বাংলাদেশ ডেস্ক: ত্রিমুখি প্রেমের জেরে খুন হয়েছেন স্নেহলতা নামে এক ব্যাংকার তরুণী। ওই তরুণীর বয়স ১৯ বছর। এ ঘটনায় গ্রেফতার করা হয়েছে তার প্রাক্তন প্রেমিককে।

ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের অনন্তপুর জেলায় এ ঘটনা ঘটে। তিনি স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়ায় কর্মরত ছিলেন। পুলিশের প্রাথমিক ধারণা, তরুণী নতুন সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ায় অভিযুক্ত এই কাজ করতে পারে।

পুলিশের তথ্য অনুযায়ী, অভিযুক্তের নাম গুটি রাজেশ। তিনি পেশায় রাজমিস্ত্রি। ওই যুবকের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল ওই তরুণীর। তবে স্টেট ব্যাঙ্কে চাকরি পেয়ে যাওয়ার পরই যুবকের সঙ্গে দূরত্ব বাড়তে থাকে তরুণীর। এরপর রাজেশ জানতে পারেন নতুন সম্পর্কে জড়িয়েছেন ওই তরুণী। তারপরই স্নেহলতা নামে ওই তরুণীকে খুনের ছক সাজান তিনি। কল রেকর্ডের তথ্য থেকে জানা গেছে, গত এক বছরে স্নেহলতা-রাজেশের মধ্যে ১ হাজার ৬১৮ বার কথা হয়।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, গত মঙ্গলবার স্নেহলতাকে ফোন করে তার সাথে দেখা করতে বলেন রাজেশ। এরপর নিজের বাইকে বসিয়ে একটি নির্জন জায়গায় নিয়ে যান। সেখানে তরুণীর নতুন সম্পর্ক নিয়ে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। শ্বাসরোধ করে খুন করা হয় স্নেহলতাকে।

পুলিশ আরও জানিয়েছে, রাজেশ স্নেহলতাকে তার নতুন সম্পর্ক নিয়ে নানা প্রশ্ন শুরু করে। এর ফলে দু’জনের মধ্যে তর্ক হয়। স্নেহলতাকে খুন করার পর পরিচয় গোপন করতে দেহটিকে পুড়িয়ে দেওয়ারও চেষ্টা করা হয়। দেহটি আংশিকভাবে পুড়ে গিয়েছে। তবে কোনও যৌন নির্যাতন বা সহবাসের প্রমাণ মেলেনি।

স্নেহলতার পরিবার থেকে খবর দেওয়া হয় পুলিশে। এরপর তরুণীর কর্মস্থল থেকে প্রায় ২৫ কিমি দূরের একটি জায়গা থেকে দেহ উদ্ধার হয়।

স্নেহলতার পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ জানানো হয়েছে, রাজেশ প্রায়শই হুমকি দিতেন। এছাড়াও তারা রাজেশের এক বন্ধু কার্তিকও এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত বলে অভিযোগ করেছেন। আপাতত পুলিশি হেফাজতে রয়েছেন রাজেশ। জেরার মুখে নিজের অপরাধ স্বীকার করেছেন তিনি। ঘটনার সঠিক তদন্তের আশ্বাস দিয়েছে পুলিশ।