বাংলাদেশ ডেস্ক: চীনের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের শিনজিয়াং প্রদেশে বসবাসকারী উইঘুর মুসলমানদের ওপর কমিউনিস্ট পার্টির সরকার যে অমানবিক নির্যাতন, হত্যা, মারধর, ধর্ষণ, যৌনাঙ্গে ইলেকট্রিক শক, গুম, নিষিদ্ধ ওষুধ প্রয়োগ, নারী-পুরুষদের সন্তান জন্মদানের সক্ষমতা নষ্ট করে দেয়া, অনৈতিক ট্রায়ালের মতো নানা মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে, এক কথায় তা নজিরবিহীন। গোপনে ধারণকৃত ভিডিওতে দেখা যায়, শত শত উইঘুরকে একটি বন্দিশিবিরে দুই হাত ও চোখ বাঁধা অবস্থায় ফ্লোরে ফেলে রাখা হয়েছে। সিসি টিভি ক্যামেরার নেটওয়ার্কের মাধ্যমে উইঘুরদের সব গতিবিধি কঠোরভাবে নজরদারি করা হচ্ছে। ২০ লাখ উইঘুর মুসলিমকে শিক্ষা কেন্দ্রের নামে ডিটেনশন ক্যাম্পে বিনা বিচারে আটকে রেখে বীভৎস কায়দায় নির্যাতনের কিছু স্থিরচিত্র ও ভিডিও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রকাশ হলে বিশে^র সচেতন মানুষ আঁতকে ওঠেন। বন্দিশিবিরের চার পাশে কাঁটাতারের বেড়া এবং ভারী অস্ত্রে সজ্জিত সেনাদের পাহারা দিতে দেখা যায়। চীন সরকারের পক্ষ থেকে এটিকে বিচ্ছিন্নতাবাদ থেকে মুক্ত রাখতে পুনঃশিক্ষণ কর্মশালা বলে দাবি করা হচ্ছে।

মোদ্দাকথা, এ জুলুম ও নির্যাতনের উদ্দেশ্য জাতিগত নিধন। উইঘুর মেয়েদের সাথে চীনাদের জোরপূর্বক বিয়ে, ধর্মপালনে বাধা দেয়া, সহায় সম্পত্তি কেড়ে নেয়া, নতুন মসজিদ নির্মাণে নিষেধাজ্ঞা, পুরনো মসজিদ সংস্কার করতে গেলে প্যাগোডার আদলে পুনর্বিন্যাস করা, হানদের সংস্কৃতি গ্রহণে বাধ্য করা নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। উইঘুরদের যাবতীয় ধর্মীয় পরিচয়, কৃষ্টি ও উত্তরাধিকার ঐতিহ্য শেষ করে দিয়ে নিজস্ব সংস্কৃতি চাপিয়ে দিতে বদ্ধপরিকর চীন সরকার।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের পাশাপাশি বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন এ অন্যায় ও গণহত্যার বিরুদ্ধে সরব থাকলেও চীন একেবারে নির্বিকার। চীন গণহত্যার এ প্রকল্প থেকে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছে। সম্প্রতি নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, বন্দিশিবিরে আটক উইঘুর মুসলিমদের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ চোরাবাজারে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলারে বিক্রি করা হচ্ছে। ওই প্রতিবেদনে অভিযোগ তোলা হয়, মুসলিমদের পাশাপাশি তিব্বতি ও ফালুন গং গোষ্ঠীর বন্দীদের থেকেও জোর করে অঙ্গ সংগ্রহ করা হচ্ছে। হৃষ্টপুষ্ট একটি লিভারের দাম পড়ে প্রায় দেড় লাখ ডলার (এক কোটি টাকার কাছাকাছি)। ভালো মানের কিডনি অবশ্য তার কিছুটা কমেই পাওয়া যায় চোরাবাজারে। বছরে প্রায় সাড়ে আট হাজার কোটি টাকা মূল্যের অঙ্গ-প্রত্যক্ষের রমরমা ব্যবসা চালানো হচ্ছে। জাতিসঙ্ঘের মানবাধিকার কমিশন বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

অস্ট্রেলিয়ান স্ট্র্যাটেজিক পলিসি ইনস্টিটিউট বলছে, ২০১৭ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত প্রায় ৮০ হাজার উইঘুরকে শিনজিয়াং থেকে চীনের বিভিন্ন অঞ্চলের কারখানায় পাচার করা হয়েছে। এসব উইঘুরকে জোর করে শ্রমে নিযুক্ত এবং তাদের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ বিক্রি করে কোটি কোটি ডলার অর্থ সংগ্রহ করছে চীন। ২০১৯ সালে চীনের একটি আদালতে দেশটিতে প্রায় ৬০ হাজার অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ প্রতিস্থাপন হয়েছে বলে জানানো হয়। তবে এ সংখ্যা দাতাদের চেয়ে অনেক বেশি (যুগান্তর, ঢাকা পোস্ট, ৩০ অক্টোবর ২০২১)। দেশটির কমিউনিস্ট সরকার বিষয়টি বারবার অস্বীকার করে আসছে। এ ধরনের অভিযোগকে ‘সম্পূর্ণ মিথ্যা’ ও ‘অপপ্রচার’ বলে অভিহিত করা হয়।

শিনজিয়াংয়ের আসল নাম পূর্ব তুর্কিস্তান। বর্তমানে এর জনসংখ্যা প্রায় আড়াই কোটির কাছাকাছি। আয়তন ১৬ লাখ ৬৪ হাজার বর্গকিলোমিটার। ৪৫ দশমিক ৮৪ শতাংশ উইঘুর মুসলিম, ৪০ দশমিক ৪৮ শতাংশ হান বৌদ্ধ। বাকিগুলো কাজাখ ও হুই জাতিগোষ্ঠী। ১৯৪৯ সালের আগে শিনজিয়াংয়ে চীনের হানরা ছিল ৬ শতাংশ। বর্তমানে প্রায় ৪০ শতাংশ। হিজরি ৯৫ সালে কুতায়বা বিন মুসলিমের সেনাপতিত্বে অভিযানের মাধ্যমে এতদঞ্চলে ইসলামের বিকাশ ঘটে। পরবর্তীতে ৩৩২ হিজরিতে সুলতান বুগরা খানের ইসলাম গ্রহণের মধ্য দিয়ে তা ইসলামী রাষ্ট্রে পরিণত হয়। এভাবে প্রায় ১০০ বছর স্বাধীন ইসলামী প্রজাতন্ত্র হিসেবে চালু থাকে। ১৯৩৩ ও ১৯৪৪ সালে দুই দফায় অঞ্চলটি স্বাধীন ছিল। রুশ সমাজতন্ত্রী স্ট্যালিন সেই সময় উইঘুরদের সহায়তা দিতেন। সর্বপ্রথম ১৭৫৯ সালে চীন অবৈধভাবে দখল করে। তাদের এ দখল চার বছর স্থায়ী হয়। দ্বিতীয়বার দখল করে ১৮৮১ সালে।

পরবর্তীতে ১৯৩৩ সালে উইঘুররা চীনের আনুগত্য ত্যাগ করে ‘পূর্ব তুর্কিস্তান ইসলামী প্রজাতন্ত্র’ নামে কাশগড়ে নতুন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেয়। চীন ১৯৪৯ সালে স্বাধীন রাষ্ট্র পূর্ব তুর্কিস্তান দখল করে নেয় এবং শিনজিয়াং নামকরণ করে। শিনজিয়াংয়ের অর্থ ‘নতুন সীমান্ত’। জনমীতির বৈশিষ্ট্য পরিবর্তনের লক্ষ্যে অন্যান্য অঞ্চল থেকে মানুষ এনে শিনজিয়াংয়ে বসতি গড়ে তোলা হয়। তার পর থেকেই সেখানকার বাসিন্দা উইঘুর মুসলিমদের একাংশ চীনের দখলদারির বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করে। নিপীড়নের মুখে তারা বেশিদূর এগোতে পারেননি। এরই মধ্যে মুসলিম অধ্যুষিত শিনজিয়াংয়ের উইঘুরদের হাজার হাজার মসজিদ ও সাংস্কৃতিক ঐতিহাসিক স্থাপনা ধ্বংস করা দেয়া হয়েছে। ২০২৩ সালের মধ্যে ‘ইসলামের চীনাকরণ’ (চিনিসাইজ অব ইসলাম) সম্পন্ন করতে পারবে বলে চীনা কর্র্তৃপক্ষের অভিমত। প্রায়ই উইঘুরদের তাদের বাড়িঘর থেকে টেনে-হেঁচড়ে ধরে নিয়ে যাওয়া হয় অথবা রাস্তা থেকে ট্রাকে তুলে ডিটেনশন ক্যাম্পে নিয়ে যাওয়া হয়। তাইওয়ান নিউজের এক অনুসন্ধানে গত কয়েক বছরে চীনের কর্মকর্তারা উইঘুরদের মালিকানাধীন ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান ও প্রচুর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করেছে বলে দাবি করা হয়েছে। এসব সম্পত্তি প্রায় ৮৪ মিলিয়ন ডলারে বিক্রি করা হয়। সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের একজন ভুক্তভোগী হলেন আবদুল জলিল হেলিল। উইঘুর এই ধনকুবের রফতানিকারককে ২০১৭ সালে সন্ত্রাসবাদে অর্থায়নের অভিযোগে আটক করে চীনা পুলিশ। পরে তাকে প্রায় এক বিলিয়ন ডলার মূল্যের সম্পত্তি চীনা কর্তৃপক্ষের কাছে সমর্পণ করতে বাধ্য করা হয়। ফলে তিনি নিঃস্ব হয়ে পড়েন। তার ওই সম্পত্তি চীনা সরকারি কর্মকর্তারা বিক্রি করে দেন (ঢাকা পোস্ট, ৩০ অক্টোবর ২০২১)। শিনজিয়াং মধ্য এশিয়ায় চীনের প্রবেশদ্বার। ‘সিল্ক রুট’-এর একেবারে কেন্দ্রে অবস্থিত। চীনের কয়লার ৪০ শতাংশ, তরল জ্বালানির ২২ শতাংশ ও গ্যাসের ২৮ শতাংশ রয়েছে শিনজিয়াংয়ের মাটির নিচে।

সিএনএন গত ৫ অক্টোবর ‘Chinese detective in exile reveals extent of torture against Uyghurs’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রচার করলে গোটা দুনিয়ায় হইচই পড়ে যায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সাবেক এক চীনা গোয়েন্দা কর্মকর্তা সিএনএনকে দেয়া প্রায় তিন ঘণ্টার এক সাক্ষাৎকারে উইঘুর মুসলিমদের নির্যাতনের ভয়াবহ তথ্য ফাঁস করেন। বর্তমানে ওই গোয়েন্দা কর্মকর্তা পরিবার পরিজন ফেলে ইউরোপের একটি দেশে আশ্রয় নিয়েছেন। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে বন্দী উইঘুরদের প্রতি তিনি নিজে যে বীভৎস নির্যাতন চালিয়েছেন তার জন্য তিনি অনুতপ্ত। এ দুঃসহ স্মৃতি তাকে এখনো তাড়া করে এবং রাতে ঘুমাতে দেয় না। তিনি জানান, ‘স্বীকারোক্তি আদায়ের জন্য প্রায় প্রতিটি বন্দীকে পেটানো হতো। বৃদ্ধ, নারী এমনকি ১৪ বছরের কিশোরও এ ক্ষেত্রে বাদ পড়ত না। স্বীকারোক্তি আদায়ে একেকজন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য একেকটা পন্থা অবলম্বন করতেন। কেউ বন্দীকে পানিতে ডোবাতেন, কেউ ইলেকট্রিক শক দিতেন, কেউ বিবস্ত্র করে পেটাতেন, কেউ যৌন নির্যাতন করতেন, কেউ বা অন্য বন্দীদের দিয়ে বন্দীদের গণধর্ষণ-বলাৎকার করাতেন। এরপর স্বীকারোক্তি আদায় হলে পরবর্তী পর্যায়ে বন্দীদের ডিটেনশন ক্যাম্প বা কারাগারে রাখা হতো। যেখানে তাদের জোরপূর্বক স্বেচ্ছাশ্রমে বাধ্য করা হতো।’ এই গোয়েন্দা কর্মকর্তা জানান, ‘২০১৪ সালে উইঘুর মুসলিমদের দমনে চীন সরকার মূল ভ‚খণ্ড থেকে এক লাখ ৫০ হাজার পুলিশ সদস্য নিয়ে একটি বিশেষ বাহিনী গঠন করে। অফিসারদের জানিয়ে দেয়া হয় – উইঘুররা হলো ‘চীনের শত্রু’, তাই তাদের দমন করতে হবে। সেই লক্ষ্যে পূর্ব থেকে একটি তালিকা তৈরি করা থাকত। তালিকা অনুযায়ী একেক দিন একেক এলাকায় অভিযান চালিয়ে উইঘুরদের আটক করা হতো। এর বাইরে গ্রাম প্রধানের মাধ্যমে আলোচনায় বসার কথা বলেও গণহারে গ্রেফতার করা হতো। আর এর ওপরেই নির্ভর করত পুলিশের প্রমোশন’। তিনি বলেন, ‘পুলিশে ১০ বছর চাকরি করেও প্রমোশন না পেলেও উইঘুর দমনে কাজ করায় স্বল্প সময়েই কয়েকবার প্রমোশন পেয়েছেন তিনি’ (সিএনএন, ৫ অক্টোবর ২০২১, অনুবাদ : শফিকুল ইসলাম শান্ত, দৈনিক আমাদের সময়, ঢাকা, ৬ অক্টোবর ২০২১)।

চীন ভিন্ন ধর্মাবলম্বী ও ভিন্ন মতাবলম্বীদের বরদাশত করতে পারে না। কমিউনিস্ট পার্টির অধীনে উগ্র জাতীয়তাবাদ বিকশিত হচ্ছে। বিবিসি জানায়, চীনে কর্মকর্তাদের অনুরোধের পর অ্যাপল বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় ‘কুরআন মজিদ’ চীনা অ্যাপ স্টোর থেকে সরিয়ে নিয়েছে। সারা বিশ্বে অত্যন্ত জনপ্রিয় এই ‘কুরআন মজিদ’ অ্যাপের রিভিউয়ের সংখ্যা দেড় লাখের মতো। চীনে তাদের প্রায় ১০ লাখর ব্যবহারকারী রয়েছে। সারা বিশ্বের সাড়ে তিন কোটিরও বেশি মুসলিম এ অ্যাপটি ব্যবহার করেন এবং এর ওপর আস্থা রাখেন। চীনা কমিউনিস্ট পার্টি ইসলামকে একটি ধর্ম বলে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকার করলেও চীনের শিনজিয়াং প্রদেশে উইঘুর মুসলিমদের মানবাধিকার লঙ্ঘন, ধর্ষণ, এমনকি গণহত্যার জন্যে চীনকে দায়ী করা হয়। বহু ইমাম ও খতিবকে গুম করা হয়েছে।

কমিউনিস্ট শাসিত চীন বর্তমানে বিশ্বের অন্যতম পরাশক্তি। সামরিক ও অর্থনৈতিক দিক দিয়ে আগামী পাঁচ-সাত বছরে যুক্তরাষ্ট্রকে ছাড়িয়ে শীর্ষস্থান দখল করে নেবে। পুরো মুসলিম বিশ্ব চীনা ঋণের ফাঁদে আটকা পড়েছে। মুসলিম রাষ্ট্রে অবকাঠামোগত উন্নয়নে চীনের বিনিয়োগ কোটি কোটি ডলার। উইঘুর মুসলিমদের ভয়ঙ্কর নির্যাতন বন্ধে টুঁ শব্দ করার সক্ষমতা বা সাহস ওআইসি, আরব লিগ বা কোনো মুসলিম রাষ্ট্রের নেই। জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্টে ইয়োহান ভুল্ফগাং ফন গ্যেটে ইউনিভার্সিটির সেন্টার ফর গ্লোবাল ইসলামিক রিসার্চের পরিচালক প্রফেসর ড. সুজানে শ্র্যোটার শিনজিয়াং নিয়ে মুসলিম দেশগুলোর দৃষ্টিভঙ্গি বিশ্লেষণ করে বলেন, ‘ইরান চীনা নীতির সমালোচনা করে না। ইরান থেকে তেলের সবচেয়ে বড় আমদানিকারক চীন, ইরানের তেল ও গ্যাস খাতেও চীন বিপুল বিনিয়োগ করে। ইরানের সাথে বাণিজ্য সম্পর্ক আরো প্রসারিত করছে দেশটি। অর্থনৈতিক কারণে চীনের সাথে পাকিস্তান ও সৌদি আরবের সম্পর্কও বেশ ভালো। যুবরাজ মুহাম্মদ বিন সালমান চীনা সংখ্যালঘু বিষয়ক নীতির প্রশংসাও করেছেন। অন্য আরব দেশগুলোরও অবস্থান একই রকম। এ ক্ষেত্রেও অর্থনৈতিক সম্পর্ক একটি বড় কারণ। তা ছাড়া অনেক ইসলামী দেশ পরিচালিত হয় অগণতান্ত্রিক সরকার দ্বারা। ফলে তাদের প্রায়ই মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য পশ্চিমা দেশগুলোর সমালোচনার মুখে পড়তে হয়। মিসর, উপসাগরীয় নানা দেশ, পাকিস্তান, ইরান ও অন্যান্য বেশ কয়েকটি দেশের ক্ষেত্রে একই কথা প্রযোজ্য। অন্য দিকে চীন মানবাধিকার সম্পর্কিত বিষয়ে মোটেই আগ্রহী নয়। ফলে চীনের সাথে যেকোনো দেশই একে অপরের অভ্যন্তরীণ নীতি নিয়ে সমালোচনার ভয় না করেই ব্যবসা করতে পারে’ (ডয়চে ভেলে, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৯)।

চীনের আগ্রাসী ও সাম্রাজ্যবাদী চরিত্র প্রকাশ পাচ্ছে ধীরে ধীরে। তাইওয়ান, তিব্বত ও হংকং এর জ্বলন্ত দৃষ্টান্ত। এক নিপীড়ক আরেক নিপীড়ককে পছন্দ করে। চীনের পছন্দের সরকার রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত থাকলে দেশে দেশে মুসলিম নির্যাতনের মাত্রা বাড়তে পারে; এ আশঙ্কা অমূলক নয়। ইতিহাস সাক্ষী ব্রিটিশ, রুশ, ফ্রান্স, স্পেন, পর্তুগাল ও আমেরিকা নিজেদের নিয়ন্ত্রণাধীন ঔপনিবেশিক মুসলিম অঞ্চলের জনগণের ওপর দমন-নিপীড়ন চালিয়েছে। সম্পদ লুটেপুটে খেয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র সামরিক আগ্রাসন চালিয়ে মুসলিম বিশ^কে ছারখার করে দিয়েছে। ভিয়েতনাম ও আফগানিস্তান ছাড়া অন্য কোনো দেশ থেকে মার্কিনিরা তাড়া খায়নি। আগামী দিনের বিশ্ব চীনকে ঘিরে নতুন অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করবে। চীনের ক্রমবর্ধমান সামরিক ও অর্থনৈতিক উত্থান শান্তিকামী মুসলমানদের শঙ্কিত করে তুলছে। মুসলমানদের আরো দুর্দশা ও নিপীড়ন অপেক্ষা করছে। নিপীড়ন ঠিকই থাকবে, কেবল বদল হবে নিপীড়নকারীর। তবে ইতিহাস প্রমাণ করে, দেড় হাজার বছরে সর্বদা বৃহৎ শক্তির সাথে লড়াই করে ইসলাম আপন মহিমায় বিশ্বে মর্যাদার আসনে সমাসীন রয়েছে। আগামী দিনেও থাকবে।

পবিত্র কুরআনে আল্লাহর ঘোষণা স্পষ্ট, ‘তারা মুখের ফুৎকারে আল্লাহর আলো নিভিয়ে দিতে চায়। আল্লাহ তাঁর আলোকে পূর্ণরূপে বিকশিত করবেন যদিও কাফেররা তা অপছন্দ করে। (সূরা সফ-৮)

লেখক : অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক ও গবেষক

সূত্রঃ দৈনিক নয়া দিগন্ত

Previous articleসেমিতে নিউজিল্যান্ড, আফগানদের সাথে ভারতেরও বিদায়
Next articleমুন্সীগঞ্জে প্রকাশ্যে ব্যাংক এশিয়ার এজেন্টকে কুপিয়ে হত্যা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।