বাংলাদেশ প্রতিবেদক: দক্ষিণ কোরিয়ার হুন্দাই রোটেম কোম্পানি থেকে কেনা আলোচিত সেই ১০টি মিটারগেজ লোকোমোটিভের (ইঞ্জিন) প্রথম যাত্রাতেই বিকল হয়েছে ট্রেন। ১০টি ইঞ্জিনের একটিতে (৩০০৩) চট্টগ্রাম মেইল ঢাকায় আসার পথে গতকাল বৃহস্পতিবার তেজগাঁও স্টেশনে বিকল হয়ে পড়ে। গত বছরের আগস্টে ইঞ্জিনগুলো দেশে আসে। চুক্তি অনুযায়ী যন্ত্রাংশ সংযোজন না করে ৩২৩ কোটি টাকায় কেনা ইঞ্জিনগুলোর মান নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।

গতকাল ট্রেন বিকল হওয়ার কারণ সম্পর্কে রেল কর্মকর্তারা বলেছেন, এর সঙ্গে ইঞ্জিনের সম্পর্ক নেই। ট্রেনের ১৬ এবং ২৫১ নম্বরের বগির ভ্যাকুয়াম সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়। এতে ইঞ্জিন বন্ধ হয়ে যায়। এর সঙ্গে ইঞ্জিন ভালো-খারাপ হওয়ার সম্পর্ক নেই। অনেক চেষ্টাতেও ভ্যাকুয়াম মেরামত করা যায়নি। পাঁচ ঘণ্টা বিলম্বে ভ্যাকুয়াম ‘কাট’ করে চট্টগ্রাম মেইল কমলাপুরে নেওয়া হয়। এর পর ৩০০৩ ইঞ্জিন দিয়ে চট্টগ্রামের উদ্দেশে আরেকটি ট্রেন রওনা করে গতকাল সন্ধ্যা ৬টার দিকে। ওই ট্রেন চলাচলে কোনো সমস্যা হয়নি।

রেলের সূত্র জানিয়েছে, চুক্তি অনুযায়ী যন্ত্রাংশ না থাকায় ইঞ্জিনের ত্রুটি রয়েছে। প্রকল্পের আগের পরিচালক এ কারণে ইঞ্জিনগুলো গ্রহণ করতে রাজি ছিলেন না। কিন্তু রেলমন্ত্রীসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশে ইঞ্জিনগুলো খালাস করা হয়। দুর্নীতির অভিযোগ তোলার কারণে প্রকল্প পরিচালককে বদলি করা হয়। প্রায় এক বছর পাহাড়তলীতে নানা রকম পরীক্ষা এবং বসিয়ে রাখার পর গত ৩ অক্টোবর থেকে চলতে শুরু করে ইঞ্জিনগুলো।

রেল সূত্রে জানা গেছে, লোকোমোটিভগুলোতে দরপত্রের কারিগরি স্পেসিফিকেশন অনুযায়ী তিনটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান- ইঞ্জিন, অল্টারনেটর ও ট্রাকশন মোটর সংযোজিত হয়নি। তদন্তেও তা প্রমাণিত হয়।

গত ৩ মার্চ রেলমন্ত্রী ও সচিবের উপস্থিতিতে সভায় ইঞ্জিনগুলোর সক্ষমতা খতিয়ে দেখতে যাচাই কমিটি করা হয়। অথচ চুক্তি অনুযায়ী, ইঞ্জিনের মান নিয়ে প্রশ্ন থাকলে সিঙ্গাপুরে আরবিট্রেশন হওয়ার কথা। কিন্তু রেলওয়ের সাবেক কর্মকর্তা আহসান জাকিরের মাধ্যমে রিভিউ করে ইঞ্জিনগুলোকে উপযুক্ত দেখিয়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয়।

এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) অর্থায়নে এ ১০টি মিটারগেজ ইঞ্জিন প্রায় ৩ কোটি ৮০ লাখ ডলারে কিনেছে রেল। ট্যাক্স ভ্যাটসহ প্রতিটি ইঞ্জিনের দাম প্রায় ৪৩ কোটি টাকা।

করোনার কারণে ইঞ্জিন দেশে আনার আগে প্রাক-জাহাজীকরণ পরিদর্শন হয়নি। চুক্তি অনুযায়ী ইএমডিএস-৮-৭১০জি৩বি-টি১ মডেলের ইঞ্জিন সংযোজনের কথা। দেশে আনার পর দেখা যায়, দেওয়া হয়েছে ইএমডিএস-৮-৭১০জি৩বি-ইএস মডেল। টিএ১২-সিএ৯ মডেলের অল্টারনেটর সংযোজনের শর্ত থাকলেও দেওয়া হয়েছে টিএ৯-১২সিএস৯এসই মডেলের। এ২৯০৯-৯ মডেলের ট্রাকশন মোটর সংযোজনের পরিবর্তে দেওয়া হয়েছে ২৯০৯ মডেলের। লোড বক্সসহ ১১ ধরনের যন্ত্রাংশ দেওয়াই হয়নি। ইঞ্জিনের সক্ষমতা পরীক্ষায় লোড বাক্স আবশ্যিক যন্ত্র। অভিযোগ রয়েছে, লোড বক্স না দেওয়ায় ইঞ্জিন কখনোই পুরোপুরি পরীক্ষা করা যায়নি।

চুক্তি অনুযায়ী যন্ত্রাংশ না পাওয়ার এ অনিয়মে রেলের তৎকালীন ডিজি শামসুজ্জামান ও বর্তমান অতিরিক্ত ডিজি (রোলিং স্টক) মঞ্জুর-উল-আলমও জড়িত বলে লিখিত অভিযোগ রয়েছে। কিন্তু মঞ্জুর-উল-আলমকেই তদন্ত কমিটিতে রাখা হয়। পরে প্রকল্প বাস্তবায়নকারীদের আপত্তিতে কমিটি পরিবর্তন করা হয়। ওই কমিটির প্রতিবেদনেও উঠে আসে স্পেসিফিকেশন অনুযায়ী যন্ত্রাংশ দেওয়া হয়নি। তবে হুন্দাই রোটেম দাবি করে, তারা যেসব যন্ত্রাংশ দিয়েছে, সেগুলো আরও ভালো।

Previous articleনোয়াখালীতে তরুণীর মরদেহ উদ্ধার, প্রেমিকের বিরুদ্ধে মামলা
Next articleভারতকে তালেবানের হুঁশিয়ারি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।