সোমবার, এপ্রিল ২২, ২০২৪
Homeসারাবাংলাবসুর মায়ের মানবেতর জীবনযাপন! মাথা গুজার ছাপরা মিশে গেছে মাটিতে

বসুর মায়ের মানবেতর জীবনযাপন! মাথা গুজার ছাপরা মিশে গেছে মাটিতে

সোহেল রানা: বাবা-মা’র দেওয়া ডাক নামে তাকে না চিনলেও বসুর মা নামেই চিনে সবাই। মাথায় তার জঠা চুল গোসল হীন থাকেন বেশিরভাগ সময়। চুলায় জ্বলে না আগুন। অন্যর দেওয়া খাবার খেয়েই বেঁচে আছেন তিনি। রক্ত মাংসে গড়া মানুষ হয়েও ভালো বাসেননা মানুষকে। কাউকে দেখলে দূরে সরে যান, এমনকি কথা বলতে চায়না কারো সাথে। বসুর মায়ের নেই কোন সন্তান! স্বযত্নে একটি ছাগল ছানা লালন-পালন করতেন আর সেই ছাগলছানার নাম রেখেছিলেন বসু। সেই থেকেই বসুর মা হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠেছেন তিনি। স্বামীর মৃত্যুর পর বসুকে নিয়েই তার জীবন সংসার। কোন রকম খেয়ে না খেয়েই ছয়টি ছাগল নিয়েই স্বামীর রেখে যাওয়া শেষ ছাপরা টুকুর নিচে চলছিল তার মানবেতর জীবনযাপন। এমতাবস্থায় গ্রীষ্মের প্রচন্ড দাবদাহ। খড়তাপ নিয়ে সকালের সূর্য্য উঁকি দিচ্ছে। সারাদিন সূর্য্যরে তাপের দাপটে এতকুটুও হিমেল হাওয়া পাচ্ছে না ঘামে ক্লান্ত মানুষ। জনজীবনের স্বস্তির বাতাস না থাকলেও বসুর মায়ের মাথা গুজার শেষ ছাপরাটি মিশে গেছে মাটির সাথে। স্বামী-সন্তানহীন ‘বসুর মায়ের’ মাথাগুজার একমাত্র স্থান জরাজীর্ণ ঘরটি পড়ে যাওয়ায় এখন খোলা আকাশের নিজে বসবাস করছে পঁচাত্তর বয়সী ওই নারী। নিজের গর্ভে ধারণ করা কোন সন্তান না থাকলেও সন্তানের মতো লালন করা ৬টি ছাগল নিয়ে বসুর মায়ের বেঁচে থাকাই এখন কঠিন হয়ে পড়েছে। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, মঙ্গলবার (১৮ এপ্রিল) সন্ধ্যায় হঠাৎ মরমর শব্দে মাটিতে পরে ন্যুজ্বে পড়ে বসুর মা’র ঘরটি। তখনও ছাগল নিয়ে বাড়ি ফিরেনি বসুর মা। বাড়ি ফিরে ঘরের এ অবস্থা দেখে নিরবে চোখ বেয়ে পানি ঝড়ে তার। রাতে ধ্বসে পড়া ওই ছাপরার নিচেই ছাগলগুলো কোন রকমে রেখে রাত্রি যাপন করে বসুর মা। স্থানীয়রা বলেন, ‘বসুর মা’ কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের বাসিন্দা। নিজ গর্ভের কোন সন্তান না থাকলেও এলাকায় ‘বসুর মা’ হিসেবেই বেশ পরিচিত। প্রায় ৬০ বছর আগে চান্দিনা উপজেলার গল্লাই ইউনিয়নের কংগাই গ্রামের বাসিন্দা ক্ষিতিশ চন্দ্র দত্তের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন প্রকৃত নাম রেনু বালা দত্ত। দাম্পত্য জীবনে তাঁর কোন সন্তান না থাকায় ‘মা’ ডাক শোনার ভাগ্য জুটেনি তাঁর। স্বামী ক্ষিতিশ চন্দ্র দত্ত মারা গেছেন বহু আগে। অভাব অনটনে থাকা প্রকৃত নাম রেনু বালা দত্ত ২৫ বছর আগে একটি ছাগল কিনে সন্তানের মতো পালন করার পাশাপাশি তার নাম রাখেন ‘বসু’। তিনি যে প্লেটেই খাবার খান সেই প্লেটেই তার পালিত ছাগল গুলোর সংঙ্গে খাবার খান ও নিজের হাতে খাওয়ান। আর সেই থেকে এলাকাবাসী ‘বসুর মা’ নামে ডাকতে শুরু করায় এখন তাঁর ‘রেনু বালা’ নাম বাড়ির মানুষ ছাড়া আর কেউ জানেন না।

এদিকে, পরদিন বুধবার প্রতিবেশি লিপি দত্ত আসেন চান্দিনার সাংসদ অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্তের কাছে। একটি অনুষ্ঠানে এসে জানান বিস্তারিত। এসময় সংসদ বিস্তারিত জেনে এক লক্ষ টাকা ব্যয়ে দ্রুত রেনু বালার গৃহ নির্মাণের উদ্যোগ নিয়ে গল্লাই ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল করিম দর্জিকে নির্দেশ দেন।

প্রতিবেশি লিপি দত্ত জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ এই জড়াজীর্ণ ঘরে বসবাস করতেন তিনি। যে ঘরের ভিতরে অনেক ছোট-বড় গর্ত ছিল। আর ওই গর্তগুলোতেই তিনি ছাগলের সাথেই ঘুমাতেন। তিনি ছাগলগুলো ছাড়া অন্যের ঘরে থাকেন না। নিজের ভাঙ্গা ঘরেই ছাগলগুলোর সাথে ঘুমাতেন। বুধবার আমি এমপি স্যারের কাছে গিয়ে বিস্তারিত জানালে দ্রুত গৃহ নির্মাণের উদ্যোগ নেন তিনি।

প্রসঙ্গত, ‘ভাঙ্গা ঘরে ছাগলের সাথেই বসবাস বসুর মার’ এই শিরোনামে সম্প্রতি জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায় একাধিক সংবাদ প্রকাশ হয়।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments