বৃহস্পতিবার, জুন ১৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলাসিরাজদিখানে আরব আলী হত্যা নিয়ে দুই পরিবারের আলাদা ভাষ্য

সিরাজদিখানে আরব আলী হত্যা নিয়ে দুই পরিবারের আলাদা ভাষ্য

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: আরব আলী হত্যা নিয়ে দুই পরিবারের আলাদা ভাষ্যে সৃষ্টি হয়েছে ভিন্নমতের। এদিকে আরব আলীর মেয়ে সেতারা বেগম বলছে কাদির আলী ও আব্দুল হক মিয়া দুই ভাইয়ের ঝগড়া বাধলে আব্দুল হক মিয়া এসে তার বাবাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে ঝগড়া থামতে গিয়ে লাঠির আঘাতে আরব আলীর মৃত্যু হয়। অন্যদিকে আব্দুল হক বলছেন তাদের দুই ভাইয়ের ঝগড়া বাঁধলে সে স্থানীয় নাসির নামের এক ব্যক্তিকে ডেকে নিয়ে আসে। নাসির সেখানে এসে তার ভাই কাদিরের ছেলেকে থাপ্পর দিলে কাদেরের ছেলে ও নাসিরকে মাটিতে ফেলে দেয়। সে সময় জমিতে কাজ করতে থাকা আরব আলী ও তার ভাই লিয়াকত ঘটনা স্থলে আসলে কাদেরের ছেলেরা তাকে লাঠি দিয়ে আঘাত করলে আরব আলীর মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে জানতে নাসিরের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

নাম ও পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক স্থানীয় ব্যক্তি জানায়, কাদের ও হক দুই ভাইয়ের মধ্যে জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। সম্প্রতি তাদের জমি নিয়ে বিরোধ হলে স্থানীয়ভাবে গণ্যমান্য ব্যক্তিরা এসে তা সমাধান করে দিয়ে যায়। সেই সমাধানের শালিসি হিসেবে নাসির ও উপস্থিত ছিল। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২০ জন মঙ্গলবার দুই ভাইয়ের মাঝে ঝগড়া লাগলে সেখানে নাসির এসে হক মিয়ার পক্ষ নিয়ে কাদেরের ছেলেদের গায়ে হাত তোলে। কাদেরের ছেলেরা ক্ষিপ্ত হলে নাসির তাদের মারাধর করার জন্য তার লোকজনকে ডাকে। এই ভয়ে কাদির ও কাদেরের ছেলেরা সেখান থেকে পালিয়ে যেতে নিলে। নাসির ও তাদের মধ্যে ধস্তাধস্তি ও হাতাহাতি হয়। এ সময় কারো লাঠির আঘাত বা ধাক্কা খেয়ে মাটিতে পড়ে আরব আলীর মৃত্যু হয়েছে। আমরা চাই সুষ্ঠু তদন্ত করে প্রকৃত দোষীদের আইনের আওতায় আনা হোক।

এ বিষয়ে মামলার বাদি সেতারা বেগম বলেন, তাদের দুই ভাইয়ের ঝগড়া লাগলে হক মিয়া আমার বাবাকে ঝগড়া থামাতে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে কাদিরের ছেলেদের লাঠির আঘাতে আমার বাবার মৃত্যু হয়েছে বলে আমি শুনতে পেয়েছি। যারা আমার বাবাকে এই নির্মমভাবে হত্যা করেছে আমি তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

আব্দুল হক মিয়া বলেন, আমাদের দুই ভাইয়ের মধ্যে জমি নিয়ে ঝগড়া লাগলে আমি স্থানীয় নাসিরকে ডেকে আনি। তবে সেখানে নিজে থেকেই আরব আলী ও তার ভাই উপস্থিত হলে আমার ভাই কাদের আলী ছেলেরা আরব আলীকে লাঠি দিয়ে বাড়ি মারলে সে মাটিতে পড়ে গিয়ে মারা যায়। আমি তাদের এখানে ডেকে আনি নি।

বাড়িতে না থাকায় এ বিষয়ে অভিযুক্ত কাদের আলী ও তার ছেলেদের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

উল্লেখ্য, গত ২০ জুন মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮ টায় উপজেলার লতব্দী ইউনিয়েনর পুরান ভাষানচর এলাকায় কাদের আলী ও হক মিয়া মারামারি থামাতে গিয়ে লাঠির আঘাতে আরব আলী (৭০) মৃত্যু হয়। নিহত আরব আলী পুরান ভাষানচর এলাকার মৃত নওয়াব আলীর পুত্র। এ বিষয়ে নিহতের মেয়ে সেতারা বেগম সিরাজদিখান থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments