অগ্নিনির্বাপণে সচেতনতার বিকল্প নেই

নাজমুল হক: অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা দিনদিন ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত ৫ বছরে ৯৬ হাজার অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ৪৭৯ জনের মৃত্যু হয়। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার বিশ্লেষণে দেখাযায় শর্টসার্কিটে ৩৭% , চুলার আগুন থেকে ১৮% , সিগারেট থেকে ১৫% অর্থাৎ ৭০% অগ্নিকাণ্ডের কারণ এই তিনটি। অগ্নিকান্ডে ২০১৭ সালে মৃত্যু হয় ৪৫ জনের , ২০১৮ তে মৃত্যু হয় ১৩০ জনের , ২০১৯ এ মৃত্যু হয় ১৮৪ জনের আর ২০২০ শুধু নারায়ণগঞ্জের ঘটনায় আজ পর্যন্ত মৃত্যু হয় ৩১ জনের। ফায়ার সার্ভিসের প্রতিবেদন থেকে তথ্যগুলো জানলাম। নারায়ণগঞ্জের গ্যাস লাইনের লিকেজ নিয়ে তৎপর হলে , এতো ভয়ঙ্কর ঘটনাটা কি হতো ? আমাদের দেশে অগ্নিকাণ্ডের প্রতিষেধক ( হাসপাতাল , ফায়ারসার্ভিস বা অন্যান্য ব্যাবস্থা) আছে কিন্তু প্রতিরোধক (সচেতনতা , প্রশিক্ষণ বা সরকারি পর্যবেক্ষণ) তেমন কার্যকরী নয়। অগ্নিকাণ্ড পরবর্তী প্রস্তুতি স্বরূপ বাংলাদেশে আছে বিশ্বের বৃহত্তম বার্ন হাসপাতাল “শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট’’ ৯১২ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রায় ২ একর জমিতে ১৮ তলা বিশিষ্ট এই বিশেষায়িত ইনস্টিটিউট গত বছর ২৪ অক্টোবর উদ্ভোধন করেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে চিকিৎসা সেবা কার্যক্রমের শুরুর মাধ্যমে ০৪/০৭/২০১৯ইং তারিখে এর যাত্রা শুরু হয় । এতে বার্ন ইউনিট , প্লাস্টিক সার্জারী ইউনিট এবং একাডেমিক উয়িং মিলে ৩ টি ব্লক আছে। ১৯৮৬ সালে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে একটি ওয়ার্ডে ৫ টি বেড নিয়ে বার্ন বিভাগ চালু করেন দেশের প্রথম প্লাস্টিক সার্জন অধ্যাপক ডা: মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ। পরবর্তীতে ডা: সামন্তলালের প্রচেষ্টায় ২০০৩ সালে সেইটি ৫০ বেডের পূর্ণাঙ্গ ইউনিট হিসেবে কাজ শুরু করে। সর্বশেষ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় এটি এখন ৫০০ শয্যার প্রতিষ্ঠান। মূলত ২০১০ সালের ৩ জুন পুরান ঢাকার নিমতলীতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ১২৭ জনের মৃত্যুর পর বার্ন ইউনিটের সক্ষমতা বাড়ানোর বিষয়টি গুরুত্ব পায়। তবে ২০১৫ সালের ৫ জানুয়ারী শুরু হওয়া রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতায় ৭২ জন অগ্নিদগ্ধ হয়ে মৃত্যু বরণ করায় এবং একই বছর ২৭ জানুয়ারী ঢাকায় প্লাস্টিক সার্জারি বিষয়ক এক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে আন্তর্জাতিক মানের একটি বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারী ইনস্টিটিউট স্থাপনের ঘোষনা দেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। ঐ বছরের নভেম্বরেই জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেকে) সভায় এই ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠার অনুমোদন দেওয়া হয় । যাই হউক তৎকালিন রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতায় প্রেক্ষিতে আমরা পেলাম বিশ্বের সবচেয়ে বড় বার্ন ইনস্টিটিউট যা আমাদের জন্য এক বিশাল অর্জন। তবে বারবার ভাবতে ছিলাম , উন্নত বিশ্বে কেন এর চেয়ে বড় বার্ন ইনস্টিটিউট নেই ? পরক্ষনেই চিন্তায় আসলো যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইউরোপ বা অষ্ট্রেলিয়ায় হয়তোবা আমাদের মত এত বড় বার্ন ইনস্টিটিউটের প্রয়োজন হয় না। কারণ তাদের অগ্নীনির্বাপক ব্যবস্থা যথেষ্ট উন্নত ও সচেতনতা অনেক বেশি এবং তাদের রাজনীতিতে আগুন সন্ত্রাস পুরোপুরি অনুপস্থিত , তাই এত বড় বার্ন হাসপাতাল তাদের প্রয়োজন নেই বলেই আমার ধারণা । আমার এক বন্ধু আমেরিকায় একটি কাপড়ের গুদামে (Warehouse) এর দায়িত্বে ছিল সে জানালো বিগত ২০ বছরে ঐ প্রদেশে তার গুদাম ছাড়াও অন্যান্য দাহ্য গুদামেও কখনও আগুন লাগার ঘটনা নেই। কারণ তারা এই ব্যাপারে প্রস্তুতির পাশাপাশি ব্যাপক সচেতনও বটে যেমন- ঐ গুদামগুলোর কোনটিতেই বিদ্যুৎ সংযোগ নেই (বিদ্যুৎ না থাকলে শর্টসার্কিটের সুযোগ নেই) ঐ গুদামগুলোতে রাতে চার্জলাইট নিয়ে তারা কার্যক্রম পরিচালনা করে। তাছাড়া আমাদের কেন্দ্রীয় কারাগারে অনেক কম্বল ব্যবহারের জেরে কয়েলের নিষিদ্ধকরণ থাকায় প্রায় ২০০ বছরের মধ্যে অগ্নিসংযোগের ঘটনা আছে কিনা আমার জানা নেই । সর্বোচ্চ সচেতনতার মাধ্যমে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা রোধ করা যায় তা এখন প্রমাণিত। প্রতিষেধকের চেয়ে প্রতিরোধই সর্বোত্তম অর্থাৎ সচেতনতা অগ্নিনিরোধের প্রথম পদক্ষেপ।

নাজমুল হক
প্রভাষক ও কলামিস্ট
বনানী বিদ্যানিকেতন কলেজ