বুধবার, এপ্রিল ২৪, ২০২৪
Homeসারাবাংলাঈশ্বরদীতে তীব্র তাপপ্রবাহের সাথে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে লোডশেডিং

ঈশ্বরদীতে তীব্র তাপপ্রবাহের সাথে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে লোডশেডিং

স্বপন কুমার কুন্ডু: চলমান অতি তীব্র তাপপ্রবাহের সাথে পাল্লা দিয়ে ঈশ্বরদীতে বেড়েছে লোডশেডিং। দিনে এবং রাতে সমান তালে লোডশেডিং বেড়ে যাচ্ছে। তীব্র গরমে বিদ্যুৎ না পেয়ে বিপর্যস্থ হয়ে পড়েছে স্থানীয় জনজীবন। এতে একদিকে ফসলের মাঠে সেচ সমস্যা অপরদিকে গরমের প্রভাবে ঈশ^রদী হাসপাতালে বাড়তে বেড়েছে শিশু ও ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা।

ঈশ্বরদী আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে, এক সপ্তাহ ধরে প্রতিদিন তাপমাত্রা বাড়ছে। গত শনিবার তাপমাত্রা ছিল ৪১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, রোববার ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সোমবার বিকেল তা বেড়ে ৪৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস হয়, যা ছিল দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। তবে মঙ্গলবার বিকেলে তাপমাত্রা কিছুটা কমে ৪০ দশমিক ২ ডিগ্রিতে নেমে আসলেও বুধবার পারদের কাঁটা ৪২.৮ ডিগ্রীতে ওঠে। বৃহস্পতিবার কিছুটা কমে ৪১.৫ ডিগ্রী সেলসিয়াসে নেমেছে।

গরমের তীব্রতার সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে লোডশেডিং। অনেক এলাকায় ৩০ মিনিট বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হলেও দেড় থেকে দুই ঘণ্টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ থাকছে না। এতে একদিকে যেমন বাড়িতে মানুষ গরমে পুড়ছে, অন্যদিকে বিদ্যুৎ না থাকায় ব্যাহত হচ্ছে জমিতে সেচকাজ। আবার ঈদ উপলে বাজারে দিনের বেলায় বেচাকেনায় চরম বিড়ম্বনা সৃষ্টি হচ্ছে।

বিদ্যুৎ সরবরাহ প্রতিষ্ঠান নর্দার্ন ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি (নেসকো) সূত্রে জানা গেছে, ঈশ্বরদীতে বিদ্যুতের চাহিদা ৩৭ মেগাওয়াট। এর বিপরীতে বিদ্যুতের সরবরাহ মিলেছে ৩০ মেগাওয়াট। এরমধ্যে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প এবং এর আবাসন গ্রীণসিটি ও ঈশ্বরদী ইপিজেডকে লোডসেডিং এর আওতার বাইরে রাখা হয়েছে। শহরের অধিক গুরুত্বপূর্ণ পাতিলাখালি সাব-ষ্টেশনে বিদ্যুতের চাহিদা ৮ মেগাওয়াট, স্কুলপাড়ায় ৬ মেগাওয়াট এবং জয়নগর সাব-ষ্টেশনের চাহিদা ১২-১৩ মেগাওয়াট। অধিক গুরুত্বপূর্ণ পাতিলাখালি সাব-ষ্টেশনকে স্ক্যাডা সিস্টেমের (supervisory control and data acquisition) আওতায় আনা হয়েছে। সিস্টেমটি জাতীয় পাওয়ার গ্রিডের সঙ্গে সংযুক্ত থাকায় অটোমেশন পদ্ধতিতে দিনে-রাতে দফায় দফায় বন্ধ হচ্ছে। পাশাপাশি স্থানীয়ভাবেও লোডসেডিং করা হচ্ছে। পাতিলাখালি সাব-ষ্টেশনের আওতাধীন এলাকায় ঈশ্বরদী বাজারসহ বিপুল সংখ্যক রাশিয়ান ভাড়া বাড়িতে বসবাস করে। নেসকো বলছে, চাহিদা অনুযায়ী ঈশ্বরদীর জন্য আরও ৫-৬ মেগাওয়াট লোড বৃদ্ধির সাথে সাথে পাতিলাখালি সাব-ষ্টেশনকে স্ক্যাডার আওতামুক্ত করা জরুরী।

কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, ফসলের মাঠ থেকে বাজার সব জায়গাতেই লোকসমাগম কম। প্রয়োজন ছাড়া যেন কেউ বাইরে বের হচ্ছেন না। ব্যবসায়ীরা জানান, গরমের সাথে অতিরিক্ত লোডশেডিং থাকায় মানুষ মার্কেটে কম আসছেন। যাঁরা আসছেন, তাঁরাও অতিষ্ঠ হয়ে যাচ্ছেন। বেচাবিক্রিও অনেক কমে গেছে।

ঈশ্বরদী শিল্প ও বণিক সমিতির সভাপতি শাফিকুল ইসলাম বাচ্চু বলেন, একে তো গরম, অন্যদিকে বিদ্যুৎ থাকছে না। পরিবেশের সঙ্গে মানুষেরও মাথা গরম হয়ে যাচ্ছে। কেউ কাউকে সহ্য করতে পারছেন না। এতে বেচাকেনায় বিরূপ প্রভাব পড়ছে। গুরুত্বপূর্ণ পাতিলাখালি সাব-ষ্টেশনকে স্ক্যাডার আওতামুক্ত করা প্রয়োজন।

ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম খান বলেন, জীবনে এমন লোডশেডিং দেখিনি। আধা ঘণ্টা বিদ্যুৎ পেলে দেড় থেকে দুই ঘণ্টা পাচ্ছি না।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments