হাসপাতালের পর্দা কেলেংকারীর ৩ চিকিৎসক কারাগারে

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আলোচিত পর্দা কেলেংকারীর সঙ্গে জড়িত তিন চিকিৎসকের জামিন বাতিল করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।
দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর করা মামলায় এ তিন চিকিৎসক রোববার ফরিদপুরের জেলা ও দায়রা জজ ১ম আদালতের বিচারক নুরুননাহারের আদালতে হাজির হলে আসামিদের জামিন না মঞ্জুর করা হয়।
জামিন না মঞ্জুরকৃত তিন চিকিৎসক হলেন- ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সাবেক তত্ত্বাবধায়ক ডা. গণপতি বিশ্বাস শুভ, হাসপাতালের সাবেক কনসালটেন্ট ডা. মিনাক্ষী চাকমা, হাসপাতালের সাবেক প্যাথলজিস্ট ডা. এ এইচ এম নুরুল ইসলাম।
ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ১০ কোটি টাকার পর্দা ও যন্ত্রপাতি ক্রয়ে ব্যাপক দুর্নীতি হয়। এ দুর্নীতির ফলে দুর্নীতি দমন কমিশন ২০১৯ সালের ২৭ নভেম্বর ফরিদপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালতে একটি মামলা করে। এ মামলায় আসামি করা হয় ঠিকাদার মেসার্স অনিক ট্রেডার্স এর স্বত্ত্বাধিকারী আবদুল্লাহ আল মামুন, মেসার্স আহমেদ এন্টারপ্রাইজের স্বত্ত্বাধিকারী মুন্সী ফররুখ আহমেদ, জাতীয় বক্ষব্যাধী হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মুন্সী সাজ্জাদ হোসেন, ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সাবেক তত্ত্বাবধায়ক ডা. গণপতি বিশ্বাস শুভ, ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কনসালটেন্ট ডা. মিনাক্ষী চাকমা এবং ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সাবেক প্যাথলজিস্ট ডা. এ এইচ এম নুরুল ইসলামকে।
মামলাটি দায়ের করেন দুদকের প্রধান কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ চৌধুরী। এ মামলায় ৬ আসামির মধ্যে তিনজন আদালতে হাজির হলে জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়। বাকি আসামিরা উচ্চ আদালত থেকে জামিনে রয়েছেন।