বেরোবিতে উপাচার্যের উপস্থিতি ও সাক্ষাতের দাবিতে শিক্ষকদের অবস্থান কর্মসূচি

জয়নাল আবেদীন: রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সংগঠন অধিকার সুরক্ষা পরিষদ’উপাচার্য প্রফেসর ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহর ক্যাম্পাসে উপস্থিতি ও সাক্ষাতের দাবিতে উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে মঙ্গলবার দুপুর একটা থেকে আড়াইটা পর্যন্ত অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে। এসময় সময় উপস্থিত ছিলেন অধিকার সুরক্ষা পরিষদের আহবায়ক ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ মতিউর রহমান, শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. তুহিন ওয়াদুদ, সহযোগী অধ্যাপক ড. নিত্য ঘোষ, গণিত বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক কমলেশচন্দ্র রায়,রসায়ন বিভাগেরসহযোগী অধ্যাপক এইচ এম তারিকুল ইসলাম, সহযোগী অধ্যাপক ড. বিজন মোহন চাকী, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শরিফুল ইসলাম, সহকারী অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম, লোকপ্রশাসন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সাব্বীর আহমেদ চৌধুরী, রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক নুরুজ্জামান খান, অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক খন্দকার জাহাঙ্গীর আলম নীরব, বেলাল উদ্দিন, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক তাসনীম হুমাইদা, ভুগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সৈয়দ আনোয়ারুল আজিম প্রমুখ। গত ৫ ফেব্রয়ারি অধিকার সুরক্ষা পরিষদ উপাচার্যের অনিয়ম, দুর্নীতি এবং স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করে ১১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত উপাচার্যকে না পেয়ে উপাচার্যের দরজায় স্মারকলিপি সেঁটে দেয়। এর পর ২০ ফেব্রুয়ারি উপাচার্যের একটি হাজিরা খাতা টাঙিয়ে দেয় অধিকার সুরক্ষা পরিষদ। গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত ৯৯০ দিনের মধ্যে উপাচার্য মাত্র ২২৭ দিন ক্যাম্পাসে উপস্থিত ছিলেন। অনুপস্থিত ছিলেন ৭শ৬৩ দিন। উপাচর্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি ক্যাম্পাসে থাকেন না। ক্যাম্পাসে না থেকেই তিনি বিভিন্ন বিভাগে প্রায় অর্ধশত কোর্স পড়ানোর দায়িত্ব নিয়েছিলেন। সেগুলোর কোন ক্লাশ ছাড়াই পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়ছে। সেই কোর্স পড়ানো বাবদ উপাচার্য প্রফেসর ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ লাখ লাখ টাকা পারিতোষিক হিসেবে গ্রহণ করেছেন। তার বিরুদ্ধে প্রায় অর্ধশতাধিক অভিযোগ এনেছে অধিকার সুরক্ষা পরিষদের শিক্ষকগণ। আইন, নিয়ম লঙ্ঘন, নিয়োগে অনিয়ম, আর্থিক দুর্নীতিসহ অনেক অভিযোগ তার সম্পর্কে উত্থাপতি হয়েছে। ২০ ফেব্রয়ারি বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ উন্নয়ন প্রকল্পের অনুমোদিত ড্রয়িং ও ডিজাইন পরিবর্তন করে কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়ে ভবন নির্মাণ করা ও অনুমোদিত ডিপিপিতে অন্তর্ভুক্ত নয় এমন অনেক খাতে বরাদ্দ না থাকা সত্বেও সেসব খাতে টাকা ব্যয় করার কারণে বাংলাদেশ বিশ^বিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি তদন্ত কাজ শুরু রয়েছে।

Previous articleরাজারহাটে সড়কের গাছ কাটার ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যানকে প্রধান আসামী করে মামলা
Next articleভূঞাপুরে গরু চোরের ৩ সদস্যকে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।