বাংলাদেশ থেকে ভিসা ‘পাচ্ছেন না’ ৩৫০ কাশ্মীরি শিক্ষার্থী

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বাংলাদেশে প্রবেশ করতে ভিসা পেতে ব্যর্থ হয়ে প্রায় এক মাস ধরে দিল্লি, কলকাতা, গুয়াহাটি ও আগরতলায় আটকা পড়ে আছে কয়েক শতাধিক কাশ্মীরি শিক্ষার্থী।

তবে ভারতের অন্যান্য রাজ্যের শিক্ষার্থীদের বাংলাদেশের ভিসা পেতে কোনো সমস্যা হচ্ছে না বলে জানা গেছে।

টেলিগ্রাফ ইন্ডিয়া, সাউথ এশিয়ান মনিটরসহ একাধিক সংবাদমাধ্যম এই খবর দিয়েছে।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে মেডিকেল ডিগ্রির জন্য ভারতসহ দক্ষিণ এশিয়ার শিক্ষার্থীদের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে বাংলাদেশে সরকারি-বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলো। বিপুলসংখ্যক কাশ্মীরি শিক্ষার্থীও এখানে পড়তে আসছেন।

কিন্তু এবার বাংলাদেশে প্রবেশের ভিসা পেতে ব্যর্থ হয়ে আটকে গেছেন অন্তত প্রায় ৩৫০ কাশ্মীরি মেডিকেল শিক্ষার্থী।

বাংলাদেশে শিক্ষার্থী পাঠানোর সঙ্গে জড়িত এজেন্সি প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, ভিসা পেতে দীর্ঘ বিলম্বের কারণে তারা সমস্যায় পড়েছেন। কারণ ওই কোর্সের জন্য অর্থ পরিশোধকারী অভিভাবকেরা এখন পরিশোধিত অর্থ ফেরত চাইছেন।

কাশ্মীরি তিন তরুণী জিনাত শাকিল, বিরজিস হাবিব, রুবিনা আসাদুল্লাহ গত ২০ ডিসেম্বর থেকে কলকাতার একটি হোটেল ছোট রুমে অবস্থান করছেন। তারা তিনজনই বাংলাদেশের সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ এবং হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। কিন্তু কলেজে যোগ দিতে এবং ক্লাস শুরু করতে ঢাকায় ঢুকতে ভিসা পাচ্ছেন না তারা।

জিনাত শাকিলের ভাষ্য, সারা জীবন ভারতে বৈষম্যের শিকার হয়েছেন, এখন বাংলাদেশও তাদের একই পরিস্থিতিতে ফেলেছে।

তারা জানান, অন্তত ৩৫০ জন কাশ্মীরি ছাত্র-ছাত্রী বাংলাদেশের একাধিক মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস প্রোগ্রামে ভর্তি হয়েছেন। প্রথম সেমিস্টারের জন্য তারা সবাই ইতিমধ্যে ২০ হাজার ডলার ফিও জমা দিয়ে দিয়েছেন।

বিরজিস হাবিব বলেন, ‘এখন তো পেছনে ফেরারও কোনো পরিস্থিতি নেই। স্বাভাবিকভাবেই কাশ্মীর পরিস্থিতির কারণে আমরা অন্য কোথাও পড়তে যেতে আগ্রহী। এখন তো নতুন অনিশ্চয়তায় পড়ে গেলাম আমরা।’

কাশ্মীরে চিকিৎসকের সংকট থেকে অল্প বয়স থেকেই মেডিকেলে পড়ার স্বপ্ন দেখে আসছেন এই তরুণী।

বিদেশে শিক্ষার্থী পাঠানোর একটি এডুকেশনাল কনসালটেনসি ম্যানেজার বলেন, ‘ছেলেমেয়েরা মধ্য ডিসেম্বর থেকে দিল্লি, কলকাতা, গুয়াহাটি ও এমনকি আগরতলার হোটেলগুলোতে বসে আছে।’

নিজের ও তার প্রতিষ্ঠানের পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে তিনি কথা বলেন। ‘খারাপ পরিণতির’ আশঙ্কায় পরিচয় প্রকাশ করতে চান না তিনি।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের কূটনীতিকরা ভারতের অন্যান্য রাজ্যের শিক্ষার্থীদের ভিসা দিচ্ছে। কিন্তু আমাদের তারা বলছেন যে কাশ্মীরি শিক্ষার্থী নিয়ে কিছু সমস্যা আছে।‘

আরেকটি এডুকেশনাল কনসালটেনসির ম্যানেজার বলেন, ‘প্রায় ২০ জনের মতো কাশ্মীরি শিক্ষার্থীকে ভিসা দেয়া হয়েছে এবং তারা বাংলাদেশের মেডিকেল কলেজগুলোতে যোগ দিয়েছে। ফলে আমরা ভাবছি যে ডিসেম্বরের মাঝামাঝিতে এমন কিছু ঘটে থাকতে পারে। হয়তো ভারত সরকারের নির্দেশনাতেই কাশ্মীরি শিক্ষার্থীদের ভিসা দেয়া হচ্ছে না।’

ওই ম্যানেজার আরও জানান, তিনি অন্যান্য শিক্ষার্থীর ভিসা পেয়েছেন। কিন্তু ১৫ জন কাশ্মীরি ছাত্রের ভিসা আবেদন আটকে আছে। এসব শিক্ষার্থী গুয়াহাটি থেকে আবেদন করেছিল। তাদের বলা হয়েছে, দিল্লিস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশন ভিসা দিচ্ছে না। চাকমা বলেন, এসব ভিসা ইস্যু করার এখতিয়ার তার নেই।

তিনি বলেন, ‘আমাদের অর্থ ফুরিয়ে যাচ্ছে। এসব ছেলেমেয়ে মধ্য ডিসেম্বর থেকে হোটেলে আছে। তাদের সঙ্গে অনেক অভিভাবকও আছেন। আমরা সবাই বড় ধরনের অনিশ্চয়তায় পড়ে গেছি।’

আরেকটি কনসালটেনসি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা বলেন, ‘ভারতের উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোর শিক্ষার্থীরা গুয়াহাটি এবং আগরতলা থেকে সহজে বাংলাদেশের ভিসা পেয়ে যাচ্ছে। কিন্তু ভিসার জন্য আবেদন করেও কাশ্মীরিরা বাংলাদেশে ঢুকতে পারছে না। এটা কি তাদের প্রতি বৈষম্য নয়?’

কাশ্মীরি তরুণী রুবিনা আসাদুল্লাহ বলেন, ‘ভারতের অন্য রাজ্যের শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশে গিয়ে ক্লাস শুরু করে দিয়েছে। আমরা জানি না, কখন আমরা অনুমতি পাব।’

তবে দিল্লিতে বাংলাদেশ হাই কমিশনের প্রেস সেক্রেটারি ফারিক হোসাইন বলেন, ‘কাশ্মীরি শিক্ষার্থীদের ভিসা না দেয়ার কোনো নীতি নেই। কারিগরি কারণে ভিসা পেতে বিলম্ব হতে পারে। তবে বিষয়টি পরিষ্কার করা হয়নি।’

প্রসঙ্গত, ভারতের ভর্তি পরীক্ষা অপেক্ষাকৃত কঠিন হওয়ায় এবং ভারতের বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলোতে ফি অনেক বেশি হওয়ায় বাংলাদেশে এসে এমবিবিএস ডিগ্রি নিতে ঝুঁকছেন ভারতীয়রা।

এ ছাড়া বাংলাদেশের মেডিকেল শিক্ষার মান ভারতের সমমানের। উভয় দেশেই এমবিবিএস প্রোগ্রাম চলে ইংরেজিতে। পাঠ্যবইগুলোও একই।

অন্যদিকে নিজ রাজ্যে কাশ্মীরি শিক্ষার্থীদের চিকিৎসা শিক্ষা পাওয়ার সুযোগ সীমিত। ফলে তাদের কাছে ভারতের অন্যান্য রাজ্য ছাড়াও বাংলাদেশ হয়ে উঠে মেডিকেল ডিগ্রির জন্য আকর্ষণীয় স্থান।