বাংলাদেশ ডেস্ক: আফগানিস্তানের মসনদে তালেবানের বসার বিষয়টি ভারতের নিরাপত্তার ক্ষেত্রে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে প্রশাসনের অন্দরে। তালেবানের উত্থানের ফলে ভারতের অনুপ্রবেশের ঘটনা আরও বাড়তে পারে, মূলত প্রভাবিত হতে পারে ভারতের পশ্চিম সীমান্ত। তাই সেই বিষয়েও নজরদারি বাড়াতেই হবে। সেই কারণেই ভারতীয় স্থল বাহিনীর কয়েকটি বিভাগকে এই বিষয়ে কৌশল আরও মজবুত করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বদলাতে বলা হয়েছে রণনীতিও। ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী, সশস্ত্র সীমা বল, সিআরপিএফ ও জঙ্গি মোকাবিলার কাজে যুক্ত রাজ্যের বিশেষ বাহিনীগুলিকে তালেবান প্রতিরোধে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। প্রয়োজন পড়লে কোনও কোনও রাজ্যপুলিশকেও এই বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়ার কাজ করা হবে বলে জানিয়েছে সংবাদ সংস্থা পিটিআই। গত মাসে তালেবানের হাতে কাবুলের পতনের ফলে ভারতের নিরাপত্তা পরিস্থিতির উপর “গুরুতর প্রভাব” পড়তে পারে বলে উল্লেখ করে, স্থল বাহিনী এবং তাদের গোয়েন্দা সংস্থাকে নতুন রণ কৌশল এবং যুদ্ধের পদ্ধতি উভয়ই সাজাতে বলা হয়েছে ভারতের সীমান্ত এলাকায়।

কিছুদিন আগে নিরাপত্তা সংস্থা কর্তৃক জারি করা নির্দেশনায় বলা হয়েছে , সীমান্তের ওপারে পাকিস্তান থেকে ভারতের পশ্চিমে অনুপ্রবেশ এবং পূর্বে খোলা ফ্রন্ট থেকে সন্ত্রাসীদের প্রবেশ বৃদ্ধি পেতে পারে। কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা বাহিনী এবং গোয়েন্দা শাখার কর্মকর্তারা গত মাসে আফগানিস্তানের প্রায় সব প্রদেশ তালেবানদের দখলে নেওয়ার পর আশেপাশে ঘটে যাওয়া নতুন গতিবিধির কথা স্বীকার করেছেন। নাম না করে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা এক উচ্চপদস্থ আধিকারিক পিটিআইকে জানিয়েছেন, একটি তালেবান প্রতিরোধী মডিউল তৈরির কথাও ভাবা হচ্ছে। যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে ভারতের প্রতিবেশী দেশে, সেই দিকে নজর রেখেই এই মডিউলের গতিপথ নির্ধারণ করা হবে। কারণ সকলের কাছে তালেবানের পরিচয় স্পষ্ট হওয়া জরুরি। তিনি বলেছেন, ‘‘সীমান্তের কোনও চেকপোস্টে যে শেষ সেনা জওয়ান নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবেন, তাঁর কাছেও তালিবানের কৌশল স্পষ্ট থাকা জরুরি। তাহলেই তিনি মোকাবিলা করতে পারবেন।’’নির্দেশনাগুলি কেন্দ্রীয় এবং রাজ্য পুলিশ বাহিনীর কাছে পাঠানো হয়েছে যাতে তারা একেবারে নিচু থেকে উঁচু স্তর পর্যন্ত এবিষয়ে ওয়াকিবহাল থাকেন।

এক সেনা আধিকারিক জানাচ্ছেন , “নিরাপত্তা বাহিনীর সিনিয়র এবং শীর্ষ কমান্ডাররা আফগানিস্তান এবং তালেবানদের পরিস্থিতি সম্পর্কে বেশিরভাগ বিষয় জানতে পারে ঠিকই কিন্তু তাদের হাত শক্ত করতে তাদের স্ট্রাটেজিকে বাস্তব রূপ দেয় সীমান্তে থাকা কনস্টেবলরা । তারাই দেশের নিরাপত্তা নিশ্চিত করেন তাই তালিবানদের সব খবর একেবারে তৃণমূল স্তরে যাওয়া প্রয়োজন। improvised explosive device বা আইইডি -র সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে নিরাপত্তাবাহিনীদের প্রশিক্ষণ বাড়ানো হয়েছে। তালেবানদের উপর কেস স্টাডি বাড়ানো হয়েছে , আঞ্চলিক ভাষায় সেই বিষয়ে সেনাদের জানানো হচ্ছে। পাশাপাশি মাসের শেষের দিকে সমস্ত বাহিনীর জন্য একটি ওয়েবিনারের পরিকল্পনা করা হচ্ছে। কাশ্মীর উপত্যকায় সেইসব প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সেনাদেরই পাঠানো হচ্ছে যাঁরা আইইডি এবং ভিবিআইইডি সম্পর্কে উচ্চজ্ঞানসম্পন্ন। কারণ আফগানিস্তানে আইইডি বিস্ফোরণে ন্যাটো বাহিনীর মারাত্মকভাবে জখম হবার খবরটি সকলেই জানেন। তাই তালিবানদের বিষয়ে স্ট্র্যাটেজি সাজাতে ছোট -বড় নানা বিষয় মাথায় রাখছেন ভারতীয় কমান্ডাররা।

Previous articleকলাপাড়ায় নারী খাদ্য পরিদর্শকের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু
Next articleএহসান গ্রুপের এমডি রাগীবসহ ৪ ভাই ৭ দিনের রিমান্ডে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।