বাংলাদেশ প্রতিবেদক: দেশব্যাপী আলোচিত দুই হাজার কোটি টাকা পাচারের মামলায় গ্রেফতার খোন্দকার মোহতেশাম হোসেন বাবরের জামিন আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট।

মঙ্গলবার (১৪ জুন) হাইকোর্টের বিচারপতি মো: নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী মো: ইজারুল হক আকন্দের বেঞ্চে বাবরের জামিন আবেদন করলে শুনানি শেষে আবেদনটি উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করে দেন আদালত।

আসামি পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট মিজানুর রহমান। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে উপস্থিত ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিনউদ্দিন মানিক। তিনি বলেন, দুই হাজার কোটি টাকা পাচার মামলার মাস্টার মাইন্ড ছিলেন খন্দকার মোহতেশাম হোসেন বাবর। আদালত তার জামিন আবেদন শুনানিতে এমন মন্তব্য করে আবেদনটি খারিজ করে দেয়। এর আগে গত ২৪ মার্চ ঢাকার বিশেষ জজ আদালত ১০-এ খন্দকার মোহতেশাম হোসেন বাবরের জামিন আবেদন করা হলে বিচারক নজরুল ইসলামের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন। এরপর বাবর হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেন।

২০২০ সালের ২৬ জুন সিআইডির ইন্সপেক্টর এসএম মিরাজ আল মাহমুদ ঢাকার কাফরুল থানায় দুই হাজার কোটি টাকা পাচারের অভিযোগে মামলাটি দায়ের করেন। ২০২১ সালের ৩ মার্চ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির সহকারী পুলিশ কমিশনার (এএসপি) উত্তম কুমার সাহা সিএমএম আদালতে ১০ জনকে আসামি করে এ মামলার চার্জশিট দাখিল করেন। একই বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর ঢাকার সিনিয়র স্পেশাল জজ কেএম ইমরুল কায়েশ চার্জশিট গ্রহণ করেন।

এতে ২০১০ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত দশ বছরে ফরিদপুরে এলজিইডি, বিআরটিএ, সড়ক বিভাগসহ বিভিন্ন সরকারি দফতরের কাজের ঠিকাদারি নিয়ন্ত্রণ করে বিপুল অবৈধ সম্পদের মালিক বনে যাওয়ার অভিযোগ করা হয় আসামিদের বিরুদ্ধে।

মামলার আসামিরা হলেন ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের অব্যাহতিপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন বরকত ও তার ভাই ফরিদপুর ইমতিয়াজ হাসান রুবেল, সাবেক মন্ত্রী ও বর্তমান সদর আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেনের ভাই খোন্দকার মোহতেশাম হোসেন বাবর, এপিএস এএইচএম ফুয়াদ, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফাহাদ বিন ওয়াজেদ ওরফে ফাহিম, ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি নাজমুল ইসলাম খন্দকার লেভী, যুবলীগ নেতা মুহাম্মদ আলী মিনার, তারিকুল ইসলাম নাসিম, শহর যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসিবুর রহমান ফারহান, কামরুল হাসান ডেভিড।

মামলার এজাহারে নামোল্লেখ থাকলেও চার্জশিট থেকে অব্যাহতি পান ফরিদপুর জেলা শ্রমিকলীগের সাবেক অর্থ সম্পাদক বিল্লাল হোসেন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি নিশান মাহমুদ শামীম, মো: জাফর ইকবাল, কানাইপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফকির বেলায়েত হোসেন এবং গোপালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম মজনু।

এ মামলার আসামি মুহাম্মদ আলী মিনার ও তারিকুল ইসলাম নাসিম এখনো পলাতক রয়েছেন। আর নাজমুল ইসলাম খন্দকার লেভী ও আসিবুর রহমান ফারহান জামিনে আছেন।

Previous articleমালয়েশিয়ায় ৩ শতাধিক প্রবাসীর লাশ দাফন করে জহিরের অনন্য মানবতা
Next articleসোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হোমিওপ্যাথী চিকিৎসা চালু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।