এস এম শফিকুল ইসলাম: জয়পুরহাটের পাঁচটি উপজেলার খাদ্যগুদামগুলোতে এবার চাল সংগ্রহের অভিযান লক্ষ্যমাত্রার কাছাকাছি গেলেও পারেননি ধান সংগ্রহ করতে। ফলে ভেস্তে গেছে ধান সংগ্রহ অভিযান। আমন মৌসুমে অভিযানের ৭৫ দিনে পুরো জেলায় ধান সংগ্রহ হয়েছে মাত্র এক মেট্রিক টন। যা এক শতাংশের নিচে। তবে এ পর্যন্ত চাল সংগ্রহ হয়েছে ৭৬ শতাংশ। যা লক্ষমাত্রার কাছাকাছি বলা যায়।

তবে ধান নিয়ে কৃষকদের অভিযোগ, গুদামে ধান দিতে গিয়ে অনেক ঝামেলা পোহাতে হয়। আবার অনেক সময় কৃষকদের ফিরে আসতে হয়। শুধু তাই নয়, গুদামে ধান বিক্রি করতে গেলে কর্মকর্তাদের টাকাও দিতে হয়। মুলত এসব কারনে কৃষকরা খাদ্যগুদামে ধান দিতে অনীহা প্রকাশ করেন। তবে গুদাম সংশ্লিষ্টরা বলছেন ভিন্ন কথা, সরকারের নিদ্ধারিত মূল্যের চেয়ে বাজারে দাম বেশি হওয়ায় কৃষকরা গুদামে ধান বিক্রি করছেন না। আবার এ জেলায় মোটা জাতের চেয়ে চিকন জাতের ধান চাষাবাদ বেশি হওয়ায় লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হচ্ছে না। ফলে ধান সংগ্রহ অভিযানের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

বুধবার পর্যন্ত ৭৫ দিনে জেলার ৭টি খাদ্যগুদামের মধ্যে সদর উপজেলা খাদ্যগুদামে এক মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ করা হয়েছে। এ সংগ্রহ অভিযান চলবে আগামী ২৮ ফেব্রæয়ারী পর্যন্ত। জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এবার জেলার ৭টি খাদ্যগুদামে ৪ হাজার ৩২৬ মেট্রিক টন ধান ও ৯ হাজার ৬০৫ মেট্রিক টন চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। প্রতিকেজি ধান ২৮ টাকা ও চাল ৪২ টাকা কেজি দরে কৃষকের কাজ থেকে কেনা হচ্ছে। অভিযান শুরু হয়েছে গত বছরের ১৭ নভেম্বর আর শেষ হবে আগামী ২৮ ফেব্রæয়ারী। ৭৫ দিনে মাত্র সংগ্রহ হয়ে মাত্র এক মেট্রিক টন ধান। তবে চাল সংগ্রহ ৫ হাজার ৯৮৬ মেট্রিক টন হয়েছে। যা সংগ্রহের ৭৬ শতাংশ। চুক্তি অনুযায়ী জেলার ১৬৪ চালকল মালিকরা চাল সরবরাহ করছেন।

কালাই উপজেলার পুনট পাঁচপাইকা গ্রামের কৃষক মিঠু ফকির বলেন, আদ্রতা অনুযায়ী লোকজন ধান নিতে চায় না গুদামে। আবার ফ্যান দিয়ে ধান পরিষ্কার করে নিয়ে যেতে হয়। অনেক ঝামেলা, একটু হেরফের হলেই ফেরত পাঠায় ধান। এতে আর্থিক লোকসান গুনার পাশাপাশি সময়ও অপচয় হয় কৃষকদের। তাই কৃষকরা ধান দিতে অনাগ্রহ প্রকাশ করেন।

ক্ষেতলাল উপজেলার মাহমুদপুর গ্রামের কৃষক আল ফারুক বলেন, আমরা কৃষক মানুষ। ফসল উৎপাদনের পর বাজারে নিয়ে নগদ টাকায় বিক্রি করি। অথচ খাদ্যগুদামে ধান দিতে গেলে লেবারের পাশাপাশি অফিসারকেও খুশি করতে হয়। আবার টাকা নিতে ব্যাংকে যেতে হয়। এত ঝামেলার চেয়ে বাজারই ভালো। ১০/২০ টাকা কম-বেশীতে ঝামেলা নেই। তাই লোকজন গুদামে ধান দিতে চায়না।

জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক সন্তোষ কান্তি চাকমা বলেন, এ জেলার কৃষকরা চিকন জাতের ধান চাষ করে বেশি। সরকারের নিদ্ধারিত মূল্যের চেয়ে বাজারে দাম বেশি হওয়ায় তারা গুদামে ধান দিতে চায় না। ফলে ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হচ্ছে না। তবে আশা করছি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এবার শতভাগ চাল সংগ্রহ হবে। আর ধান দিতে এসে কৃষকদের যে টাকা দিতে হয় এমন অভিযোগ মিথ্যা। টাকা নেওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

Previous articleরংপুরে পৃথক দুটি স্থানে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির সমাবেশ অনুষ্ঠিত
Next article‘তারুণদের ভাবনা গুলোকে কাজে লাগিয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে চায় বর্তমান সরকার’
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।