বাংলাদেশ ডেস্ক: ভারতের তামিলনাড়ুর ভিরুধুননগরে একটি ব্যক্তি মালিকানাধীন আতশবাজি কারখানায় বিস্ফোরণে অন্তত ১১ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছে আরও ৩৬ জন। দুর্ঘটনার শিকার কারখানা চেন্নাই থেকে ৫০০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।

পুলিশ জানায়, কয়েকটি রাসায়নিক পদার্থ মিশিয়ে আতশবাজি বানানোর সময় বিস্ফোরণ ঘটে। শুক্রবার (১২ ফেব্রুয়ারি) স্থানীয় সময় বেলা দেড়টায় এ ঘটনা ঘটে।

বার্তা সংস্থা পিটিআই জানায়, বিভিন্ন জায়গা থেকে ফায়ার সার্ভিসের ১০টি ইউনিট খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দ্রুত আগুন নেভানোর জন্য দুর্ঘনাস্থলে পৌঁছেছে।

দুর্ঘটনায় নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে দেশটির প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে ২ লাখ রূপি করে ক্ষতিপূরণ দেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

নরেন্দ্র মোদির দফতর জানায়, তামিলনাড়ুরি ভিরুধুননগরে অগ্নিকাণ্ডে নিহতদের পরিবারকে ২ লাখ রূপি করে ক্ষতিপূরণ প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। গুরতর আহতদের প্রত্যেকে দেয়া হবে ৫০ হাজার রূপি করে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে শোক প্রকাশ করে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তায় কর্তৃপক্ষ কাজ করছে বলেও জানানো হয়।

কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী বিস্ফোরণে হতাহতের পরিবারের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ করেছেন। ক্ষদিগ্রস্তদের দ্রুত উদ্ধার, সহায়তা এবং ত্রাণ পৌঁছে দেয়ার জন্য রাজ্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

টুইট বার্তায় তিনি বলেন, তামিলনাড়ুর কারখানায় বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্তদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা। যারা আগুনে আটকে আছে তাদের কথা ভাবতেই গা শিউরে উঠছে। দ্রুত তাদের উদ্ধার এবং ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তার জন্য রাজ্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

বিস্ফোরণে নিহতদের প্রত্যেকের পরিবারকে ৩ লাখ রূপি এবং যারা মারাত্মকভাবে আহত হয়েছেন তাদের জনপ্রতি ১ লাখ রূপি দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী এদাপ্পাদি কে পালানিস্বামী।

মূখ্যমন্ত্রী বলেন, আহতদের সর্বোচ্চ চিকিৎসা নিশ্চিতে জেলা কর্তৃপক্ষ এবং বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। আহত এবং নিহতদের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের সহায়তায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে স্থানীয় প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানাই। এছাড়া, এ ধরনের কারখানা নিয়মমাফিক পরিদর্শন অব্যাহত রাখাতে জেলা কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

দুর্ঘটনার কারণ এখনো জানা যায়নি। এলাইররামপান্নি পুলিশ একটি মামলা নথিভুক্ত করেছে এবং দুর্ঘটনা তদন্ত করছে তারা।