কাগজ প্রতিবেদক:ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের উদ্দেশে নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম বলেছেন, আপনারা নিরাপত্তার জন্য চিন্তা করবেন না। একেবারে চৌকিদার থেকে সেনাবাহিনীর কেউ বাদ থাকবে না। নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় সবাই যুক্ত থাকবেন। আপনাদের দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই; আপনাদের জীবন, মালামাল নিয়ে। শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য আপনারা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে সবসময় যোগাযোগ রাখবেন। আপনার অনুমতি ছাড়া তারা যেন কোথাও যেতে না পারে সেদিকে লক্ষ্য রাখবেন।

শনিবার (০১ ডিসেম্বর) নির্বাচন ভবনে প্রশিক্ষকদের প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে তিনি এসব কথা বলেন।

রফিকুল ইসলাম বলেন, কেন্দ্রে আসতে পারবে কি-না, কেন্দ্রে গেলে তো ভোট দেবো, এ রকমও প্রশ্ন আসছে। এজন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আছে। দরকার হলে আমরা আরো ব্যবস্থা নেবো যাতে করে ভোটাররা ভোট দিতে কেন্দ্রে আসতে পারেন। তারপরও যদি কোনো এক্সিডেন্ট হয়, তাহলে আপনাদেরকে কথা দিচ্ছি আমরা তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেবো।

কর্মকর্তাদের উদ্দেশে তিনি আরো বলেন, সত্যিকার অর্থে নির্বাচন করেন আপনারা। নির্বাচনের প্লানিংটা করে নির্বাচন কমিশন ও সচিবালয়। আমাদের মান-সম্মান, ইজ্জত আপনাদের হাতে ন্যস্ত। নির্বাচনের সব দায়িত্ব আপনারা পালন করবেন।

প্রকাশ্যে ভোট দেওয়া বেআইনি উল্লেখ করে সংশ্লিষ্টদের এ ধরনের কর্মকাণ্ড অ্যালাউ না করার জন্য নির্দেশনাও দেন নির্বাচন কমিশনার। তিনি বলেন, আপনারা কাউকে ব্যালট পেপার দিয়ে দিলেন, উনি গোপন কক্ষে না গিয়ে প্রকাশ্যে ভোট দিলেন। আমার ভোট আমি প্রকাশ্যে দিয়েছি অসুবিধা কি? একথা অনেকেই বলতে পারেন। যেহেতু আইনে এটা পারমিট করে না। আপনারাও অ্যালাউ করবেন না। আপনাদের প্রশিক্ষণার্থীকেও (প্রিজাইডিং, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার) বলবেন- ডোন্ট অ্যালাউ ইট। কারণ এ ধরনের কর্মকাণ্ড বেআইনি এবং এ ধরনের কর্মকাণ্ড নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করে।