ধর্ষণের অভিযোগ, তদন্তের স্বার্থে নেপালের স্পিকারের পদত্যাগ

বাংলাদেশ ডেস্ক: নেপালের স্পিকার কৃষ্ণা বাহাদুর মহারার বিরুদ্ধে তার পার্লামেন্টের এক নারী কর্মীকে ধর্ষণের অভিযোগ আনা হয়েছে। আর সেই অভিযোগ তদন্তের স্বার্থে তিনি নিজ পদ থকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন কৃষ্ণা।

দেশটির স্থানীয় একটি পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তিনি প্রতিনিধি পরিষদের ডেপুটি স্পিকারের কাছে এক চিঠিতে পদত্যাগের ইচ্ছা প্রকাশ করেন।

নেপালের ‘মাই রিপাবলিক’ নামের পত্রিকা চিঠিটি প্রকাশ করেছে। চিঠিতে কৃষ্ণা বাহাদুর বলেন, ‘ওই অভিযোগের কারণে আমার চরিত্র নিয়ে যে গুরুতর প্রশ্ন উঠেছে তার স্বচ্ছ তদন্তের স্বার্থে নৈতিক কারণে আমি পদত্যাগ করছি।’ কৃষ্ণা বাহাদুর মদ্যপ অবস্থায় তাকে ধর্ষণ করেছেন বলে ওই নারী অভিযোগ করেন।

কাঠমাণ্ডু পুলিশ প্রধান উত্তম সুবেদি বলেন, ‘ওই নারী রাজধানী কাঠমাণ্ডুতে নিজের অ্যাপার্টমেন্টেই ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন। তার অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ স্পিকারের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে।’

এ বিষয়ে জানতে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের পক্ষ থেকে কৃষ্ণা বাহাদুরের মুঠোফোনে কল করা হলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায় বলে এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

তবে কৃষ্ণা বাহাদুরের সহযোগী অভিযোগ অস্বীকার করে মঙ্গলবার সকালে একটি বিবৃতি দেন। বিবৃতিতে বলেন, ‘এটা স্পিকারের চরিত্র হননের অপচেষ্টা।’

এদিকে কৃষ্ণা বাহাদুরের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ উঠার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার ঝড় উঠলে নেপালের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টি তাকে স্বচ্ছ তদন্তের স্বার্থে পদত্যাগের আহ্বান জানায় বলে দলের এক মুখপাত্র জানান।