বাংলাদেশ প্রতিবেদক: করোনার ধকল কাটতে না কাটতেই অস্বাভাবিক হারে আমদানি ব্যয় বাড়ছে। শুধু আগস্টেই প্রায় ৭৩ শতাংশ। অস্বাভাবিক এ ব্যয় বাড়ার পেছনে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, এলএনজিসহ আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে গেছে। বাড়ছে আমদানিনির্ভর ভোগ্যপণ্যের দাম। কিন্তু বিপরীতে রেমিট্যান্সপ্রবাহ কমে গেছে। যে হারে ব্যয় বাড়ছে ওই হারে বৈদেশিক মুদ্রার আন্তঃপ্রবাহ বাড়ছে না। এতে ডলারের বিপরীতে ক্রমান্বয়ে দুর্বল হয়ে পড়ছে টাকা। বৈদেশিক মুদ্রাবাজারের বিশৃঙ্খলা এড়াতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক রিজার্ভ থেকে বৈদেশিক মুদ্রা সরবরাহ করছে। গত আড়াই মাসে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে ব্যাংকগুলোর কাছে ১২৯ কোটি ৩০ লাখ ডলার বিক্রি করা হয়েছে, যা স্থানীয় মুদ্রায় ১১ হাজার ১২০ কোটি টাকা (প্রতি ডলার ৮৬ টাকা হিসাবে)। সংশ্লিষ্টরা আশঙ্কা করছেন, চলমান পরিস্থিতির উন্নতি না হলে বৈদেশিক মুদ্রা মজুদের ওপর চাপ বেড়ে যেতে পারে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সর্বশেষ পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, গত বছরের আগস্টে ৩৫২ কোটি ডলারের পণ্য আমদানি করা হয়, যা আগের বছরের চেয়ে প্রবৃদ্ধি ছিল ঋণাত্মক ৬ দশমিক ৬৫ শতাংশ। কিন্তু চলতি বছরের আগস্টে এ আমদানি ব্যয় হঠাৎ বেড়ে হয়েছে ৬৫৮ কোটি ৩০ লাখ ডলার, যার প্রবৃদ্ধি প্রায় ৭৩ শতাংশ। করোনার কারণে শিল্পের মূলধনী যন্ত্রাংশের আমদানি এখনো বাড়েনি। সেই সাথে শিল্পের কাঁচামাল আমদানিতে তেমন প্রভাব পড়েনি। কিন্তু এরপরেও হঠাৎ আমদানি ব্যয় বেড়ে যাওয়ার কারণ হিসেবে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, এলএনজিসহ জ্বালানি তেল এবং ভোগ্যপণ্যের দাম বেড়ে যাওয়াতে সামগ্রিক আমদানি ব্যয় বেড়ে গেছে। বিপরীতে চলতি অর্থবছরের শুরু থেকেই রেমিট্যান্স প্রবাহ কমে গেছে। জুলাই, আগস্টের মতো গত সেপ্টেম্বরেও রেমিট্যান্স প্রবাহ কমে গেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ পরিসংখ্যান মতে, গত বছরের সেপ্টেম্বরে রেমিট্যান্স প্রবাহের প্রবৃদ্ধি হয়েছিল যেখানে প্রায় ৪৬ শতাংশ, সেখানে চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ঋণাত্মক ২০ শতাংশ। জুলাই-আগস্টে পণ্য রফতানিও ঋণাত্মক প্রবৃদ্ধি হয়। এর ফলে বৈদেশিক মুদ্রার চাহিদা যে হারে বেড়েছে সরবরাহ সেই হারে বাড়েনি। এতে দীর্ঘ দিন পর বৈদেশিক মুদ্রাবাজারে ডলারের সঙ্কট দেখা দেয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বৈদেশিক মুদ্রাবাজারে অস্থিতিশীলতা কাটাতে বাংলাদেশ ব্যাংক দীর্ঘ দিন পর রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি শুরু করে। চাহিদা কমে যাওয়ায় গত অর্থবছর বাংলাদেশ ব্যাংক বাজার থেকে রেকর্ড পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা কিনে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পরিসংখ্যান মতে, গেল অর্থবছরে বাংলাদেশ ব্যাংক ব্যাংকগুলোর কাছ থেকে ডলার কিনেছিল প্রায় ৭৯৪ কোটি ডলার, যার বিপরীতে ব্যাংকগুলোর কাছে নগদ অর্থ সরবরাহ করেছিল প্রায় সাড়ে ৬৭ হাজার কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরের জুলাইয়ে ২০ কোটি ৫০ লাখ ডলার কেনে বাংলাদেশ ব্যাংক। কিন্তু আমদানি ব্যয় বেড়ে যাওয়া এবং রেমিট্যান্স প্রবাহ কমতে থাকায় আগস্ট থেকে কিছু কিছু ব্যাংকের আমদানি দায় পরিশোধে ডলার না থাকায় বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ডলার কিনতে থাকে। বৈদেশিক মুদ্রাবাজারে অস্থিতিশীলতা কাটাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে ব্যাংকগুলোর চাহিদা অনুযায়ী ডলার সরবরাহ করতে থাকে।

সর্বশেষ পরিসংখ্যান মতে, গত আগস্টে কেন্দ্রীয় ব্যাংক তার রিজার্ভ থেকে সঙ্কটে পড়া ব্যাংকগুলোর কাছে ডলার বিক্রি করে ৩০ কোটি ৫০ লাখ ডলার। সেপ্টেম্বরে ডলার বিক্রির হার দ্বিগুণেরও বেশি হয়ে ৬৪ কোটি ১০ লাখ ডলার হয়। চলতি মাসের গত ১৩ অক্টোবর পর্যন্ত ১৩ দিনে ডলার বিক্রি করা হয় ৩৪ কোটি ৭০ লাখ ডলার। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, ব্যাংকগুলো ডলার সঙ্কট মেটাতে যে হারে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে আসছে তাতে চলতি মাস শেষে তা ৭০ কোটি ডলারের ওপরে চলে যাবে। সব মিলে চলতি অর্থবছরের আগস্ট থেকে ১৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কেন্দ্রীয় ব্যাংক সঙ্কটে পড়া ব্যাংকগুলোর কাছে ডলার বিক্রি করেছে ১২৯ কোটি ৩০ লাখ ডলার।

এ দিকে ডলারের সরবরাহ কমে যাওয়ায় আন্তঃব্যাংক মুদ্রাবাজারে গত আড়াই মাসে প্রতি ডলারে এক টাকার ওপরে বেড়ে গেছে। গত ৩১ জুলাইয়ে প্রতি ডলার পেতে যেখানে ব্যয় করতে হতো ৮৪ টাকা ৮০ পয়সা, সেখানে গত ১৩ অক্টোবর এসে তা হয়েছে ৮৫ টাকা ৬৫ পয়সা। সামনে ডলারের দাম আরো বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। কারণ হিসেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, করোনার কারণে গত দুই বছরে যে হারে বিদেশ থেকে শ্রমিক ফিরে এসেছে, ওই হারে যায়নি। এতে ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স প্রবাহ গত বছরের মতো রেকর্ড ভেঙে রেকর্ড হবে না। দ্বিতীয়ত করোনা পরিস্থিতির কারণে আমদানি দায়সহ বেসরকারি পর্যায়ে বৈদেশিক ঋণের কিস্তি যথাযথভাবে পরিশোধ করা হয়নি। ব্যবসায়ীরা ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে বারবার সময় বাড়িয়ে নিয়েছেন। বৈদেশিক মুদ্রার বকেয়া কিস্তিগুলো চলতি বছরে পরিশোধের চাপ থাকবে। তৃতীয়ত যে হারে আমদানি ব্যয় বাড়ছে ওই হারে বৈদেশিক মুদ্রার আন্তঃপ্রবাহ হবে না। সঙ্কটে পড়া ব্যাংকগুলোর ডলার সরবরাহের ক্ষেত্রেও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একটি সীমা থাকতে পারে। সবমিলে বৈদেশিক মুদ্রাবাজারে একটি সঙ্কট ভাব থাকবেই। তবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক বৈদেশিক মুদ্রাবাজার স্থিতিশীল রাখতে যতক্ষণ ডলার সরবরাহ করবে ততক্ষণ বাজারে খুব বড় একটা প্রভাব পড়বে না, কিন্তু বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ একটি নির্ধারিত সীমার মধ্যে রাখতে গেলে তখন হয়তো কাক্সিক্ষত হারে ডলার সরবরাহ নাও করা হতে পারে। তখন ডলারের দাম আরো বেড়ে যেতে পারে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্টদের মতে, সামনে আমদানি চাপ আরো বাড়বে। এতে ডলারের মূল্যও বেড়ে যাবে। তবে ডলারের দাম বেড়ে যাওয়ার অর্থ হলো বকেয়া কিস্তির অর্থ পরিশোধে ব্যবসায়ীদের বেশি অর্থ ব্যয় করতে হবে। কারণ আগে যেখানে প্রতি ডলার কিনতে ৮৪ টাকা ব্যয় করতে হতো, সেখানে এক বছর পর ৮৭ টাকা হলে প্রতি ডলারে তিন টাকা বেড়ে যাবে। এভাবে ডলারের প্রকৃত মূল্য বেড়ে যাবে। সবমিলেই সামনে বৈদেশিক মুদ্রাবাজার চাপে থাকবে। তবে টাকার অবমূল্যায়ন বেশি হলে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়বে। কারণ তখন হুন্ডির পরিবর্তে ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়ে যাবে। এটাকে ইতিবাচক দিক বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

Previous articleটাঙ্গাইলে শ্বশুর বাড়িতে গিয়ে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে যুবকের আত্মহত্যা
Next articleস্ত্রীর দাবিতে ৫ দিন ধরে অনশনে কলেজছাত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।