বিয়োগ কোনো যন্ত্রণার নাম নয়

বিয়োগ যদি যন্ত্রণার নাম হবে-
তবে মৃত্যু কেনো লেখা হয় জন্মাবার আগে?
মহালোক জুড়ে আছে পিরীতের দাপাদাপি,
যাকে বলো ভালোবাসা,
সেতো দেখি নষ্ট কথা দিয়ে ঠাসা।
‘তুমি ঈশ্বরের দেয়া শ্রেষ্ঠ উপহার’
খোঁজ নিয়ে দেখো,শয়তানের কারবার।
এইসব দূরাচারী আয়োজন,
তারপরও কিছুটা প্রয়োজন।
কেউ কেউ সত্যিই আসে,ধীর আগমনে-
সত্যি সত্যিই ভালোবাসে।
তখন আকাশ থেকে নেমে আসে বর্ণহীন আলো,
সারাক্ষণ অনুভব জুড়ে থাকে সব খানি ভালো।
পরস্পর ছায়া হয় একে অপরের,
ভাগাভাগি চায়ের পেয়ালা, দুধের সরের।
ভাষাহীন ভাষা, কুলহীন ভালোবাসা
দিন কাটে বেদনা বিহীন।
কিন্তু অনিবার্য বিচ্ছেদ লেখা আছে ভুলে যায়,
ঠিক তখনই যবনিকা নেমে আসে,
হারায়! হারায়!কুল-কিনারাহীণ করে দিয়ে –
চিরতরে চলে যায়
আর আসে না।

 কাব্যের জন্মস্থান

সহস্র বঞ্চনার দ্বীপে বেড়ে উঠে অগুনতি বেদনার বৃক্ষ,
তিক্ত ফলবতী মেহগনি গাছের মতো।
সে গাছে পাখি বসে না, তার ফুল ছড়ায় না সুবাস,
সে বৃক্ষ সারবান,টিকে থাকে অজস্র বছর।
বঞ্চনা আর বেদনা সহোদর, ওরা কাব্যের উপাদান।
তাই তো জন্ম নেয় গান।
ব্যাধ তাড়িত ভয়ার্ত হরিণীর শেষ আশ্রয় ঝোপের আড়াল,
যখন সে চেয়ে দেখে, এখানেও ধেয়ে আসে শিকারী প্রবল,
হায়রে অসহায় প্রাণী!কিছুই করার নেই,
প্রচন্ড গগনবিদারী চিৎকার, কেঁপে ওঠে বনভূমি, সেরকম-
কষ্ট থেকে,
জন্ম নেয় গজলের ভ্রুণ।
ধীরে ধীরে বেড়ে উঠে কবিতার শরীর,
সুরকার মগ্ন হয়, সুর বাঁধে,
বেদনার্ত শ্রোতার জন্য তৈরি হলো বাঁচার রসদ।
তাই বুঝি কবি বলেন,’অনন্ত বিরহ দাও,ভালোবেসে কার্পণ্য শিখিনি।’

Previous articleতোমার অতলে : গোলাম কবির
Next articleবিশ্বকাপ খেলতে গিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটার দানুশকা আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।