পাবনার সাঁথিয়ায় ধুলাউড়ি গণহত্যা দিবসে স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন বীরমুক্তিযোদ্ধা এ্যাড শামসুল হক টুকু

আব্দুদ দাইন: সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কীত সংদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাড. শামসুল হক টুঁকু এমপি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধবংস করার জন্য জাতির পিতাকে হত্যাকরা হয়েছিল । এখনও দেশীয় ও আন্তর্জাতিক চক্রান্ত চলছে। রাজাকার আল বদরদের নিয়ন্ত্রন করা গেলেও নিশ্চিহ্ন করা যায়নি। জঙ্গিদের আনাগোনা ও ষড়যন্ত্র অব্যাহত রয়েছে। তাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনার মশাল সামনের দিকে এগিয়ে নিতে হবে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে বিশে^র বুকে যে উন্নয়নের রোল মডেলে পরিনত করেছেন তার ধারাবাহিকতা রক্ষায় মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের সম্পৃক্ত হতে হবে। শুক্রবার পাবনার সাঁথিয়ায় ধুলাউড়ি গণহত্যা দিবস পালন উপলক্ষে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বেেলন। দিবসটি পালন উপলক্ষে গণহত্যা দিবস উদযাপন কমিটির উদ্যোগে ধুলাউড়ি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও দায়িত্বপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এসএম জামাল আহমেদ। শিক্ষক আলতাব হোসেনের সঞ্চালনায় আরও বক্তৃতা করেন সাঁথিয়া উপজেল চেয়ারম্যান ও সাঁথিয়া উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ দেলোয়ার, বীরমুক্তিযোদ্ধা সাইফুল আলম বাবলু, সাবেক কমান্ডার আফতাব উদ্দিন, আব্দুল লতিফ, ইউপি চেয়ারম্যার জরিফ আহমেদ মাষ্টার,মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সাঃ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান লেলিন প্রমুখ। এর আগে প্রধান অতিথি

শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি সৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ , ১মিনিট নিরবতা পালন ও মোনাজাত করেন। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ১৯৭১ সালের ২৭নভেম্বর রাজাকার আল বদরের সহায়তায় রাতের আধারে পাকসেনারা ধুলাউড়ি গ্রাম ঘিরে ফেলে ঘর বাড়িতে অগ্নি সংেেযাগ ও নারী ধর্ষণ করে এবং ৮জন মুক্তিযোদ্ধসহ ১৯জন গ্রামবাসীকে গুলিকরে ও পুড়িয়ে হত্যা করে। প্রতিবছর এইদিনে এলাকাবাসী শহীদদের স্মরণে আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করে