শনিবার, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২৪
Homeসারাবাংলাচাঁপাইনবাবগঞ্জে নিমগাছ থেকে বের হচ্ছে মিষ্টি রস, রোগবালাই থেকে মুক্তির আশায় সংগ্রহের...

চাঁপাইনবাবগঞ্জে নিমগাছ থেকে বের হচ্ছে মিষ্টি রস, রোগবালাই থেকে মুক্তির আশায় সংগ্রহের হিড়িক

ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: একটি নিমগাছকে ঘিরে আছে উৎসুক জনতা। পথচারী ও গ্রামবাসী অনেকেই ছুটে আসছেন নিমগাছের গা বেয়ে পড়তে থাকা রস খেতে। গ্রামের অনেকেই বিভিন্ন পাত্র গাছে ঝুলিয়েছেন রস সংগ্রহ করতে। ছোট ছেলেমেয়েরা হাতে নিয়েই চেটে চেটে খাচ্ছে নিমগাছ থেকে বের হওয়া মিষ্টি রস। নিমগাছ থেকে এমন মিষ্টি রস বের হচ্ছে চাঁপাইনবাবগঞ্জস সদর উপজেলার চরবাগডাঙ্গা ইউনিয়নের গড়াইপাড়া গ্রামের মৃত মো. কালুর ছেলে নাসির আলীর বাড়ির গলিতে থাকা নিমগাছ থেকে।

নিমগাছটি থেকে তিতা রসের পরিবর্তে বের হচ্ছে খেজুরের রসের মতো মিষ্টি রস। বিভিন্ন রোগবালাই থেকে মুক্তির আশায় এই গাছ থেকে রস সংগ্রহে হিড়িক পড়েছে গ্রামবাসীর। নিমগাছের মিষ্টি রস খেতে ভিড় করছেন বিভিন্ন বয়সী নারী-পুরুষ৷ রস নিতে অনেকেই গাছে ঝুলিয়েছেন বিভিন্ন পাত্র।

স্থানীয়রা জানায়, গত দুই সপ্তাহ ধরে গাছ থেকে অল্প অল্প রস বের হলেও তিন দিন আগে থেকে এর পরিমান বেড়েছে। গ্রামের এক ব্যক্তি মুখে নিয়ে নিমগাছের রসের মিষ্টতা দেখলে এ খবর ছড়িয়ে যায় পুরো গ্রামে। এরপর থেকেই গাছ দেখতে ছুটে আসছে উৎসুক জনতা। নিমগাছের পাতা, কাঁচা ফল, বীজ, কান্ড ও রস স্বাভাবিকভাবে তিতা হলেও এই গাছের রস মিষ্টি হওয়ায় অবাক গ্রামবাসী ও পথচারী।

চরবাগডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আশরাফুল ইসলাম বলেন, গত প্রায় দুই সপ্তাহ থেকেই হঠাৎ করেই গাছটি দিয়ে ফেনাযুক্ত রস বের হতে দেখা যায়। কিন্তু গত তিনদিন ধরে এর পরিমান বেড়েছে। কেউ একজন মুখে মিষ্টি বলার পর সবাই এসে মুখে নিয়ে বিশ্বাস করছে। কেউ কেউ আবার দূর দূরান্ত থেকে নিমগাছের এমন অদ্ভুত কার্যক্রম দেখতে সরেজমিনে আসছেন। কেউ কেউ এসে ছবিও তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করছে।

তিনি আরও বলেন, গ্রামের অনেক মানুষের মনেই বিশ্বাস রয়েছে, এটি মহান সৃষ্টিকর্তা প্রদত্ত অলৌকিক ক্ষমতা সম্পন্ন গাছ। তাই নিমগাছটির রস খেলে বিভিন্ন রোগবালাই থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে, এমন বিশ্বাস থেকে রস সংগ্রহ করে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে খাচ্ছেন। তবে গ্রামে এখন পর্যন্ত এই রস খেয়ে কেউ সুস্থ হয়েছে বলে জানা যায়নি।
ষাটোর্ধ মোসারফ আলী জানান, আমার ৬৫ বছরের জীবনে কখনো এমন অদ্ভুত ব্যাপার দেখিনি। আমরা জানি, নিমগাছের পাঁকা ফল ছাড়া বাকি সবকিছুই তিতা। কিন্তু কাকতালীয়ভাবে গত কয়েকদিন থেকে আমাদের গ্রামের একটি নিমগাছ থেকে অতিরিক্ত পরিমানে রস বের হচ্ছে এমন এর স্বাদ মিষ্টি। আমি নিজেও খেয়ে দেখেছি। খেতে হুবহু খেজুরের রসের মতো লাগলো।

কলেজছাত্র ওসিম বলেন, শুধু স্বাদই নয়, নিমগাছটি থেকে বের হওয়া রসের গন্ধও খেজুরের রসের মতো। খেলে রোগবালাই ভালো হবে এই বিশ্বাস করে অনেকেই গাছের বিভিন্ন স্থানে বোতল লাগিয়ে রেখেছে রস সংগ্রহের জন্য। এমনকি রস বের হওয়ার ধরনটিও খেজুরের গাছের মতোই ফোঁটা ফোঁটা করে পড়ছে। তবে দিনের থেকে রাতে বেশি পরিমানে রস বের হচ্ছে। এছাড়াও এতো বেশি রস প্রবাহিত হচ্ছে যে গাছের গোড়া ভিজে থাকছে সবসময়ই।

আসমা বেগম (৫০) পাশের একটি গ্রাম থেকে বড়াইপাড়ার নিমগাছটিতে এসেছিলেন রস নিতে। স্থানীয় এক যুবককে বলে বোতলে করে রস নেন তিনি৷ এবিষয়ে তিনি জানান, আমার ডায়াবেটিসসহ দীর্ঘদিন ধরে মাজা ও পা ব্যথার সমস্যা আছে। আজকে শুনিছে এই গাছ দিয়ে নাকি মিষ্টি রস বের হচ্ছে এবং তা খেলে বিভিন্ন রোগবালাই ভালো হচ্ছে, তাই নিতে এসেছিলাম। আল্লাহর নাম নিয়ে ভালো নিয়তে রস খাব। আশা করি, সুস্থ হয়ে যাব, ইনশাআল্লাহ।

গত কয়েকদিন আগে মৃত বাবা-মায়ের আত্নার মাগফেরাত কামনা করে প্রায় ২৪ বছরের নিমগাছটি গড়াইপাড়া জামে মসজিদের নামে দান করেছেন গাছের মালিক নাসির আলী। মুঠোফোনে নাসির আলী বলেন, গাছটি দান করা হয়েছে। তবে এর আগে থেকেই রস বের হচ্ছে। এমনকি মসজিদ কমিটিও গাছটি বিক্রি করেছে। কখন কাটা হবে তা জানা নেই। এরমধ্যেই গাছ থেকে রস বের হওয়ার পরিমাণ বেড়েছে এবং তা সংগ্রহ করার হিড়িক পড়েছে।
বড়াইপাড়া জামে মসজিদের ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য মো. মহসীন আলী জানান, প্রায় গাছটি দান পাওয়ার পর মসজিদ কমিটি ৯ হাজার টাকায় বিক্রি করেছে। গাছ ক্রেতা ইতোমধ্যে ২ হাজার টাকা দিয়েছে। গাছ যেদিন কাটবে, সেদিন বাকি টাকাও পরিশোধ করার কথা রয়েছে। এরমধ্যেই গাছ নিয়ে হুলস্থুল কান্ড পড়ে গেছে। রস সংগ্রহ করতে গাছের যেকোন অংশে বোতল লাগাতে রীতিমতো প্রতিযোগিতা চলছে।

নিমগাছটির রসের স্বাদ খেজুরের রসের মতো হলেও এর আশেপাশে মেহগনি ছাড়া আর কোন গাছ নেই। গাছের নিচে থাকা মাটির গুণাগুণ ও আশেপাশের বিভিন্ন পরিবেশের কারনে নিমগাছের রসের স্বাদে পরিবর্তন আসতে পারে বলে মনে করেন উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের শিক্ষকরা।

এবিষয়ে বগুড়া সরকারি আজিজুল হক কলেজের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক একেএম শফিকুর রহমান বলেন, এমন ঘটনা খুব কম দেখা গেলেও একেবারেই অস্বাভাবিক নয়। মাটির নিচের গুণাগুণসহ বিভিন্ন পারিপার্শ্বিক কারনে এমনটি হতে পারে। তবে এটি হয়ত কয়েকদিনের মধ্যেই আবার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যাবে।
ফিজিও কেমিক্যাল কন্ডিশন এর কারন হতে পারে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, গাছের জড় মাটির নিচে যেখানে গেছে, হয়ত সেখানে এমন কোন পদার্থ রয়েছে যার সংস্পর্শে এসেও নিমগাছটিকে আঘাত করার পর বের হওয়া রসের স্বাদে মিষ্টতা আসতে পারে। বিষয়টি আহামরি তেমন কিছুই নয় বা এর কোন বিশেষ গুণ বা উপকারীতা নেই বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments