বাংলাদেশ প্রতিবেদক: শহরের চাঁনমারি এলাকায় স্কুল থেকে বাসায় ফিরে ব্যাগ রেখে পাশের দোকানে চিপস কিনতে গিয়েছিল ৮ বছরের এক শিশু। এসময় দোকানে বসে থাকা বখাটে আমিরুল মৃধা (৩০) ফেরার পথে শিশুটিকে টাকা ও খাবারের লোভ দেখিয়ে পাশের জঙ্গলে নিয়ে ধর্ষণ করে।

পরে রক্তাক্ত অবস্থায় শিশুটি বাড়ি ফিরলে তাকে দ্রুত বিএসএমএমসি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। দু’বার অস্ত্রোপচার করে বাঁচিয়ে তোলা হয় শিশুটিকে। এ ঘটনায় জড়িত আসামি আমিরুলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এছাড়া গত ১০ জুলাই ঈদের দিনে তুছ ঘটনায় ছুরিকাহতে বৃদ্ধের মৃত্যুর মামলার আসামি তাসকিনকে (২০) গ্রেফতার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১২ জুলাই) দুপুরে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানানো হয়।

ফরিদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জামাল পাশা প্রেস ব্রিফিংয়ে জানান, গত ১৯ জুন লোভ দেখিয়ে ৮ বছরের শিশুটিকে শহরের চাঁনমারী পিয়ন কলোনি এলাকায় বঙ্গবন্ধু মহিলা হোস্টেলের পিছনে নির্জন জঙ্গলে নিয়ে ধর্ষণ করে আমিরুল মৃধা। শিশুটি স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির ছাত্রী। তার মা ওই এলাকার এক ছাত্রাবাসে রান্নার কাজ করে।

তিনি জানান, অসুস্থ অবস্থায় শিশুটিকে হাসপাতালে ভর্তির পর দু’বার অস্ত্রোপচার করতে হয়েছে। দ্রুততার সাথ হাসপাতালে না নেয়া হলে তার মত্যুও হতে পারতো।

গ্রেফতার আমীরুল বোয়ালমারী উপজেলার খরসুতি গ্রামের মৃত আনোয়ার মৃধার ছেলে। পেশায় রাজমিস্ত্রির সহকারী। সে রিকশাও চালাতো।

এছাড়া ঈদের দিনর শহরের খাবাসপুর মোড়ের পাশে হোটেলের সামনে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে বাদানুবাদের এক পর্যায়ে আইনুদ্দিন মোল্যা (৭৫) নামে এক বৃদ্ধ ছুরিকাঘাতে নিহত হয়েছেন। এ ঘটনার তাসকিন তালুকদার নামে এক আসামিকে সালথার গট্টি যাওয়ার পথে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সোমবার দুপুরে তাকে গ্রেফতার করার পর মঙ্গলবার আদালতে চালান করা হয়েছে।

গ্রেফতার তাসকিন নগরকান্দার রামকান্তপুর ইউনিয়নের মিন্টু তালুকদারের ছেলে। তার বিরুদ্ধে কোতয়ালী থানায় মাদক আইন এবং ডাকাতি চেষ্টার অভিযোগে একাধিক মামলা রয়েছে।

Previous articleঐতিহ্যবাহী দ্বীনি বিদ্যাপীঠ চরক্লার্ক দাখিল মাদ্রাসার ৪ শিক্ষকের বিদায় সংবর্ধনা
Next articleরাশিয়া-তুরস্ক-ইরান সম্মেলন: তেহরান যাচ্ছেন পুতিন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।