এইচএসসি পরীক্ষা বাতিলের লাভ-ক্ষতি

নাজমুল হক: এইচএসসি পরীক্ষাতে জেএসসি বা এসএসসিতে ভালো ফলধারী ঝরে পড়ার রেকর্ড যেমন আছে আবার দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ানোর রেকর্ডও আছে। আমার কলেজের এক ছাত্রের এসএসসিতে জিপিএ ছিলো ৩.৫০ এইচএসসিতে এসে তার জিপিএ দাড়ায় ৫ (A+)। বর্তমানে সে খ্যাতনামা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র , কি দারুণ ঘুরে দাড়ানো। আবার তাদের ব্যাচেরই এক ছাত্র যে এসএসসিতে জিপিএ ৫ ছিলো কিন্তু এইচএসসির চূড়ান্ত নির্বাচনী পরীক্ষার বৈতরণী পার হতে পারেনি। তাই বলা যায় আমাদের জীবনে যতো পাবলিক পরীক্ষা আছে এইচএসসি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। দেশ-বিদেশের বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি বা ভবিষ্যত চাকরির বাজারেও এইচএসসির রেজাল্ট অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ। তবে অব্যশই তাদের জীবনের চেয়ে বেশি না। মনে রাখতে হবে সবার আগে জীবন , শিক্ষা না। তাছাড়া একটি মাত্র পরীক্ষা মানুষ মূল্যায়নের পরিমাপক নয়। পত্রিকা মারফত প্রায় ১৫ দিন আগেই জানতে পারি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তিগতভাবে শিক্ষার্থীদের জীবনঝুঁকিতে ফেলবেন না বলে জানিয়েছেন। আবার শিক্ষার্থীদের জীবন থেকে এক বছর নষ্ট হয়ে যাবে, সেটাও চান না। উভয় দিক আমলে নিয়ে বিকল্প কী করা যায় সেটি নিয়ে ভাবছিলেন প্রধানমন্ত্রী। সার্বিক পরিস্থিতি মূল্যায়ন করে পরীক্ষার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত জানাবেন তিনি। শিক্ষার্থীদের সামান্য পরিমাণ ঝুঁকি থাকলেও পরীক্ষা নেওয়ার পক্ষে নন সরকারপ্রধান। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী ও কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় যা বুঝেছি এ বছর পরীক্ষা হওয়ার সুযোগ অনেক কম , পূর্বানুমানই সত্যি হলো। শিক্ষামন্ত্রী ও গবেষকদলের এই সিদ্ধান্তের বাহিরে যাওয়ার উপায় ছিলো কি ?

দ্বিতীয় দফা করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব নিয়ে সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশও শঙ্কিত। শীতে করোনা পরিস্থিতি আবারও ভয়াবহ হওয়ার (দ্বিতীয় ঢেউ বা Second Wave) আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন শীতে ভয়াবহ রুপধারণ করতে পারে করোনা যা ইতোমধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ইঙ্গিত দিয়েছেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইতোমধ্যে জানিয়েছেন সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ (Second Wave) শুরু হয়ে গেছে। সংক্রমণের হার ৯% থেকে বেড়ে ১২% -১৫% উঠানামা করছে। এই পরিস্থিতিতে পরীক্ষা নেওয়া কতটা যৌক্তিক ? এইচএসসি একটি বড় পাবলিক পরীক্ষা। এইবার পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থী ১৪ লক্ষ তার সাথে শিক্ষক, পরীক্ষক, অভিভাবক, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী , পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং অন্যান্য স্টেকহোল্ডার মিলিয়ে প্রায় অর্ধকোটি মানুষ জড়িত। পরীক্ষা নেওয়ার জন্য যদি অর্ধকোটি বা ৫০ লক্ষ থেকে মাত্র ১% করোনায় সংক্রমিত হয় তাহলে সংখ্যাটি দাড়ায় ৫০,০০০। তাছাড়া একজন শিক্ষার্থী আক্রান্ত হওয়া মানে পুরো পরিবারটি সংক্রমণের ঝুঁকিতে পরা। এছাড়া অনেকে শিক্ষার্থী , শিক্ষক বা অভিভাবকের হাঁপানি, শ্বাসকষ্ট , ডায়াবেটিস বা উচ্চরক্তচাপ আছে যারা সংক্রমিত হলে মৃত্যুঝুঁকি সর্বাধিক। পরীক্ষার চেয়ে শিক্ষার্থীদের জীবনের নিরাপত্তা রাষ্ট্রের কাছে বেশি জরুরি। নোয়াখালীতে একজন নারীর সম্ভ্রমহানীর জন্যে পুরো দেশ উত্তাল , এটাই মানবিকতা। আনন্দোল করে সবাই বুঝাচ্ছে তারা ঐ নারীর পক্ষে। আমার প্রশ্ন এইচএসসি পরীক্ষা নিতে গিয়ে যদি ১ জন শিক্ষার্থীও করোনাভাইরাসে মারা যায় তবে এই দায় কি কেউ নিবে ?

তবে পরীক্ষা না হওয়ায় বিভিন্ন জটিলতা সামনে অপেক্ষায় আছে , যা সরকারকেই সমাধান করতে হবে।

১) আন্তর্জাতিক ভাবে বা বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ে এই বৎসরের শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন কেমন হবে ?
২) ইতিহাসে ১০০% পাশ এবং ১৪ লাখ শিক্ষার্থী এই প্রথম। তাই প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যাপক হারে ভর্তি বৃদ্ধি পাবে। সেক্ষেত্রে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের গুনগত মান সরকারকে রক্ষা করতে হবে। আমাদের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সিট আছে মাত্র ৬৪ হাজার।
৩) ১৪ লাখ শিক্ষার্থী এতদিন উদ্বিগ্ন থাকলেও গতকাল তা কেটে গেছে। তাই দীর্ঘদিন ঘরবন্ধী শিক্ষার্থীরা এইবার ছোটাছুটি করার চেষ্টা করবে। ১৪ লাখ শিক্ষার্থীর সাথে পরিবার অথবা বন্ধুবান্ধব থেকে নূন্যতম ২ জন করে ভ্রমন সঙ্গী ধরলে ৪২ লাখ লোক পর্যটনের জন্যে রেডি আছে। পর্যটনের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়তে পারে করোনা সংক্রমণ।
৪) ভবিষ্যত চাকরির বাজারে ২০২০ ব্যাচের কৃতকার্য শিক্ষার্থীদের সঠিক মূল্যায়ন কি হবে ? এই নিশ্চয়তা সরকারকেই করতে হবে।
৫) গতবার যারা ফেল করেছে তাদের মূল্যায়ন এবং অনেকে এসএসসিতে বিভাগ পরিবর্তন করেছে, তাদের মূল্যায়ন কিছুটা কঠিন হবে।
৬) শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে পরীক্ষা গ্রহনের রেজিস্ট্রেশন ফি বাবদ গ্রহন করা টাকা কিভাবে ফেরত পাবে ?
৭) যে শিক্ষার্থী জেএসসিতে জিপিএ ৩.৫ এসএসসিতে ৪.৪৬ এবং এইচএসসিতে জিপিএ ৫ এর প্রস্তুতি নিয়ে বসে আছে। অথচ তার গড় ফলাফল আসবে জিপিএ ৩.৯৮। রাইজিং / উঠতি / বৃদ্ধিপ্রাপ্ত / বিকশিত ছাত্রদের সঠিক মূল্যায়নটা কিভাবে করবে ?

এবারের এইচএসসি পরীক্ষা না হওয়ায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হলো রাইজিং শিক্ষার্থীরা। তাই তাদের ফলাফল কিছুটা ভিন্ন ধাচে মূল্যায়ন করা উচিত। যেমন যে শিক্ষার্থী জেএসসিতে ৩.৫ থেকে এসএসসিতে ৪.৪৬ পেয়েছে তার জিপিএ বৃদ্ধি পেয়েছে ০.৯৬ বা ২৫.৬% এই গ্রোথরেট হিসাব করলে গড়ের সাথে গ্রোথরেট গুণ করলে তার প্রত্যাশিত বা কাম্য রেজাল্ট পেয়ে যাবে। যেমন উপরের রেজাল্টের গড় ৩.৯৮ এর সাথে ২৫.৬% গুনকরলে জিপিএ ৫ হয় অর্থাৎ তার প্রত্যাশিত রেজাল্ট চলে আসে। এতে অনেকে বেশি লাভবান হবে। আইনে আছে , আইনের ফাঁকফোকর দিয়ে কোন দুষ্টু লোক বেরিয়ে যাক সমস্য নেই কিন্তু কোন নিরপরাধ লোক যাতে শাস্তি না পায়। তেমনি কিছু শিক্ষার্থী ফাওয়ের উপর রেজাল্ট পেলেও সমস্যা নেই কিন্তু যারা ভালো রেজাল্টের যোগ্য তারা প্রত্যাশিত ফলাফল অর্জন করুক এই কামনা। এবারের জন্যে অন্তত বিশ্ববিদ্যালয়গুলো এসএসসি ও এইচএসসির জিপিএ সমন্বয় নম্বর তোলে দেওয়া উচিত। যাতে রাইজিং শিক্ষার্থীরা নম্বরে পিছিয়ে না যায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষাগুলো যদি আন্তর্জাতিক মানের অবাধ, নিষ্কলঙ্ক ও বিশ্বাসযোগ্য করতে পারে তবে এইচএসসি পরীক্ষা না হওয়ার অপূরণীয় ক্ষতির অনেকটা পুষিয়ে যাবে।

নাজমুল হক
প্রভাষক ও কলামিস্ট
বনানী বিদ্যানিকেতন কলেজ