রবিবার, জুন ২৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলারংপুরে কৃষি প্রণোদনার সার ও বীজ আটক, থানায় মামলা

রংপুরে কৃষি প্রণোদনার সার ও বীজ আটক, থানায় মামলা

জয়নাল আবেদীন: রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজলো কৃষি অফিসের গুদাম থেকে বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে দুটি ভ্যানে করে ১২ বস্তা সার ও ১৪ বস্তা ধানবীজ উপজেলা পরিষদের সামনে দিয়ে বিক্রির উদ্দেশ্ নিয়ে যাওয়ার সময় বীজ ও সার বহনকারী ভ্যান দুটি উপজেলা চেয়ারম্যান রুহুল আমিনের নজরে পড়ে। বিষয়টি সন্দহে হলে তিনি ভ্যান দুটি আটক করেন এবং চালকদের জিজ্ঞাসাবাদ করনে। জিজ্ঞাসাবাদে ভ্যান চালকদের সদুত্তোর না পাওয়ায় তাদের ইউএনওর র্কাযালয়ে নিয়ে যান। ইউএনও র্কাযালয়ে ভ্যানচালক মিঠু মিয়া ও শরফিুল ইসলামকে জিজ্ঞসে করলে তারা জানায়, এই সার ও ধানবীজ কৃষি অফিস থেকে নেওয়ার জন্য ব্যবসায়ী আলমগীর পাঠিয়েছেন।

ভ্যানচালকদের কথা অনুযায়ী ইউএনও নাহিদ তামান্না বিষয়টি গঙ্গাচড়া থানা পুলিশকে জানান। পরে সন্ধ্যায় গঙ্গাচড়া থানা পুলিশের পরির্দশক (তদন্ত) মমতাজুল ইসলামের নেতৃত্বে গঙ্গাচড়া ইউনিয়নের মুন্সিপাড়ায় আলমগীরের বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ। এ সময় তার একটি ঘর থেকে খড় দিয়ে ঢেকে রাখা অবস্থায় আরও ১৫৩ বস্তা উফশী জাতের ধানবীজ ও এক বস্তা পাটবীজ উদ্ধার করেন। তবে অভিযানের খবরে আলমগীর মিয়াসহ বাড়ির লোকজন পালিয়ে যায়।বাড়ি ও ভ্যান থেকে ১০ কেজি করে মোট ১৬৭ বস্তা উফশী জাতরে ধান বীজ, প্যাকেটজাত করা এক বস্তা পাটবীজ ও ৫০ কেজি করে ১২ বস্তা টিএসপি ও এমওপি সার উদ্ধার করা হয়। ধান ও পাটবীজরে গায়ে লেখা ছিলো বিক্রয়ের জন্য নহে ।

এ ঘটনায় উপজেলা কৃষি অফিসের উপ-সহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ র্কমর্কতা হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে আলমগীর হোসনেসহ আরো ৩/৪ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মারুফা ইফতেখার সিদ্দিকা বলনে, তাঁদের এক কর্মী কৃষি গুদামরে দায়িত্ব পালন করনে। এ কর্মী কৃষকদের মধ্যে ওই প্রণোদনার সার ও বীজ বিতরণ করেছিলেন। পুরো বিষয়টি তদন্ত করার পর জানা যাবে। অভিযোগ প্রসঙ্গে হাবিবুর রহমান বলনে, ‘আমি স্লিপ নিয়ে গুদাম থেকে কৃষকদের সরকারি ধানবীজ ও সার দিয়েছি। এখন কৃষক বিক্রি করেছে কি না, সেটা জানি না। এখন আমার বিরুদ্ধে সার ও বীজ বিক্রির মিথ্যা গুজব ছড়নো হচ্ছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল ইসলাম ও উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মোত্তালিব মিঠু বলেন, কৃষি অফিসের যোগসাজস ছাড়া সরকারী বীজ ও সার পাচার হওয়া সম্ভব নয়। আমরা এর সুষ্ঠু তদন্ত দাবী করছি।

গঙ্গাচড়া মডেল থানার ওসি মমতাজুল হক বলেন, সরকারী প্রণোদনার বীজ ও সার উদ্ধারের ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। এর সাথে যেই জড়িত থাক তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।এ বিষয়ে উপজলো নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদ তামান্না বলনে, আগামী রোববার মিটিং ডাকা হয়েছে। ঘটনার বিষয়ে পরর্বতী পদক্ষেপ নিতে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments