বাংলাদেশ ডেস্ক: বিশ্বখ্যাত ইসলামী স্কলার ও মিসরের আল আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্র্যান্ড ইমাম ড. শায়খ আহমাদ আত তাইয়েবের উপস্থিতিতে ইসলাম গ্রহণ করলেন এক ব্রিটিশ তরুণী।

গত শনিবার মিসরে তিনি ইসলামে প্রবেশ করেন। ওই তরুণী মিসরীয় যুবক মাহমুদ হুসাইনকে বিয়ে করেন। তার স্বামীই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের এক পোস্টে স্ত্রীর ইসলাম গ্রহণের বিষয়টি নিশ্চিত করলেন।

ওই পোস্টে মিসরের হারগাদা শহরের বাসিন্দা মাহমুদ হুসাইন তার স্ত্রীর ইসলাম গ্রহণের কয়েকটি ছবিও শেয়ার করেন। তাতে দেখা যায়, স্ত্রী ইসলামে দীক্ষিত হওয়ার পর তারা উভয়ে শায়খুল আজহারের পাশে অবস্থান করছেন।

ছবিগুলোর ক্যাপশনে মাহমুদ হুসাইন লিখেন, ‘আল্লাহু আকবার। সমস্ত প্রশংসা আল্লাহ তায়ালার জন্য যিনি তাঁর উত্তম নেয়ামত দ্বারা পরিপূর্ণ করেছেন। আল্লাহ আমার স্ত্রীকে ইসলামের প্রতি হেদায়েত দিয়ে আমাদের ওপর অনুগ্রহ করলেন।’ পোস্টে তিনি শায়খুল আজহারসহ সমগ্র মুসলিম উম্মাহর জন্য দোয়া করেন।

মিসরের কয়েকটি স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের সূত্রে আলজাজিরা জানায়, ব্রিটিশ ওই তরুণীর নাম ছিল ক্যারি রাইট। কিন্তু ইসলামে দীক্ষিত হওয়ার পর এই নাম পরিবর্তন করে মহানবী সা:-এর মেয়ের সাথে মিলিয়ে নিজের নতুন নাম রেখেছেন রুকাইয়াহ।

রুকইইয়াহর স্বামী মাহমুদ হুসাইন জানান, তার স্ত্রী আদি ব্রিটিশ নাগরিক। স্ত্রী সাত মাসের মতো মিসরে অবস্থান করেন, তখন-ই তাদের পরিচয়। এ সময় রুকাইয়াহকে তিনি ইসলামের প্রকৃত অবস্থা তুলে ধরেন।

তিনি আরো জানান, পশ্চিমা সংবাদমাধ্যম ইসলামকে যেভাবে ‘উগ্রবাদে’র সাথে সম্পৃক্ত করে উপস্থাপন করে, তা থেকে দূরে থেকে রুকাইয়াহ ইসলাম সম্পর্কে জানে। কেননা, যখন সে মিসরে মুসলিমদের বাস্তবিক জীবনাচার প্রত্যক্ষ করে, তখন সে ইসলামের সৌন্দর্য দেখতে পায়।

মাহমুদ হুসাইন বলেন, রুকাইয়াহর পরিবারের বেশিরভাগ সদস্য খ্রিস্টধর্মের অনুসারী। তবে কেউ কেউ আছেন যারা কোনো ধর্মেই বিশ্বাস করেন না। তবে বিশ্বাসের ক্ষেত্রে তাদের সবার স্বাধীনতা আছে। রুকাইয়াহর ইসলাম গ্রহণের খবর শুনে পরিবারের অন্যান্য সদস্য তাকে অভিনন্দন জানান।

সূত্র : আলজাজিরা

Previous articleসম্রাট ফের কারাগারে
Next articleসাপাহার সদর ইউনিয়নে উম্মুক্ত বাজেট সভা অনুষ্ঠিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।