বাংলাদেশ প্রতিবেদক: আনুষ্ঠানিকভাবে ২০ লাখ ডোজ করোনা টিকা বাংলাদেশের হাতে তুলে দিয়েছে ভারত। বৃহস্পতিবার (২১ জানুয়ারি) রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে এম আব্দুল মোমেনের হাতে টিকা হস্তান্তর করেন ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী।

এ সময় ভারত-বাংলাদেশ মিত্রতাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েই এ টিকার উপহার দেয়া হয়েছে বলেই জানান ভারতীয় হাইকমিশনার।

করোনার বিরুদ্ধে একজোট হয়ে লড়াইয়ের প্রত্যয় জানান তিনি। এ সহযোগিতা দুই দেশের সম্পর্ককে আরও মজবুত করবে বলে আশা জানান ভারতীয় হাইকমিশনার।

আর পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভারতকে ধন্যবাদ দিয়ে বলেন, দেশটি প্রমাণ করেছে তারা বাংলাদেশের সত্যিকারের বন্ধু।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, আজ ঐতিহাসিক একটি দিন। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশকে যেভাবে সহায়তা করেছিল, করোনা মহামারির এই বিপদেও তারা আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। এজন্য তাদের ধন্যবাদ জানাতে চাই। এই টিকা দেওয়ার মধ্য দিয়ে আমাদের দুই দেশের সম্পর্ক আরো শক্তিশালী হলো। তারা আমাদের ২০ লাখ ভ্যাকসিন উপহার দিল। আর যেটা চুক্তি করা হয়েছে সেগুলো মানে ৩ কোটি সেগুলোও আসবে।

এর আগে রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী আনুষ্ঠানিকভাবে টিকা হস্তান্তর করেন। এসময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী ড. জাহিদ মালেক, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, সকাল ১১টার পর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে ২০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিনবাহী এয়ার ইন্ডিয়ার কার্গো বিমান। পরে এগুলো নিয়ে যাওয়া হয় ইপিআই সংরক্ষণাগারে।

দেশের মাটিতে এখন করোনার টিকা। টিকা বহনকারী এয়ার ইন্ডিয়ার বিশেষ কার্গো বিমানটি হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। বিমানবন্দরের নানা আনুষ্ঠানিকতা শেষে ‍দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে ইপিআইয়ের দুটি বিশেষ কার্গো ভ্যানে কোল্ড চেইন ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করে ভারতের উপহার ২০ লাখ ডোজ টিকা নিয়ে যাওয়া হয় তেজগাঁও জেলা ইপিআইয়ের স্টোরেজে।

এ সময় ইপিআই কর্তৃপক্ষ জানায়, করোনার টিকা সঠিক তাপমাত্রায় সংরক্ষণের সক্ষমতা রয়েছে।

ইপিআই স্টোরের সামনে টিকা বহন করা দুটি ট্রাক আসার পর ইপিআইয়ের প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডা. মওলা বক্স বলেন, আমাদের এখানে ২০ লাখ টিকার সব সংরক্ষণ করা যাবে। যত দিন টিকা বিতরণ করা না হবে তত দিন এখানে টিকা সংরক্ষণ করা হবে। আমরা আশা করছি, এক মাসের মধ্যে সব বিতরণ করা হয়ে যাবে।

এদিকে সকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানান, রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভার্চুয়ালি টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় ভ্যাকসিন নিয়ে কোনো ধরনের গুজবে কান না দেওয়ার আহ্বান জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।