বাংলাদেশ ডেস্ক: ব্রিটেন ও ফ্রান্সের মধ্যবর্তী সাগরে ইংলিশ চ্যানেলে রাশিয়ার এক কার্গো জাহাজ আটক করেছে ফ্রান্সের নৌবাহিনী। শনিবার ব্রিটেনভিত্তিক সংবাদমাধ্যম বিবিসিতে এই খবর জানানো হয়।

খবরে বলা হয়, জাহাজটি রুশ বন্দর সেন্ট পিটার্সবার্গের দিকে যাচ্ছিলো।

ফরাসি কর্মকর্তারা বিবিসিকে বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের আরোপিত নতুন নিষেধাজ্ঞার আলোকেই জাহাজটি আটক করা হয়েছে। জাহাজটিকে বর্তমানে উত্তর ফ্রান্সের বুলন-সুর-মের বন্দরে রাখা হয়েছে।

কর্মকর্তারা জানান, ‘বাল্টিক লিডার’ নামের ১২৭ মিটার দীর্ঘ কার্গো জাহাজটি গাড়ি বহন করছিলো। রাতে এটিকে আটক করে নৌবাহিনী ফ্রান্সে নিয়ে আসে।

কর্মকর্তারা বলেন, ‘মস্কোর বিরুদ্ধে ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকা এক কোম্পানির সংশ্লিষ্টতার সন্দেহে ফরাসি সরকারের অনুরোধে জাহাজটি আটক করে বন্দরে নিয়ে আসা হয়। ফরাসী সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্তমানে কার্গো জাহাজটির বিষয়ে তদন্ত করছে। বাল্টিক লিডারে থাকা কর্মীরা ফরাসি কর্তপক্ষের সাথে সহযোগিতা করছে।’

এদিকে রাশিয়ার বার্তা সংস্থা আরআইএ নিউজ এজেন্সি জানায়, ফ্রান্সের এই পদক্ষেপ সম্পর্কে দেশটিতে রুশ দূতাবাস কারণ জানতে চেয়েছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার পূর্ব ইউক্রেনে রুশপন্থী বিদ্রোহীদের সহায়তায় রুশ স্থল, নৌ ও বিমান বাহিনীকে পূর্ণমাত্রায় অভিযান চালানোর নির্দেশ দেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

গত ১৭ ফেব্রুয়ারি থেকে পূর্ব ইউক্রেনের রুশপন্থী বিদ্রোহী ও সরকারি বাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। এর জেরে সোমবার বিদ্রোহীদের দুই রাষ্ট্র ‘দোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিক’ ও ‘লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিক’কে স্বীকৃতি দিয়ে শান্তি রক্ষায় রুশ সৈন্য পাঠানোর নির্দেশ দেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

২০১৪ সালে ইউক্রেনে রুশপন্থী সরকারের পতনের পর রাশিয়া দেশটিতে আগ্রাসন চালিয়ে ক্রিমিয়া অঞ্চলটি দখল করে নেয়। পাশাপাশি মস্কোর পৃষ্ঠপোষকতায় পূর্ব ইউক্রেনে বিপুল অঞ্চল দখল করে নেয় বিচ্ছিন্নতাবাদী বিদ্রোহী গোষ্ঠী।

পূর্ব ইউক্রেনে রুশপন্থী বিদ্রোহীরা দুই রাষ্ট্র ‘দোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিক’ ও ‘লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিক’ প্রতিষ্ঠা করে।

রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে এই সংঘর্ষ বন্ধে ফ্রান্স ও জার্মানির মধ্যস্থতায় ২০১৪ সালে বেলারুশের মিনস্কে ইউক্রেন ও রাশিয়া এক চুক্তি করে।

মিনস্ক চুক্তি অনুযায়ী এই অঞ্চলে দুই পক্ষের মধ্যে যুদ্ধবিরতি, বন্দি বিনিময় ও দোনবাস অঞ্চল থেকে রুশপন্থী বিদ্রোহীদের সরে যাওয়ার বিষয় যুক্ত ছিলো। দোনবাস অঞ্চল থেকে রুশপন্থী বিদ্রোহীরা সরে গেলে ইউক্রেনের ওই অঞ্চলে গণভোটের ব্যবস্থা করবে।

কিন্তু পরস্পরের প্রতি সহিংসতার অভিযোগের জেরে এই চুক্তি আর বাস্তবায়িত হয়নি।

এরই মধ্যে ২০২০ সালে ইউক্রেন যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বের ন্যাটো সামরিক জোটের ‘ইনহ্যান্সড অপারচুনিটি পার্টনার’ পদ পেলে রাশিয়া ক্ষুব্ধ হয়। নিজ দেশের সীমান্তে ন্যাটোর সম্প্রসারণের শঙ্কায় রাশিয়া ইউক্রেনের যুক্তরাষ্ট্রের এই সামরিক জোটে যোগ দেয়ার বিরোধিতা করছে।

গত বছরের ডিসেম্বরে ইউক্রেন সীমান্তে রাশিয়ার সৈন্য সমাবেশের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদনের পর উত্তেজনা নতুন করে বাড়ে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রায় এক লাখ সৈন্য ইউক্রেন সীমান্তে মোতায়েন করেছে মস্কো।

যুক্তরাষ্ট্র দাবি করছে, ইউক্রেনে হামলার জন্যই রাশিয়া ওই সৈন্য সমাবেশ করেছে। কিন্তু রাশিয়া এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলছে, সামরিক বাহিনীর মহড়ার অংশ হিসেবে ওই সৈন্য সমাবেশ করা হয়েছে।

পরে কিছু সৈন্য সরিয়ে নেয়ারও ঘোষণা দেয় রাশিয়া।

কিন্তু তাতেও ইউক্রেন ও পশ্চিমা দেশগুলো আশ্বস্ত না হয়ে ইউক্রেন সীমান্ত থেকে সব সৈন্য সরিয়ে নেয়ার আহ্বান অব্যাহত রাখে।

পরে ১৭ ফেব্রুয়ারি রুশপন্থী বিদ্রোহীদের সাথে শুরু হওয়া ইউক্রেনীয় সামরিক বাহিনীর সংঘর্ষের জেরে ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে আগ্রাসন শুরু করে রাশিয়া। রাশিয়ার এই পদক্ষেপের জেরে দেশটির বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, অস্ট্রেলিয়া, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ বিভিন্ন দেশ ও সংস্থা বিভিন্ন প্রকার নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।

সূত্র : বিবিসি

Previous articleটাঙ্গুয়ার হাওরের রাজারদাইড়ে বিষ প্রয়োগে মৎস্য নিধন, ধ্বংস হচ্ছে জীববৈচিত্র্য
Next articleমেঘনার মোহনায় নতুন চরে সবুজ বেস্টনী সৃজনের লক্ষ্যে ম্যানগ্রোভ চারা রোপন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।