সোমবার, জুলাই ১৫, ২০২৪
Homeসারাবাংলাঈশ্বরদীতে অবৈধভাবে চলছে অর্ধশতাধিক ইটভাটা, মানা হচ্ছে না আইন

ঈশ্বরদীতে অবৈধভাবে চলছে অর্ধশতাধিক ইটভাটা, মানা হচ্ছে না আইন

স্বপন কুমার কুন্ডু: পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই ঈশ্বরদীর এক ইউনিয়নে ৫২টি ইটভাটা। প্রায় বছর তিনেক আগে অভিযান চালিয়ে ৩ ভাটা ভেঙ্গে দেওয়া ছাড়াও ১০টি ভাটা এখন বন্ধের কারণে চালু রয়েছে ৩৯টি ভাটা। ভাটায় সরকারি নিয়ম উপেক্ষা করে কয়লার বদলে পোড়ানো হচ্ছে কাঠ। কৃষি জমি বিনষ্ট, ভাটায় কাঠ পোড়ানো, নিয়মনীতি লংঘন ও পরিবেশের ভারসাম্যহীনতার বিষয় বিবেচনা না করে চলতি মৌসুমে ইট পোড়ানো শুরু হয়েছে। পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র, ইট পোড়ানোর লাইসেন্স, ফায়ার সার্ভিসের সার্টিফিকেট এমন কি ভ্যাট-আয়কর প্রদানের কাগজপত্র ছাড়াই ভাটার মালিকরা মতার দাপট দেখিয়ে আর সকলকে ম্যানেজ করে ২৪ ঘণ্টা ইট পোড়ানোর কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

ঈশ্বরদী শহর হতে প্রায় ১২ কিলোমিটার দূরবর্তী প্রত্যন্ত পদ্মা নদী তীরবর্তী লক্ষীকুন্ডায় গড়ে উঠেছে এসব ইটভাটা। রবিবার লক্ষীকুন্ডার তিনটি গ্রাম কামালপুর, দাদাপুর ও বিলকেদার গ্রাম ঘুরে দেখা যায়, সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কৃষি জমির উপর এসব ইট ভাটায় কয়লার পরিবর্তে কাঠ পোড়ানো হচ্ছে। ভাটা নির্মাণের জন্য চিমনীর উচ্চতা ও আনুসঙ্গিক যে নির্দেশনা রয়েছে তা অধিকাংশ ভাটা মালিকারা মানেননি। এখানে ৫০টি অটোফিস এবং ২টি জিকজ্যাক (হাওয়া) ভাটা রয়েছে। অটোফিস ভাটায় কাঠ দিয়ে ইট পোড়ানো হয়। ভাটার কালো ধোঁয়া নির্গত হয়ে এলাকার পরিবেশ সবসময় দুষণযুক্ত রাখে। অবাধে নিধন হচ্ছে গাছপালা। ভাটার মালিকরা অবৈধভবে পদ্মার চরের ফসলী জমির মাটি কেটে সংগ্রহ করে। ফ্রিতেই চলছে এসব ইটভাটা।

মাঝে মাঝে জরিমানার মধ্যেই প্রশাসনিক অভিযান সীমাবদ্ধ রয়েছে। অবৈধ ইটভাটা উচ্ছেদে প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে উচ্ছেদে কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। কৃষিজমি বিনষ্ট করে গড়ে ওঠা এসব অবৈধ ইটভাটা দীর্ঘদিন ধরে কিভাবে চালু রয়েছে, এবিষয়ে বিশিষ্ঠজনরা বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। ইটভাটার ইট পরিবহনের কারণে ওই ইউনিয়ন ও পার্শ্ববর্তী সাহাপুর ইউনিয়নের রাস্তাঘাটের বেহাল অবস্থা। চলাচলের রাস্তা ভেঙ্গে পড়ায় চরম ভেগান্তি পোহাতে হচ্ছে বলে এলাকাবাসীরা অভিযোগ করেছেন।

নামপ্রকাশ না করার শর্তে জনৈক জনপ্রতিনিধি বলেন, লিখে কি করবেন। সকলকে ম্যানেজ করেই বছরের পর বছর চলছে অবৈধ ইটভাটা। অভিযান চালিয়ে জরিমানা আদায়, আইওয়াশ ছাড়া আর কিছু নয়। অৈেধ ভাটা ভেঙ্গে গুড়িয়ে না দিলে বন্ধ হবে না।

জেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল লতিফ জানান, বিপুল সংখ্যক ইটভাটা গড়ে উঠায় লক্ষীকুন্ডায় কৃষি জমির পরিমাণ কমে গেছে। ইটভাটার নিঃসরিত কালো ধোঁয়ায় ও ছাইয়ে আম-লিচু-কাঁঠালের বাগান এবং ফসলী জমির উপর প্রভাব পড়ছে। পলিউশনের প্রভাবে স্বাভাবিক জনজীবন ক্রমশ: হুমকীর সম্মুখিন হবে।

উপজেলা প্রকৌশলী এনামুল কবীর বলেন, ভাটার ইট ও ড্রামট্রাকে মাটি পরিবহনের জন্য ওই এলাকার রাস্তাঘাটের অবস্থা শোচনীয়। নতুন করে রাস্তা নির্মাণ ছাড়া কোন উপায় নেই। ভারী পরিবহন চলাচল বন্ধ না হলে নতুন রাস্তা নির্মাণ করেও কোন লাভ হবে না।

ভাটা মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জামালউদ্দিন জয় বলেন, এসব ভাটায় প্রায় দশ সহস্রাধিক দিনমজুর কর্মরত। ভাটায় এদের কর্মসংস্থাপন হওয়ায় এসব পরিবার খেয়েপড়ে বেঁচে আছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দায়িত্বরত সহকারি কমিশনার (ভুমি) টি.এম. রাহসিন জানান, আমি দায়িত্বপ্রাপ্ত। তবে এরআগে মাঝে মাঝে অভিযান চালিয়ে জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments