আলী একটি ইট ভাটায় শ্রমিকের কাজ করেন। তিনি যে পারিশ্রমিক পান তা দিয়ে সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন। তা আবার ইটভাটা ছয় মাস কাজ থাকে আর ছয় মাস কাজ থাকেনা। তখন পরিবার ও স্ত্রী সন্তান নিয়ে চলাই কষ্ট, আবার ছেলে রাসেলও দু’চার টি স্বাভাবিক শিশুর মত নয়। তার দুটো পা চিকুন,পায়ে কোন বোধশক্তি নেই। কাঠের লাঠির উপর ভর করে চলাফেরা করতে হয়। রাসেলের লেখা পড়ার প্রবল ইচ্ছা শক্তি থাকার পরও তিনি পড়াশুনা করতে পারেন নাই। ওই গ্রামের তিন কিলোমিটারের মধ্যে কোন স্কুল না থাকায় তার স্কলে যাওয়া হয়নি। যে কারনে সে পড়াশুনা করতে পারিনি।

প্রতিবন্ধী রাসেলের মা নাসিমা আক্তার জানান, আমার ছেলে একজন প্রকৃত শারীরিক প্রতিবন্ধী হওয়া সত্বেও তার কপালে জোটেনি ভাতা কিংবা একটি হুইল চেয়ার। এ ব্যাপারে সিংগাইর উপজেলা নির্বাহী অফিসার দিপন দেবনাথ বলেন, শারীরিক প্রতিবন্ধী রাসেল যাতে ভাতা ও হুইল চেয়ার পান সে ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে ।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments