বৃহস্পতিবার, মে ২৩, ২০২৪
Homeসাহিত্যকবিতাকবি নুরুল হুদা পলাশের তিনটি কবিতা

কবি নুরুল হুদা পলাশের তিনটি কবিতা

সময়টাই একমাত্র ধ্রুব সত্যি
(ইট ইজ নেভার টু লেট্)

মাখনলাল, আমাদের ক্লাসের সবচেয়ে মেধাবী ছেলেটি
বরাবরই প্রথম ছিল, সবার আগে চাকুরী হলো
ছয় ডিজিটের বেতনের, গাড়ি, বাড়ি, ড্রাইভার
বিদেশ ভ্রমণ, নীল রঙের কোটের সাথে বাদামি টাই
মেধার দৌলতে প্রোমোশনের সব সিঁড়ি ডিঙিয়ে সবার আগে উঠে গেলো সাফল্যের চূড়োয়।
আমরা শুধু আহা মাখনলাল ! হায় মাখনলাল ! করে জীবনের অর্ধেকটা কাটিয়ে দিলাম।
সেই মাখনলাল একদিন কাউকে কিছু না জানিয়ে মাত্র ছিচল্লিশ বছর বয়সে ফুটুস করে মারা গেলো।
ওদিকে পাশের গ্রামের ওয়ালিউল্লাহ চাচা শুনেছি টেটুমেপা তারপরে আদুভাই হয়ে ডিগ্রি পাস্
কেরানির চাকুরী, সাদামাঠা জীবন পঁয়ষট্রি বছর বয়সে অবসরে গেছেন
আজ থেকে ত্রিশ বছর আগে। এখনো কি সুঠাম দেহ, ছিমছাম চেহারা, হাসিখুশি
এক গাদা নাতি নাতনি, পান চিবানো ঠোঁটের আড়ালে ছড়িয়ে থাকে অমূল্য হাসি।
গ্রূপের সবচেয়ে সুন্দরী মেয়েটি, অনামিকা, দ্বিতীয় বর্ষ না পেরোতেই
ধুমধাম করে বিয়ে হয়ে গেলো, ছেলে আমেরিকা প্রবাসী, পাত্র কি করে জানা ছিলোনা যদিও।
অনামিকার বিয়েতে হিংসে করেই ক্লাসের অনেকগুলো মেয়ে গেলোনা
ছেলেদের কেও কেও নীরবে নিভৃতে দুফোটা অশ্রু ঝড়ালো হয়তো।
সেই অনামিকা এখন কোথায় আছে কেও জানেনা, খোঁজও রাখেনা।
কিন্তু অংকে পড়া ঐযে লিকলিকে শ্যামলা মেয়েটি, ঐযে মনে আছে?
মনে না থাকলেও সমস্যা নাই মনে করিয়ে দিচ্ছি
আজকের দিনে সকল খবরের কাগজে যাদের নাম আর ছবি না ছাপা হলে
পত্রিকাই বিক্রি হয়না, জনপ্রিয়তার তুঙ্গে এখন সোহেল- শাপলা জুটি,
একজন পুলিশের ডিআইজি আর আরেকজন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব, সেই শ্যামলা মেয়েটি।
সুকান্ত মাত্র একুশ বছর বেঁচে কি দারুন কবিতা লিখে হয়ে গেলেন মহান
লতা মঙ্গেশকর, বারোতেও যেমন ছিলেন এখন বেরানব্বইতেও তেমনি,
জাপানী লেখক মিশিমা একাশি বছর বয়সে প্রথম উপন্যাস লিখে ছিনিয়ে নিলেন
শ্রেষ্ঠ উপন্যাসিকের খেতাব, পেলেন সাহিত্যে নোবেল।
আমাদের বিল্টু পড়ালেখা শেষ করার আগেই পৈতৃক সূত্রে হয়ে গেলো বিরাট কোম্পানির সিইও
আর অনেক মেধাবী হাক্কানি পঞ্চাশেও কোনো স্থায়ী চাকুরীর মুখ দেখলোনা।
কে একজন বাইশে ডিগ্রি শেষ করে চাকুরীর জন্যে বসে রইলো ছয় বছর
তারই আরেক সহপাঠী ডিগবাজি খেতে খেতে কোনো রকমে শেষ করলো সাতাশে কিন্তু
চাকুরী পেয়ে গেলো সাথে সাথেই।
সারাজীবন দৌড়াতে দৌড়াতে সামনের সারিতে থাকা নীলিমার ছেলেমেয়েগুলোর
কেউই বিশ্ববিদ্যালয়ের চৌকাঠ পেরোতেই পারলোনা
তারই বান্ধবী সপ্তর্ষি সারাজীবন পিছন বেঞ্চেই ছিল, সন্তানদের পিছনেই কাটিয়ে দিলো
পুরোটা জীবন আর তার চোখে মুখে আজ পরিতৃপ্তি আর গৌরবের হাসি।
ওবামার কথাই বলি না হয়, পঞ্চান্নতেই নিলেন অবসর আর ট্রাম্প? শুরুই করলেন সত্তুরে।
আমাদের চারিপাশে কতজন এগিয়ে গেলো কতজন পিছিয়ে পড়লো,
কেও দৌড়াতে দৌড়াতে থেমে গেলো আর কেওবা হামাগুড়ি দিতে দিতে পৌঁছে গেলো সাফল্যের শিখরে।
আসলে আমরা কেওই এগিয়ে নেই কারো থেকে অথবা কেওই পিছিয়ে নেই কারো থেকে।
সবাই সবার নিজ নিজ দৌড়ে জয়ী হবার প্রত্যয়ে আগুয়ান।
এই আপাতঃ প্রতিযোগিতার দৌড়ে আসলে সময়টাই একমাত্র ধ্রুব সত্যি বাকি সবই আপেক্ষিক।
“আমার অনেক দেরি হয়ে গেছে” এই কথাটি ঠিক নয়, ঠিক কথা হলো আপনার সময় হয়নি এখনো।
পাশের জনের দৌড়ের দিকে না তাকিয়ে নিজের দিকে তাকান।
আপনি যখন শুরু করবেন তখনি আসলে সময়, সঠিক সময় আপনার।
সবই প্রস্তুত বাকি শুধু আপনার শুরুটাই, ইট ইজ নেভার লেট্।

টেটুমেপা* : টেনে টুনে মেট্রিক পাশ

ওরা ওদের মতোই বেড়ে উঠুক

আমাদের ছেলেমেয়েরা আমাদের কাছে
অমন ছোট্র হয়েই থাকুক সারাটি জীবন,
ওদেরকে ছোট্র হয়েই থাকতে দাও যতদিন পারো,
ওরা ওদের মতোই হোক,
বেড়ে উঠুক মমতার চাদর গায়ে।
কখনো রাজকুমারী, জলদস্যু, সুপারম্যান
হোক ওরা এমন অনেক কিছুই
যখন যা হতে চায় ওদের মন।
ওরা আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকুক,
মেঘের ভেলায় খুঁজুক ওদের স্বপ্নরাজ্য,
বৃষ্টিতে ওরা ময়ূরের মতো পেখম তুলে নাচুক,
গলা ছেড়ে গাঁকনা ওদের কোনো গান।
অনেক বড় স্বপ্ন দেখুক ওরা,
সত্যিই বড় স্বপ্ন দেখতে দাও
আকাশ ছুঁয়ে হারিয়ে যাক দূর নীলিমায়,
ওদের শুভেচ্ছা বার্তা পৌঁছে যাক নীহারিকা থেকে নীহারিকায়।
গাড়ীর জানালা খুলে এলো চুলে বুক ভরে নিক বাতাস না হয়।
ওরা খালি পায়ে সবুজ ঘাসে হাঁটুক,
সবুজ ঘাসের নরম ডগা ওদের পায়ের তালুতে সুড়সুড়ি দিক,
জীবনে একটা সময় এই ক্ষুদ্র জিনিসগুলো ওরা খুব অনুভব করবে।
বুকের মধ্যে আঁকড়ে ধরে ওদের অনেক বেশি আদর করো
ওদের চুলে মুখ গুজিয়ে প্রিয় ফুলের গন্ধ নাও,
গোলাপ কিংবা হাস্নাহেনাও
হারমানাবে ওদের কাছে।
অহেতুক তাড়াহুড়ো করতে দিওনা ওদের,
থমকে দিওনা ওদের নিজস্ব ভাবনার গতি
ওদের ওপরে মিছেমিছি হোম ওয়ার্কের চাপ দিওনা,
ওদেরকে ওদেরমতো থাকতে দাও,
বেড়ে উঠুক আপন মনে, আদর, মমতা, ভালোবাসায়।
ওদের সকালের নাস্তাগুলো একদিন নাহয়
তোমার পরিষ্কার বিছানায় ঢেলেই ফেলুক,
নাহয় একদিন পুড়িয়েই ফেলুক তোমার প্রিয় দামি টোস্টার
একদিন এসবই তুমি অনেক বেশি মিস করবে।
যদি পারো, ওদের অন্যের সেবা করতে শেখাও,
ভালো বন্ধু হতে শেখাও,
কাউকে একটুও কষ্ট না দিয়েও কি করে বড় হওয়া যায়
বেঁচে থাকা যায়, ওদেরকে সেটাই শেখাও।
এসব শিখলে ওরা দেখবে পৃথিবীময়
শুধুই ভালোবাসাবাসি আর কিছু নয়।
তাই বাচ্চাদের বাচ্চা হতে দাও,
ওরা ওদের মতোই বেড়ে উঠুক,
শঙ্কাহীন চিত্তে, উচ্ছাসে, উদ্দীপনায়।
তবেই ওদের বিচরণে আমাদের এই পৃথিবী তোমার আমার সবার জন্যে
আরো অনেক বেশি বাসযোগ্য হয়ে উঠবে।

আমার আত্মজ আমার ছায়া

আমার ছেলে আমার আত্মজ, আমার প্রতিকৃতি, আমার ছায়া
ওর দিকে যখনি তাকাই আমি যেন আমাকেই দেখি
আমি দেখি আমার অতীত, বর্তমান, অনাগত ভবিষ্যৎ।
ওর জামা পরা, প্যান্ট পরা, চুল আঁচড়ানো,
ওর কোঁকড়া চুলের ভাঁজে পৃথিবীর হাজারো অবাক বিস্ময় ।
লুকিয়ে লুকিয়ে মুখে শেভিং ক্রীম মেখে দাড়ি কাটে,
আফটার সেভ এর গন্ধ, পারফিউম, এন্টিপারস্পিরান্ট আরো কত কি।
কিছুদিন আগেও আমি যখন সেভ করতাম ও লুকিয়ে আমাকে দেখতো
এখন নিজেই সেটা করে, আর লুকিয়ে দেখে আমি ওকে দেখছি কিনা।
সুযোগ পেলেই বাইক নিয়ে বেড়িয়ে পরে, যেমন পড়তাম আমি।
ওর মা প্রায়ই আমাদের দুজনের জন্যে একই রকম শার্ট কিনে
ও পরতে চায়না, বলে ও পোশাকে বাবার টুইন হতে চায়না
পরতে চায়না বললেও পরে, একবার আমার দিকে, একবার মায়ের দিকে
আরেকবার নিজের দিকে তাকায়।
নিজের মধ্যে বাবার ছাঁয়া সেও কি খুঁজে ? খুঁজে কি পায় ?
সারাক্ষন আমাদের স্পর্শ পেতে চায়, সুযোগ পেলেই জড়িয়ে ধরে,
এই বাপ্যারটি একটু একটু করে কমে আসছে এখন।
কদিন আগেও আমাকে দেখা মাত্রই জড়িয়ে ধরতো, ওর মাকেও
আস্তে আস্তে দূরত্ব টা বাড়ছে, জানি এটা মনের দূরত্ব নয়, শরীরের
এটাকেই বড় হওয়া বলে এভাবেই আমরা বেড়ে উঠি, বেড়ে উঠে সবাই।
সময়টা বড় নিষ্ঠুর, বড্ড নির্মম, কত দ্রুত পেরিয়ে যায়,
কেনোযে এই অসামান্য মুহূর্ত গুলোকে বেঁধে রাখা যায়না ?
এইতো আর কদিন, সেও বাবা হবে, যে কিনা ওর মতো করেই বেড়ে উঠবে
আমার মতো করেই সেও তখন তার আত্মজের মধ্যে নিজের ছায়া খুঁজবে।

*নুরুল হুদা পলাশ : কবি, কথাশিল্পী, গীতিকার এবং বিজ্ঞানী। বর্তমানে লস এঞ্জেলসে বসবাস করছেন। গত বইমেলায় তাঁর একটি গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। একাধিক পাণ্ডুলিপি প্রকাশের অপেক্ষায়।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments