মুখলেসুর রাহমান সুইট: শতভাগ আবাসন নিশ্চিত, ক্যাম্পাসের ভিতরে ও বাহিরে অবস্থানরত শিক্ষার্থীদের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের দাবিতে দিনভর সভা-সমাবেশ করেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের(ইবি) প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনগুলো। একইসঙ্গে অতি-সম্প্রতি এক ছাত্রীর সাথে গোসলের ভিডিও ধরনের মতো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনায় দোষীদের চিহ্নিত করে দ্রুত বিচারের আওতায় এতে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা।

বুধবার শাখা ছাত্র মৈত্রী, ছাত্রলীগ ও ছাত্র ইউনিয়নের আয়োজিত পৃথক পৃথক কর্মসূচিতে এ দাবি জানানো হয়। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরাও অংশ নিয়েছেন।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যাচ্ছে, বুধবার বেলা সাড়ে ১১ টায় প্রশাসন ভবনের সামনে শাখা ছাত্র মৈত্রীর সাধারণ সম্পাদকের মুতাসিম বিল্লাহ পাপ্পুর নেতৃত্বে সংগঠনটির নেতাকর্মীরা অংশ নেন। অন্যদিকে দুপুর ১২টার দিকে একই স্থানে শাখা ছাত্রলীগের আয়োজিত মানববন্ধনে সংগঠনটির সভাপতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত ও নাসিম আহমেদ জয়ের নেতৃত্বে বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।

এছাড়াও মানববন্ধন শেষে ভিসি বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন ছাশাখার ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। উপাচার্যের পক্ষে স্মারকলিপি গ্রহণ করেন উপ- উপাচার্য ফেসর ড. মাহবুবুর রহমান ও ট্রেজারার প্রফেসর ড. আলমগীর হোসেন ভূঁইয়া। এদিকে দুপুর দেড়টার দিকে ক্যাম্পাসে ডায়না চত্ত্বর সংলগ্ন ঝালমুড়ি চত্ত্বর থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে একই স্থানে এসে মানববন্ধন করে ছাত্র ইউনিয়ন ইবি সংসদ।সহসম্পাদক মুখলেসুর রাহমান সুইটের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে সংগঠনটির সভাপতি জি.কে. সাদিক ও সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক পিয়াসের বক্তব্য রাখেন।

মানববন্ধনে ছাত্র মৈত্রীর ইবি শাখার সাধারণ সম্পাদক মুতাসিম বিল্লাহ পাপ্পু বলেন, বিভিন্ন সময়ে আমরা শিক্ষার্থীদের সাথে এমন ঘটনা ঘটতে দেখেছি। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এসব বিষয়ে তেমন কোনো কার্যকর পদক্ষেপ আমরা দেখিনি। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়কে শতভাগ আবাসিকতার আওতায় আনার এবং ক্যাম্পাসের ভিতরে-বাহিরে সকল শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিকরণের দাবি জানাচ্ছি।

ছাত্র-ইউনিয়ন ইবি সংসদের সভাপতি জি.কে. সাদিক বলেন, সম্প্রতি এক ছাত্রীর সাথে ঘটে যাওয়া একটি ঘটনা আমাদের মর্মাহত করেছে। অতিদ্রুত আমরা এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি। এর আগেও স্থানীয়দের দ্বারা শিক্ষার্থীরা নানাভাবে হামলা ও মারধরের শিকার হয়েছে। প্রশাসন বারবার আশ্বাস দিলেও নিরাপত্তা এখনো নিশ্চিত হয় নাই। এসময় তিনি ইবি থানা ও শৈলকূপা থানার কম্বিনেশন করে একটি পুলিশ ফাঁড়ি নির্মাণের দাবি জানান।

শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত বলেন, আজকে যদি আমাদের ক্যাম্পাসে শতভাগ আবসিকতা নিশ্চিত থাকতো তাহলে আমার বোনের সাথে এমন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতো না। আমাদের ক্যাম্পাসকে শতভাগ আবাসিকতার আওতায় আনার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি। একই সাথে এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে সঠিক বিচারের দাবি করছি। এসময় তিনি ইবি থানা ও শৈলকূপা থানার কম্বিনেশন করে একটি পুলিশ ফাঁড়ি নির্মাণের দাবি জানান।

উল্লেখ যে, সোমবার ক্যাম্পাস পার্শ্ববর্তী শেখপাড়া এলাকায় একটি বাড়া বাসায় বিশ্ববিদ্যালয়ের গোপনে এক ছাত্রীর গোসলের ভিডিও ধারণের অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনায় ভূক্তভোগী মঙ্গলবার সকালে ভিডিও উদ্ধার ও সুষ্ঠু বিচার দাবি করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন এবং শৈলকূপা থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন ভূক্তভোগী। জিডি নম্বর-১৬২৬।

এ বিষয়ে শৈলকূপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, আমরা তদন্ত অব্যহত রেখেছি। সবকিছু আইনী প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

Previous article৭১ শতাংশ পরিবার দুর্নীতির শিকার: টিআইবি
Next articleকিলোমিটারে ৫ পয়সা কমলো বাসভাড়া
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।