বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ৩ হাজার ৬০০ কোটি টাকা পাচারের অভিযোগ মাথায় নিয়ে বিদেশে পলাতক ব্যাংকার পিকে হালদারের মা লীলাবতী হালদার ও সহযোগী অমিতাভ অধিকারীসহ ২৫ জনের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন হাইকোর্ট।

মঙ্গলবার (৫ জানুয়ারি) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি আহমেদ সোহেলের সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল বেঞ্চে এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক।

আদালতে এ দিন রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক, সঙ্গে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মেহেজাবীন রাব্বানি দিপা ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল আন্না খানম কলি।

অন্যদিকে দুদকের পক্ষে ছিলেন মো. খুরশীদ আলম খান। এছাড়া ছিলেন আইনজীবী মো. মোশাররফ হোসেন।

ভুক্তভোগী বিনিয়োগকারী ড. নাশিদ কামাল বলেন, ‘আমরা সব সময় শুনছি যে এই নামগুলো জড়িত, সেই নামগুলো আমরা তাদের কাছে দিয়েছি। তারা কেউ বিদেশ যেতে পারবে না। এটা আমরা কোর্টে কাছে সাহায্য চেয়েছি যে যখন তাদের ডাকা হবে তখনই যেন তারা আসে। কোর্ট সেটা গ্রহন করেছে।’

দুদকের আইনজীবী অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান বলেন, ‘দুদক যদি কোন তথ্য পায়, যদি পিকে হালদার সরাসরি কোন মানি লণ্ডারিং কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকে তাহলে অবশ্যই গ্রেফতারে কোন বাধা নেই।’

ডেপুটি অ্যার্টনি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক বলেন, ‘যেকোন মুহূর্তে রেড নোটিশটা জারি হতে পারে আর উনি যেহেতু পলিটিকাল পার্সন না সুতরাং এটি ক্রিমিনাল হিসেবে চিহ্নিত হতে পারে।’

পাচার হয়ে যাওয়া অর্থ ফিরিয়ে আনতে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে আদালত বলেন, ‘বিদেশে শত শত কোটি টাকা পাচার হচ্ছে, বাংলাদেশ ব্যাংক কী করছে। এত কিছু হচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক কেন কিছু করছে না ? তারা শুধু অফিসে এসে বসে থাকবেন, কিছু করবেন না তা তো হয় না। বাংলাদেশ ব্যাংক অর্থপাচারের দায় এড়াতে পারে না।’

এদিকে, একইদিন সকালে পিকে হালদারের বিরুদ্ধে রেড এলার্ট জারির জন্য ইন্টারপোলে চিঠি পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ সদর দফতর।

গত বছর দুদক অবৈধ ক্যাসিনো মালিকদের সম্পদের তদন্ত শুরু করলে পি কে হালদারের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠে আসে। চলতি বছর ৮ জানুয়ারি দুদক অজ্ঞাত সূত্র থেকে প্রায় ২৭৪ কোটি ৯১ লাখ টাকার সম্পত্তি অর্জনের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলা করে।

ইন্টারন্যাশনাল লিজিং থেকেই এক হাজার ৫০০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে পি কে হালদারের বিরুদ্ধে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে সব মিলিয়ে প্রায় তিন হাজার ৫০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করার প্রাথমিক প্রমাণ পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন।

গত ১০ ফেব্রুয়ারী অর্থপাচার মামলায় পিকে হালদার ও তার পরিবারের ৮ সদস্যসহ পিপলস লিজিংয়ের ১২ জনের স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ, ব্যাংক হিসাব ও পাসপোর্ট জব্দ রাখার আদেশ আপিল বিভাগে বহাল থাকে।