রবিবার, জুন ১৬, ২০২৪
Homeসারাবাংলারংপুরে ৪৫০ টাকা কেজি দরে কোরবানির গরু বিক্রি

রংপুরে ৪৫০ টাকা কেজি দরে কোরবানির গরু বিক্রি

জয়নাল আবেদীন: দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে ওজন মেপে কোরবানির পশুর বেচাকেনা। হাটের ঝক্কি- ঝামেলা এড়াতে এবং স্টেরয়েড মুক্ত পশু কিনতে ক্রেতারা ভিড় করছেন ওজনে বিক্রি হচ্ছে এমন গরুর ফার্মে। রংপুর মহানগরীর মাহিগঞ্জের দেওয়ানটুলি এলাকায় জমজম ক্যাটল ফার্ম নামে একটি গরুর খামারে ওজনে বেচাকেনা হচ্ছে কোরবানির পশু।

৪৫০ টাকা কেজি দরে খামারেই বিক্রি করা হচ্ছে গরু। গত দুই বছর ধরে এই পদ্ধতিতে গরু বিক্রি হচ্ছে এই খামারে।জানা যায়, প্রায়দিনই খামারে আগ্রহী ক্রেতারা আসছেন এবং গরু দেখছেন। পছন্দ হলে ওজন স্কেলে উঠিয়ে পরিমাণ দেখে খামারেই গরু রেখে যাচ্ছেন। ঈদুল আজহার এক দিন বা দুই দিন আগে গরু নিয়ে যাবেন। আসন্ন কোরবানির ঈদের জন্য ১২০টি গুরু প্রস্তুত করা হয়েছে এই খামারে। ওজনে গরু বেচাকেনায় ক্রেতাদের বেশ সাড়া পড়েছে।বর্তমানে ক্রেতারা ঝক্কি-ঝামেলা মুক্ত এবং ফ্রেশ গরু কিনতে ছুটছেন এমন খামারে। তবে এভাবে গরু বিক্রি করে ক্রেতা-বিক্রেতা লাভবান হলেও রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার।

ক্রেতারা বলছেন, ওজন স্কেলে গরু বেচাকেনায় সুবিধা অনেক। ওজন স্কেলে গরু মেপে বেচাকেনার কারণে ক্রেতা ও বিক্রেতার মধ্যে ঠকে যাওয়ার চিন্তা নেই। বাজেট অনুযায়ী সুস্থ-সবল পশু কিনতে পারছেন তারা।জমজম ক্যাটল ফার্মে গরু কিনতে আসা রাজু আহমেদ বলেন, বেশ কিছু হাটে ঘুরেছি। এখনও পছন্দসই গরু কিনতে পারিনি। এ কারণে খামারে এসেছি। ওজনে মেপে পছন্দমতো গরু কেনার পদ্ধতিটি আমার ভালো লেগেছে।তিনি আরও বলেন, আমার উদ্দেশ্য এবং নিয়ত সম্পর্কে আল্লাহ সবকিছুই জানেন। কোরবানির উদ্দেশ্য থেকে গরু কিনতে এসেছি। যদি পছন্দ হয় কিনব ইনশাআল্লাহ।কোরবানির গরু ওজন স্কেলে মেপে বেচাকেনা নিয়ে নানামত থাকলেও এমন পদ্ধতিতে কোরবানির গরুর কেনাবেচায় নানা প্রতারণাসহ ভোগান্তি লাঘব হয় বলে জানান সচেতনরা।সমাজকর্মী ও সংগঠক এস এম পিয়াল বলেন, কোরবানির পশু কেনার মধ্যে হারজিতের কোনো বিষয় নেই। কিন্তু মনের প্রশান্তি গুরুত্ব বহন করে। হাটে গিয়ে বিভিন্নভাবে প্রতারণা ও হয়রানির শিকার হতে হয়।

বিশেষ করে দালালের খপ্পরে পড়ার বিড়ম্বনা তো আছেই। সঙ্গে গরুর আনুমানিক ওজন নিয়ে বিক্রেতারা লুকোচুরি করে থাকেন। এতে কোরবানির পর প্রত্যাশানুযায়ী মাংস কম হলে অনেকেই কষ্ট পান। তিনি আরও বলেন, খামারে দেখেশুনে সঠিক প্রক্রিয়ায় গরু কিনতে পারায় প্রতারণা ও হয়রানির সুযোগ নেই। এখানে ওজনে যা হচ্ছে, সেই হিসাবে দাম পড়বে। গো-খাদ্য নিয়ে চিন্তা করতে হচ্ছে না। একইসঙ্গে পরিবহন জটিলতাও নেই। সবমিলিয়ে এটি একটি ভালো উদ্যোগ বলে মনে হচ্ছে।খামারিরা জানান, হাট থেকে গরু কিনতে গেলে ঝুঁকি থেকে যায়। কারণ, দূরদূরান্ত থেকে আসা গরুকে স্টেরয়েড বা মোটাতাজাকরণ ওষুধ খাওয়ানো হয়েছে কিনা এটা গরু দেখে বোঝার উপায় নেই। তাই ক্রেতারা দেখে-শুনে গরু নিতে আসছেন খামারে।এই পদ্ধতিতে গরু কিনে কোরবানি করা যাবে কিনা এ নিয়ে অনেকের মনে নানাবিধ প্রশ্ন রয়েছে। যদিও খামার মালিকের দাবি তারা ইসলামী শরিয়াহ অনুসরণ করে গরু বিক্রি করছেন।

জমজম ক্যাটল ফার্মের স্বত্বাধিকারী আব্দুল মতিন আজিজ বলেন, খামারে থাকা সব গরু শাহিওয়াল জাতের। এসবের জন্য ফিড ও নিয়মিত দেশি খাবারের পাশাপাশি পরিচর্যার কোনো কমতি নেই। একেকটার ওজন ও আকৃতি একেক রকম। এই গরুগুলো লালনপালন করে ঈদে বিক্রির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।তিনি আরও বলেন, বিভিন্ন এলাকা থেকে অনেক মানুষ আসছেন, গরু দেখে পছন্দ হলে তারপর কিনছেন। এসব গরু দেশি ও প্রকৃতি নির্ভর খাবার খেয়ে অভ্যস্ত। এ কারণে দেখতেও অনেক স্বাস্থ্যবান ও শক্তিশালী। প্রতিদিন কেউ না কেউ আসছেন।

আব্দুল মতিন আজিজ জানান, ইতোমধ্যে যেসব গরু বিক্রি হয়েছে, সেগুলো তার খামারেই রয়েছে। এসব গরুর খাওয়া, দেখাশোনা এবং ঈদের আগে ক্রেতাদের বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার সব খরচ খামার থেকে ব্যয় করা হবে। কোনো গরুকে ইনজেকশন দিয়ে মোটাতাজা করা হয়নি। যারা গরু কিনেছেন তাদের গরুর শরীরে একটি নম্বর লেখা রয়েছে, যাতে সহজেই চেনা যায়। ইসলামী শরিয়ত সম্মত বিধি মেনে ওজনে মেপে গরু বিক্রি করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments