জি.এম.মিন্টু: দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বাজারে ইফা’র হালাল সনদের প্রয়োজনীয়তা দিন দিন বেড়ে চলেছে। ২০০৭ সাল থেকে যাচাই-বাছাই করে রপ্তানিকৃত পণ্যকে হালাল সার্টিফিকেট দিচ্ছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন।

এ থেকে সরকার প্রতিবছর রাজস্ব আয় করছে কোটি কোটি টাকা। আমেরিকা, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, ভারত, দুবাই, আফ্রিকা, সিঙ্গাপুর, তুরস্কসহ ৪৯টি দেশ বাংলাদেশ থেকে হালাল সার্টিফিকেট নিচ্ছেন। বাংলাদেশ বিশে^র দ্বিতীয় মুসলিম কান্ট্রি। শিল্পোকারখানার উৎপাদিত পণ্য অধিকাংশ সময়ে হালাল হারামের প্রশ্ন দেখা দেয়। বাংলাদেশে এর গুরুত্ব পূর্বে থেকে এখন অনেক বেশি। বর্হিবিশে^ ও হালাল পন্যর গুরুত্ব অনেক। দেশে ধর্মীয় এবং রাষ্ট্রিয়দৃষ্টিকোন থেকে এর গুরুত্বসহকারে দেখা হয়। বর্হিবিশের্^ অনেক দেশের মুসলিমরা হালাল হারাম বিষয়ে অনেক সচেতন। এমন কি পণ্য কেনার আগে তা হালাল কিনা যাচাই করে নেন তারা। সংশ্লিষ্ট্র সূত্রে জানাগেছে, বাংলাদেশসহ বর্হিবিশ^র ১৪ বছরে হালাল সার্টিফিকেট গ্রহণ করে ১৪০টি কোম্পানি। এদের মধ্যে বাইরের ৪৯টি। বাকিগুলা দেশীয় কোম্পানি। তাদের উৎপাদিত প্রায় ১ হাজার পণ্যের অনুকূলে হালাল সনদ গ্রহণ করেছেন। এর মধ্যে ৫০টি কোম্পানি প্রায় ৩৫০ পণ্য বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করছে। বহির্বিশ্বে বাংলাদেশে উৎপাদিত পণ্যের বিপুল চাহিদা থাকায় আন্তর্জাতিক বাজার দখলে থাকা কোম্পানিগুলো ইসলামিক ফাউন্ডেশনের হালাল লোগো ব্যবহার করছে। বর্তমানে বিশ্বজুড়ে হালাল সার্টিফিকেটের কদর দিন দিন বেড়েই চলেছে। আন্তর্জাতিক বাজারে হালাল লোগো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ । বাংলাদেশ অনেক নামি দামি কোম্পানি তাদের প্রস্তুুতকৃত পণ্য ইফার হালাল লোগো ব্যবহার করে বহির্বিশ্বে রপ্তানি করছে। এ বিষয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক ড. আবু সালেহ পাটোয়ারী সাংবাদিকদের বলেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন সুনামের সহিত দীর্ঘদিন ধরে হালাল সার্টিফিকেট নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। মুসলিম জনগোষ্ঠী পণ্যের গায়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের হালাল লোগো দেখে নিশ্চিন্তে ক্রয় করতে পারছেন। পাশাপাশি বহির্বিশ্বে প্রস্তুতকৃত পণ্য রপ্তানিতে যে বাধা ছিল, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের লোগো ব্যবহারের কারণে দীর্ঘদিন ধরে সেই বাধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে না রপ্তানিকারকদের। আমাদের লোগো বিশ্বজুড়ে গহণযোগ্য। তিনি আরো বলেন, ২০১১ সালে ২৫ ফেব্রুয়ারী মালেশিয়ার (ঔধশরস) নামের একটি সংগঠন ইসলামিক ফাউন্ডেশনকে রিকগনাইজড হালাল সার্টিফিকেশন বডি হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করেন। সেই সাথে হালাল সদন ও লোগো প্রদানের অনুমোদন দেন। এর পর থেকে বিশ^জুড়ে ইফার হালাল সনদ ব্যাপক ভাবে সাড়া পড়তে শুরু করে। একদিকে সরকার প্রতিবছর মোট অংকের রাজস্ব আয় করছে অন্যদিকে কোটি টাকার দেশি পণ্য রপ্তানি হচ্ছে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে। দেশের উৎপাদিত ওষুধ মধ্যপ্রাচ্য, দক্ষিণ এশিয়া, ইউরোপ ও আমেরিকায়ও রপ্তানি হচ্ছে। এর মধ্যে যুক্তরাজ্যসহ পৃথিবীর সাতটি দেশে স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজ তাদের উৎপাদিত

পণ্য রপ্তানি করছে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের হালাল লোগো ব্যবহার করে। প্রাণ, ইউনিভার্সাল ও বনফুল ইউরোপ আমেরিকা ও মধ্যপ্রাচ্যসহ অন্তত ৬টি দেশে তাদের পণ্য রপ্তানির সুযোগ পাচ্ছে হালাল সার্টিফিকেটের মাধ্যমে। প্রসিদ্ধ ওষুধ কোম্পানি ড্রাগ ইন্টারন্যাশনাল তাদের উৎপাদিত ওষুধ রপ্তানি করছে থাইল্যান্ড, আমেরিকা, জর্জিয়া এবং ইউক্রেনে। ড. আবু সালেহ পাটোয়ারী সাংবাদিকদের বলেন, কোন কোম্পানি তাদের উৎপাদিত পণ্য হালাল হিসাবে স্বীকৃতি নিতে চাইলে তাঁরা ইসলামিক ফাউন্ডেশন বরাবর আবেদন করার পর আমরা একটি এক্সপার্ট টিম নিয়ে সেই কোম্পানি ভিজিট করতে যাই। সেই টিমে হালাল-হারাম বিষয়ে এনালাইসিস করার জন্য ইসলামিক স্কলার, পণ্য সংশ্লিষ্ট অভিজ্ঞ ব্যক্তি যেমন, পণ্যটি যদি ওষুধ হয় তাহলে, আমাদের সঙ্গে একজন মেডিসিন বিশেষজ্ঞ থাকেন। এ মেডিসিনের যাবতীয় উপকরণ তিনি বিজ্ঞ আলেমদের সামনে উপস্থাপন করার পর তারা সিদ্ধান্তনেন-পণ্যটিকে হালাল হিসাবে স্বীকৃতি দেওয়ার। এভাবে সকল পণ্য আমরা সংশ্লিষ্ট অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের দ্বারা যাচাই করে হালাল হিসাবে স্বীকৃতি দেয়া হয়। এ ছাড়া খুব বেশি জটিল হলে আমরা সংশ্লিষ্ট বড় কোনো ল্যাবে পাঠিয়ে তারপর সিদ্ধান্ত জানাই। সে দিক থেকে আমি বলব ইসলামিক ফাউন্ডেশনের হালাল বিষয়ক সার্টিফিকেট অত্যন্ত নির্ভরযোগ্য এবং সারা বিশ্বে সমাদৃত একমাত্র একটি রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান।’ ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ইমাম মাওলানা ইউসুফ নূর সাংবাদিকদের বলেন, মুসলিমবিশ্ব, ইউরোপ-আমেরিকাসহ পৃথিবীর অধিকাংশ দেশেই হালাল পণ্যের ব্যাপক চাহিদা। বাংলাদেশে উৎপাদিত কিছু পণ্য এখন মধ্যপ্রাচ্যসহ অনেক দেশে পৌঁছিয়ে গেছে। তবে এর পরিমাণ খুবই সীমিত। প্রবাসীদের মাঝে বাংলাদেশি পণ্যের চাহিদা রয়েছে শুধু এ অংশটুকুও যদি দেশীয় পণ্যের মাধ্যমে পূরণ করা যেত, তাহলে আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশি পণ্য আরও বিস্তার লাভ করতো। এক্ষেত্রে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে হালাল সার্টিফিকেট প্রদান করা হলে অধিকতর গ্রহণযোগ্য হবে। ধর্মীয় বিষয়গুলো ধর্মীয় ব্যক্তিদের নেতৃত্বে হলে (হালাল সনদ)বির্তকের সৃষ্টি না হয়ে গ্রহণযোগ্যতা পায় বেশি।

Previous articleরায়পুরে আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস পালিত ও বিশেষ মোহড়া
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে র‌্যাবের অভিযানে ২৮ কেজি গাঁজাসহ আটক ৪
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।