মঙ্গলবার, এপ্রিল ২৩, ২০২৪
Homeশিক্ষাকলাপাড়ায় মহিলা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষকে কারন দর্শানোর নোটিশ

কলাপাড়ায় মহিলা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষকে কারন দর্শানোর নোটিশ

এ এম মিজানুর রহমান বুলেটঃ পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় মহিলা ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক মো.মঞ্জুরুল আলম জ্যেষ্ঠতা লংঘন করে প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ’র দায়িত্ব পালন করায় তাঁকে কারন দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। ১০ সেপ্টেম্বর ২০২৩ মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক তপন কুমার দাস স্বাক্ষরিত এ নোটিশটি  প্রদান করা হয়। এতে পাঁচ কর্মদিবসের মধ্যে তাকে কারন দশার্তে এবং একই সময়ে কলেজ গর্ভনিংবডির সভাপতিকে মতামত প্রদানের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হয়েছে।
নোটিশে বলা হয়, ১ জুন ২০২৩ তারিখ কলাপাড়া মহিলা ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ (ইনডেক্্র নং৪২৯৪৭৯) মাউশি অধিদপ্তরে একটি লিখিত আবেদন  করেন। এতে বর্তমান ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো.মঞ্জুরুল আলম জ্যেষ্ঠতার দিক থেকে কলেজে তৃতীয় অবস্থানে থাকা সত্বেও তিনি ওই কলেজে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছে (যা  জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা -২০২১এর ধারা ১৩ এর লংঘন) সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ  আবুল কালাম আজাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে  কেন বিধি মোতাবেক তাঁর (ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ) বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে না মর্মে পাঁচ কর্ম দিবসের মধ্যে তাকে কারন দর্শাতে নির্দেশ ক্রমে অনুরোধ করেছেন।
এ বিষয়ে জানার জন্য ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো.মঞ্জুরুল আলমকে তাঁর মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি একটি মিটিংয়ে ব্যস্ত রয়েছেন বলে উল্লেখ করেন।
 কলেজ গর্ভনিংবডির সভাপতি মো.হুমায়ুন কবির জানান, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত বেসরকারী কলেজ শিক্ষকদের চাকুরীর শর্তাবলী রেগুলেশন  (সংশোধিত) ২০১৯ ধারা-৪ এর ২ অনুযায়ী কলেজে অধ্যক্ষর পদ শূন্য হলে অধ্যক্ষর অবর্তমানে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসেবে উপাধ্যক্ষ/জ্যেষ্ঠতম ৫ (পাঁচ) জন শিক্ষকের মধ্য থেকে যে কোন একজনকে দায়িত্ব প্রদান করতে পারবে। এছাড়া তিনি এডহক কমিটির সভাপতি হিসেবে আছেন,এর আগে পূর্নাঙ্গ কমিটির যিনি সভাপতি ছিলেন,তিনি মো.মঞ্জুরুল আলমকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব প্রদান করেন। তবে তিনি কলেজের দায়িত্বে আসার পর কলেজের পরিবেশ, শিক্ষার্থীদের রেজাল্ট সহ বিভিন্ন দিকের পরিবর্তন এনেছেন এবং তার কলেজ সংশ্লিষ্ট সকল কাজ প্রশংসনীয় বলে তিনি উল্লেখ করেন ।
এদিকে, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের  কলেজ পরিদর্শক (ভারপ্রাপ্ত) ফাহিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে জানা গেছে, ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসেবে ছয় মাস দায়িত্ব পালন করার পর বিধি মোতাবেক অধ্যক্ষ নিয়োগ করতে হবে। যুক্তিসংগত কারন ছাড়া ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব  প্রদানের  এক বছরেরর মধ্যে নিয়মিত অধ্যক্ষ নিয়োগ দিতে ব্যর্থ হলে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের স্বাক্ষরকৃত কাগজপত্র ও কার্যবিবরনী জাতীয় বিশ্ববিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক গৃহীত বা স্বীকৃত হবে না। এ ধারা বলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত বেসরকারী কলেজ/শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহ এক বছর বা এর অধিক সময় ধরে যারা ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ’র দায়িত্ব পালন করছেন,এ দাযিত্ব পালন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত বেসরকারী কলেজ শিক্ষকদের চাকুরীর শর্তাবলী রেগুলেশন (সংশোধিত)  ২০১৯ এর পরিপন্থী হওয়ায় ,তাঁদের উক্ত দায়িত্ব পালনের  কোন সুযোগ নেই।
আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments